সোমবার ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১০ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

দুর্যোগের ক্ষতি কাটাতে আলাদা তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ

দুর্যোগের ক্ষতি কাটাতে আলাদা তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ

কাওসার রহমান, মাদ্রিদ (স্পেন) থেকে ॥ জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষয় ও ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে অর্থ সহায়তা দিতে একটি আদালা তহবিল গঠনের জোড়াল দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশসহ ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো। সেই সঙ্গে ক্ষয় ও ক্ষতির (লস এন্ড ডেমেজ) বিষয়ে এবারের সম্মেলনেই ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজমকে কার্যকর করার দাবি তুলেছে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো।

এবারের জলবায়ু সম্মেলনে ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজম হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতির শিকার দেশগুলোর অন্যতম এজেন্ডা। বাংলাদেশ শুরু থেকেই এই এজেন্ডায় নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এবারের সম্মেলনেও এই ইস্যু নিয়ে দরকষাকষিতে স্বল্পোন্নত দেশগুলোর পক্ষে পেছন থেকে বাংলাদেশই নেতৃত্ব দিচ্ছে। এবারের সম্মেলনে ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজম কার্যকর করা এবং ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে এবং ক্ষয় ও ক্ষতি মোকাবেলায় সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য গ্রীন ক্লাইমেট ফান্ডের আওতায় আলাদা তহবিল গঠন ছাড়াও জলবাযু পরিবর্তনের কারণে কোন কোন দেশ কী পরিমানে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তা নিরুপনে একটি কার্যকরী কমিটি গঠনের নতুন দাবি জানানো হয়েছে এলডিসির পক্ষ থেকে। এই কমিটি গঠন করলেই বুঝা যাবে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে কোন দেশ কী পরিমান ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

আর অর্থায়নের জন্য গ্রীন ক্লাইমেট ফান্ডের আওতায় আদালা তহবিল বা উইন্ডো গঠনের দাবি জানানো হয়েছে দুটি কারণে। একটি হচ্ছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যে ক্ষয় ও ক্ষতি বা লস এন্ড ডেমেজ হচ্ছে তার ক্ষতিপূরণ হিসাবে এবং ক্ষয় ও ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য।

তবে ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজমের ব্যাপারে উন্নত দেশগুলোর আপত্তি না থাকলেও লস এন্ড ডেমেজের ক্ষতিপূরণ প্রদানে অর্থায়নের ব্যাপারে উন্নত দেশগুলো আপত্তি জানিয়ে আসছে। তারা ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোকে বলছে, দুর্যোগের ঝুঁকি কমাতে ব্যবস্থা নিতে।

ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর বক্তব্য হচ্ছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব দিন দিন প্রকট হচ্ছে। এজন্য বাড়াছে ঘূর্নিঝড়, বন্যা, খড়া প্রভৃতি। এসব দুর্যোগ মোকাবেলায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো আর কত ঝুকি হ্রাস করবে। আর এসব দুর্যোগের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোতে প্রতি বছর বিপুল পরিমান অবকাঠামো ও সম্পদের ক্ষতি হচ্ছে। এই ক্ষতি বিপদাপন্ন দেশগুলো কীবাবে কাটিয়ে উঠবে। উন্নত দেশগুলোর কাছে বিপুল সম্পদ আছে। তা দিয়ে তারা তাদের দুর্যোগের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবে। এবছর ফ্লোরিডায় ঘুর্ণিঝড়ের আঘাতে যে ৬৮ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতি হয়েছে তা যুক্তরাষ্ট্র সহজেই কাটিয়ে উঠবে। কিন্তু এবছর বাংলাদেশের যে দুটি প্রলয়ংকারী ঘুর্ণিঝড় আঘাত হেনেছে তার ক্ষতি কিভাবে এই দেশ কাটাবে। মুলত লস এন্ড ডেমেজের এসব বিষয় নিয়েই গত ৬ দিন ধরে আলোচনা চলছে। তবে দরকষাকষিতে একটি ইতিবাচক ফল বের করে নিয়ে আসার ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো আশাবাদী।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্য এবং পরিবেম বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মঞ্জুরুল হান্নান খান বলেন, জলবায়ু আলোচনায় লস এন্ড ডেমেজ আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়ে আলোচনা চলছে। আপনারা জানেন যে, লস এন্ড ডেমেজের জন্য ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজমের ব্যাপারে ওয়ার্ক প্রোগ্রাম হয়েছে। এখন এটি বাস্তবায়নের কৌশল এখনও ঠিক হয়নি। ২০২০ সাল থেকে প্যারিস চুক্তি কার্যকর করতে হলে ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনাল ম্যাকানিজমের জন্য বাস্তবায়ন কৌশল ঠিক করতে হবে। আমরা এই সম্মেলনেই এই কৌশল ঠিক করতে চাই।

তিনি বলেন, ‘গ্রীন ক্লাইমেট ফান্ডের আওতায় লস এন্ড ডেমেজের অর্থায়নের জন্য আমরা একটি আলাদা উইন্ডো করতে চাই। এ ব্যাপারে আমরা উন্নত দেশগুলোর ওপর চাপ অব্যাহত রেখেছি।’

