শুক্রবার ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২০ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন

  • ফারহান ইশরাক

সারা পৃথিবীতে কোভিড-১৯ এর ভয়াবহ মৃত্যুস্রোত বইছে। প্রতিদিনই অসংখ্য মানুষের মৃত্যু ঘটছে, আক্রান্ত হচ্ছে আরও কয়েকগুণ। তবে এর পাশাপাশি মানুষের সুস্থ হয়ে ঘরে ফেরার প্রবণতাও বাড়ছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই করোনা আক্রান্তদের সুস্থতার হার পূর্বের তুলনায় উর্ধমুখী। জনহপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ও রোগীদের সুস্থতার হার নিয়ে ইতিবাচক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কিন্তু নিরেট সত্য হলো, কার্যকরী ভ্যাকসিন আবিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত জীবন-মৃত্যুর মাঝে থেকেই এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষকে লড়াই করতে হবে। ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরুর দিকে মানুষের সচেতনতা যে পর্যায়ে ছিল, কিছু কিছু ক্ষেত্রে সে তুলনায় সচেতনতা বেড়েছে। আবার এর বিপরীত চিত্রও সমানভাবে দৃশ্যমান। তবে মানুষ শারীরিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য যে ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করছে, মানসিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষার্থে তার এক শতাংশও করছে বলে মনে হয় না। বিভিন্ন মনোবিজ্ঞানী ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জরিপে উঠে এসেছে, মহামারীর এই সময়ে সামগ্রিকভাবে মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটছে। দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চলতে থাকলে তা মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার ওপর মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে। তাই সময় থাকতেই সকলের উচিত হবে শারীরিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতিও সমান যতœশীল হওয়া।

তিন মাস ধরে লকডাউনের প্রভাবে সমাজের সঙ্গে মানুষের যে স্বাভাবিক সম্পর্ক, সেটি বিনষ্ট হচ্ছে। আবার দীর্ঘদিন ঘরে থাকার কারণে সকলের মধ্যে এক ধরনের মানসিক চাপ ও শঙ্কার সৃষ্টি হচ্ছে, যেটি সবাইকে ঠেলে দিচ্ছে ক্লান্তিহীন বিষণœতার দিকে। মূলত লম্বা সময় ধরে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার স্থবিরতাই এর প্রধান কারণ। আর এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে রয়েছে তরুণ প্রজন্ম। এই সময়ে তরুণদের বিষণœতার আরও বেশ কিছু জোরালো কারণ রয়েছে। প্রথমত, গত চার মাসে ইন্টারনেটে প্রচলিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ব্যবহার ব্যাপকহারে বেড়েছে। সারাদিন ঘরে থাকার ফলে দিনের বেশিরভাগ সময়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যয় করছেন তরুণেরা। এটি চারপাশের পরিবেশ থেকে তাদের বিচ্ছিন্ন করে ফেলছে। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়া ও প্রযুক্তির অত্যধিক ব্যবহার মানুষের মস্তিষ্কে দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব বিস্তার করে, যা থেকে পরবর্তীকালে বিষণœতা ও অনিদ্রার মতো বিভিন্ন জটিল সমস্যার সৃষ্টি হয়। বিষণœতার দ্বিতীয় কারণ হিসেবে সামাজিক বলয় থেকে দূরে থাকাকে চিহ্নিত করা যায়। ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সবাইকেই আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও পরিচিতজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করা থেকে বিরত থাকতে হচ্ছে। ভার্চুয়ালি একে অন্যের সঙ্গে সংযুক্ত থাকলেও মানুষের মাঝে দূরত্ব বাড়ছে, আবার নিজেদের সুরক্ষার জন্য এটি উপেক্ষা করারও উপায় নেই। এর ফলে মানুষের মাঝে এক ধরনের অবসাদের সৃষ্টি হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
যে অপরাধ করবে তাকেই শাস্তি পেতে হবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ একটি মাইলফলক : সেতুমন্ত্রী         ইভিএম গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি : ইসি আহসান হাবিব         অভিবাসীদের জীবন বাঁচাতে প্রচেষ্টা বাড়াতে হবে         অস্ত্র মামলায় ছাত্রলীগ নেতা সাঈদী রিমান্ডে ॥ জোবায়েরের জামিন         স্ত্রীর কবরের পাশে চিরশায়িত হবেন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী         শিগগিরই সব দলের সঙ্গে সংলাপ : সিইসি         চাঁদপুরে ট্রাক-অটোরিকশা মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের দুই পরীক্ষার্থী নিহত         নগর ভবনে দরপত্র জমা দেওয়ার চেষ্টা         রাজধানীর বাজারে প্রায় সব পণ্যের দাম বৃদ্ধি         শনিবার গ্যাস থাকবে না রাজধানীর যেসব এলাকায়         আজ দ্বিতীয় ধাপের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত         সারাদেশে চলছে ভোটার তালিকার হালনাগাদ         দৌলতখানে বাবা-ছেলে চেয়ারম্যান প্রার্থী         আফগানিস্তানে নারী উপস্থাপকদের অবশ্যই মুখ ঢাকতে হবে, নির্দেশ তালিবানের         শাহজালালে ৯৩ লাখ টাকার স্বর্ণসহ যাত্রী আটক         আগামী ২৯ মে চালু হচ্ছে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে যাত্রীবাহী ট্রেন         যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ছে বিরল যে রোগ!         কৃষিজমি ৬০ বিঘার বেশি হলে সিজ করবে সরকার         ‘মুজিব’ বায়োপিকের ট্রেলার প্রকাশ