বৃহস্পতিবার ৯ আশ্বিন ১৪২৭, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

শৈত্যপ্রবাহে কাঁপছে দেশ

তীব্র শীত ও ঠাণ্ডা কনকনে বাতাস জাঁকিয়ে বসেছে সারাদেশে। অগ্রহায়ণ তার বিদায় ঘণ্টা বাজালে পারিপার্শ্বিক মানুষও শীতকে আমলে নেয়ার কর্মযোগে শামিল হয়। তার মধ্যে থাকে লেপ, কম্বল নামানো, শীতের বস্ত্র নিজের হাতের কাছে রাখা। প্রয়োজনে নতুন গরম কাপড় কেনাকাটারও ধুম পড়ে যায়। কিন্তু এবার কিছুটা ব্যতিক্রম। তীব্র হাড় কাঁপানো শীতের জন্য অর্থাৎ, শীতটা এবার হঠাৎ এমনভাবে আসে যাতে সারাদেশ তীব্র ঠাণ্ডায় কাতর হয়ে গরম কাপড় চোপড় কেনায় ব্যস্ত হয়ে পড়ে। হেমন্তের হিমেল হাওয়ার পর পৌষের ঠাণ্ডা আবহ যে মাত্রায় আসতে থাকে, সেখানে অনাকাক্সিক্ষতভাবে শীত জেঁকেও বসে। এবার হঠাৎ করে পুরো দেশকে শীতের কামড়ে কাতর হতে দেখা যায়। ফলে শীতবস্ত্রের বাজারেও দৃশ্যমান হয় উপচে পড়া ভিড়। অসহায় ছিন্নমূল, হতদরিদ্র, শিশু এবং অসুস্থ বৃদ্ধরাও পড়ে চরম দুর্বিপাকে। কুয়াশা ঢাকা প্রতিবেশে সূর্যের দেখা পাওয়াই ভার। সঙ্গে বইছে কনকনে ঠাণ্ডা শৈত্যপ্রবাহ। ফলে সর্বশরীরে কাঁপন লাগা ছাড়া উষ্ণতার কোন ছোঁয়াই পাওয়া যাচ্ছিল না। কুয়াশার চাদরে মোড়া, রবিহারা তেমন দিনে সাধারণ মানুষ টায়ার ও খড়কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে উত্তাপ নিতে উদগ্রীব হয়ে পড়ে। দৃশ্যত সেসব বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে উঠেও আসে। শীত শুধু যে দেশবাসীকেই কাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে তা কিন্তু নয়, সারাদেশের যাতায়াত ব্যবস্থার ওপরও ফেলেছে এক অবর্ণনীয় দুর্ভোগ। বিশেষ করে নৌ এবং আকাশ পথ সময় বিপর্যয়ের নাজেহাল অবস্থায়। তার প্রভাব পড়তে সময় লাগছে না সড়কেও।

ঘন কুয়াশায় ফেরিঘাট কোন সময়সূচী মানতে পারছে না। সঙ্গত কারণেই নদীর দু’পাশে দীর্ঘ যানজটে যাত্রীদের অসহনীয় দুর্ভোগ। শীতের প্রত্যক্ষ প্রভাব দৃশ্যমান হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতেও। ঠাণ্ডাজনিত রোগবালাইকেও শীতের সহযোগী হিসেবে মেনে নিতে বাধ্য হতে হচ্ছে। সর্দি-কাশি, নিউমোনিয়া, পেটের পীড়া কিংবা ডায়রিয়া পর্যন্ত গড়িয়ে যাওয়া রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে মানুষ। পার্থক্য করা যাচ্ছে না দিন ও রাতের তাপমাত্রা। সর্বোচ্চ আর নিম্নের যে তাপ নির্ধারণ তাতে ফারাক খুব বেশি দেখা যায়নি। তবে কয়েক দিন দাপিয়ে বেড়ানো এই শীতের প্রবাহ আস্তে আস্তে সহনীয় পর্যায়ে এসে যাচ্ছে। তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। সামনে আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যা হোক এবারের শীতের আমেজটা একটু অন্যরকমের, ভিন্ন মাত্রার। সবচেয়ে বেশি কষ্ট পোহাতে হচ্ছে ছিন্নমূল অসহায় নিম্নবিত্তের মানুষদের। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ করে হতদিরদ্রদের উপস্থিত সঙ্কট মেটাতে পারে সমাজের বিত্তবান শ্রেণী ও দাতা সংস্থাগুলো। এক্ষেত্রে সচেতন মানুষদের দায়বদ্ধতা এবং নজরদারি একান্ত আবশ্যক। কারণ পৌষের শুরুতেই যদি এমন দুর্ভোগ পোহাতে হয়, তাহলে শীতের বাকি দিনগুলোর অবস্থাও সবাইকে ভাবতে হবে বৈকি।

শীর্ষ সংবাদ:
কক্সবাজারের ৩৪ পুলিশ পরিদর্শককে একযোগে বদলি         রোহিঙ্গাদের ভোটার হওয়া ঠেকাতে ইসি’র বিশেষ কমিটি         ২০২১ সালের ডিসেম্বরে পদ্মাসেতুতে ট্রেন চলবে : রেলমন্ত্রী         ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বগি লাইনচ্যুত, ট্রেন চলাচল বন্ধ         এনআইডি জালিয়াতিতে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে : ডিজি         নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের ৫৪০ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দেয়া উচিত         হাসপাতালগুলো ডাকাতির মত পয়সা নিচ্ছে ॥ মেয়র আতিক         মসজিদে বিস্ফোরণ ॥ ৩৫ পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে অনুদান         করোনা ভাইরাসে আরও ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪০         নুর অপরাধ করলে বিচার করুন, হয়রানি করবেন না ॥ ডা. জাফরুল্লাহ         সৌদি-ওমানের সব ফ্লাইট ১ অক্টোবর থেকে চালু হবে ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         বিদেশি সংস্থার সাথে গোপনে বৈঠক করে সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছে: কাদের         এনু-রুপনের বিরুদ্ধে চার্জশিট গ্রহণ         স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিশুদের টিকা দেওয়ার আহ্বান মেয়র তাপসের         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে একদিনে ১১২৯ জনের মৃত্যু         করোনায় ভারতের রেল প্রতিমন্ত্রী সুরেশ আঙ্গাদির মৃত্যু         সৌদি আরবের ভিসা ও টিকেট নিতে গিয়ে বিশৃঙ্খলা না করার অনুরোধ         নারায়ণগঞ্জে ‘মৃত’ ছাত্রীর ফিরে আসা ॥ বিচারিক অনুসন্ধানের নির্দেশ         বাবা-মায়ের আদরের ভাগ না দিতে ছোট বোনকে খুন করে বড় ভাই         অবশেষে জার্মানে আজানের অনুমতি পেলেন মুসলিমরা