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের অপর সদস্য এবং দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সবিচ মো: মহসীন বলেন, এবারের সম্মেলনে ওয়ারশো ইন্টারন্যাশনার ম্যাকানিজমের ব্যাপারে একটি ঐক্যমত হবে বলে আমি আশাবাদী। তবে আমাদের মুল বিষয় হচ্ছে অর্থ। আমরা নিজেদের উদ্যোগে আর কত ঝুকি মোকাবেলা করব। আমাদের অর্থ সহায়তা দরকার। আর্থিক সহায়তা পেলে আমাদের দুর্যোগ মোকাবেলার কাজটা সহজ হয়ে যায়। এ ব্যাপারে আলোচনা চলছে। আমরাও আমাদের দাবির স্বপক্ষে চাপ অব্যাহত রেখেছি।

তিনি বলেন, ‘আমরা বিপদাপন্ন দেশ। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আমাদের ক্ষতি বেশি হচ্ছে। আপনারা দেখেছে এবছরই দুটি বড় ঘূর্ণিঝড় আমাদের ওপর আঘাত হেনেছে। এজন্য আমরা ক্ষতিপূরণ চাই। সেই সঙ্গে আমরা উন্নত দেশগুলোর কার্বন নির্গমন কমানোরও দাবি জানাচ্ছি।’

মো: মহসীন আরও বলেন, পৃথিবীতে যেভাবে কার্বন নির্গমন হচ্ছে তাতে এটা ধংস হচ্ছে বেশি সময় লাগবে না। আমাদের দেশে ১৮ কোটি মানুষ। অন্য অনেক ক্ষতিগ্রস্ত দেশের চেয়ে আমাদের দেশে বেশি মানুষ বসবাস করে। ফলে দুর্যোগের কারণে আমাদের ক্ষতি বেশি হচ্ছে। তাই আমরা অর্থ সহায়তা পেলে আরও বেশি স্লাইক্লোন শেলটার নির্মান করতে পারব। ক্ষতিগ্রস্তদের জলবায়ু সক্ষম ঘর তৈরি করে দিতে পারব। আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেলে আমরা আরও ভালভাবে দুর্যোগের ঝুকি কমাতে পারব। তাই দুর্যোগের সঙ্গে বসবাস করতে আমাদের প্রতি উন্নত দেশগুলোর সহায়তা বাড়াতে হবে।

এদিকে, আজ মঙ্গলবার শুরু হচ্ছে জলবায়ু সম্মেলনের গুরুত্বর্পর্ণ অধিবেশন ‘হাই লেভেল সেগমেন্ট’। মঙ্গলবার সকাল ৯টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে এই বৈঠকের কাজ শুরু হবে। এতে বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্র প্রধানগণ বক্তৃতা করবেন। মন্ত্রী পর্যায়ের এই বৈঠকে যোগ দিতে জাতিসংঘের ৭৪তম জেনারেল অধিবেশনের প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ডিজানি মুহাম্মদ বান্দে। তিন দিনের সফরে তিনি মাদ্রিদ এসে পৌছেছেন।

এ বৈঠকে যোগ দিতে বাংলাদেশের পরিবেশ বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো: সাহাব উদ্দিনও মাদ্রিদ এসে পৌছেছেন। বাংলাদেশের একজন জলবায়ু বিশেষজ্ঞ হিসাবে আজ মঙ্গলবার মাদ্রিদে আসবেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তারা দুজন হাই লেভেল সেগমেন্টো সরাসরি অংশ গ্রহণ করবেন এবং বাংলাদেশের সরকারি প্রতিনিধি দলকে গুরুত্বপূর্ণ দিন নির্দেশনা দেবেন।

শীর্ষ সংবাদ:
৩ রুট ছাড়া বিমানের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাতিল         বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত হবেন আলাউদ্দিন আলী         অর্থ আত্মসাতের মামলায় সাহেদ ৭ দিনের রিমান্ডে         সিনহা হত্যা ॥ পুলিশের দুই মামলায় সিফাতের জামিন         কক্সবাজারের পুলিশ সুপারের প্রত্যাহার চায় রাওয়া         যুক্তরাষ্ট্রে নাগরিকত্ব ত্যাগের হিড়িক         ভারতে করোনায় একদিনে সহস্রাধিক মৃত্যু!         বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ২ কোটি ছাড়াল         তথ্যমন্ত্রীর পর লেবাননের পরিবেশমন্ত্রীও পদত্যাগ         হংকংয়ে গণতন্ত্রপন্থী ব্যবসায়ী গ্রেফতার         ভারতে সেপটিক ট্যাংকে নেমে ৬ শ্রমিকের মৃত্যু         উপসর্গহীনেই করোনা মুক্তির আশা         অনির্দিষ্টকালীন সময়ের জন্য বাতিল হচ্ছে আইপিএল নিলাম         লেবাননের বিস্ফোরণের নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি ফ্রান্সের         নাইজারে দুষ্কৃতদের হামলায় ৬ ফরাসীসহ নিহত ৮         ওয়াশিংটনে বন্দুকধারীদের হামলায় গুলিবিদ্ধ ২১, মৃত ১         ৯৪ বছরের মধ্যে নর্থ ক্যারোলিনায় সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প         পিজিসিসির ইরানবিরোধী আহ্বানে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উচ্ছ্বাস!         ঘুরে দাঁড়াচ্ছে অর্থনীতি ॥ শক্তিশালী হয়ে উঠছে সূচকগুলো         দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে        
//--BID Records