বুধবার ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ০৮ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

এনকাউন্টারে ধর্ষক নিহত হওয়ার খবরে ভারতীয়রা উল্লাস করছে

এনকাউন্টারে ধর্ষক নিহত হওয়ার খবরে  ভারতীয়রা উল্লাস করছে

অনলাইন ডেস্ক ॥ ভারতে গণ-ধর্ষণে অভিযুক্ত চারজন পুরুষ পুলিশের সাথে 'এনকাউন্টারে' নিহত হওয়ার পর সারা দেশে লোকজন উল্লাস প্রকাশ করেছে। গত সপ্তাহে হায়দ্রাবাদে ২৭ বছর বয়সী একজন পশু চিকিৎসককে ধর্ষণের অভিযোগে তাদেরকে আটক করা হয়েছিল। তাদের হত্যাকাণ্ডের পর পরই প্রায় দু'হাজার মানুষ ওই পুলিশ স্টেশনের সামনে জড়ো হয়। তারা 'পুলিশ জিন্দাবাদ' বলে স্লোগান দেয় এবং নিজেদের মধ্যে মিষ্টি বিতরণ করে। নিহত ওই তরুণীর পুড়ে যাওয়া মৃতদেহ যেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল এবং যেখানে চারজন অভিযুক্তকে হত্যা করা হয় সেখানে লোকজন ফুল ছিটিয়ে দেয়।নিহত পশু চিকিৎসক যে এলাকায় থাকতেন সেখানেও লোকজন জড়ো হয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে, তারা আতসবাজি জ্বালায় ও মিষ্টি বিতরণ করে। অনলাইনে লোকজনের আনন্দ প্রকাশ এখনও চলছে। অভিযুক্তরা নিহত হওয়ার কারণে তারা পুলিশকেও অভিনন্দন জানাচ্ছে।

কিন্তু এর পেছনে কারণ কী?

অভিযুক্তরা নিহত হওয়ায় সাধারণ লোকজন যে আনন্দ প্রকাশ করছেন তার একটি কারণ হচ্ছে ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার শ্লথ গতি। বিচারের ওপর আস্থাহীনতার কারণে তারা 'তাৎক্ষণিক বিচার'কে স্বাগত জানাচ্ছেন। কোন একটি মামলার বিচার সম্পন্ন হতে দিনের পর দিন, বছরের পর বছর এমনকি যুগের পর যুগও চলে যায়। আদালতে ঝুলে আছে লাখ লাখ বিচার। তার মধ্যে ধর্ষণ সংক্রান্ত মামলার সংখ্যা দেড় লাখেরও বেশি। এর ফলে বিচার ব্যবস্থার প্রতি মানুষের আস্থা ধীরে ধীরে অনেক কমে গেছে। এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ হতে পারে রাজধানী দিল্লিতে ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে চলন্ত বাসে ২৩ বছর বয়সী মেডিক্যালের ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনাটি।

এই ঘটনাটি শুধু ভারতেই নয় সারা বিশ্বেই আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। এর প্রতিবাদে সারা ভারতেই দিনের পর দিন প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়েছে। এর ফলে সরকার কঠোর আইন করতে বাধ্য হয়, এমনকি কোন কোন ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ডের বিধানও রাখা হয়। কিন্তু এতো কিছুর পরেও নৃশংস ওই ঘটনার বিচার খুবই ধীর গতিতে চলতে থাকে। সাত বছর পরে এসে মেডিকেলের ওই ছাত্রীর মা আশা দেবী অভিযোগ করেছেন যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ধর্ষণকারীরা রায়ের কার্যকর বিলম্বিত করার জন্যে আইনের সব ধরনের ফাঁক ফোঁকর ব্যবহারের চেষ্টা করছে। হায়দ্রাবাদে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত চার ব্যক্তি নিহত হওয়ার পর আশা দেবীও পুলিশকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, "গত সাত বছর ধরে আমি সর্বত্র দৌড়াদৌড়ি করছি। আমার মেয়ে নির্ভয়ার হত্যাকারীদের মৃত্যুদণ্ড যাতে খুব শীঘ্রই কার্যকর করা হয় সেজন্য তিনি আদালত ও সরকারের কাছে অনুরোধ করছি।"

"পুলিশ যে শাস্তি দিয়েছি তাতে আমি খুব খুশি। তারা একটা দারুণ কাজ করেছে। আমার দাবি পুলিশের এসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যাতে কোন ব্যবস্থা নেওয়া না হয়।"

ভারতে ধীর গতির বিচার ব্যবস্থার কারণে মানুষের হতাশার প্রতীক হয়ে ওঠেছেন এই আশা দেবী। গত সপ্তাহে তরুণী পশু চিকিৎসকে ধর্ষণ ও পরে পুড়িয়ে মারার ঘটনাটি প্রকাশিত হওয়ার পরেও অনেকে একই রকমের হতাশা প্রকাশ করছিলেন। তাদের অভিযোগ যে এরকম একের পর ধর্ষণের ঘটনা ঘটতেই থাকবে, কারো কোন বিচার হবে না। বিচার ব্যবস্থার প্রতি এই অনাস্থার কারণেই অনেকে এনকাউন্টারে মৃত্যুর মতো 'তাৎক্ষণিক বিচারকে' সমর্থন দিচ্ছেন। একারণে সাম্প্রতিক কালের ভারতীয় ছবিতেও পুলিশের হাতে এরকম বিচার-বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তুলে ধরা হচ্ছে, যেখানে তাদেরকে নায়কের মতো বীর হিসেবেই চিত্রিত করা হচ্ছে। তবে কেউ কেউ আছেন যারা এধরনের হত্যাকাণ্ডের সমালোচনা করে এর তীব্র বিরোধিতা করছেন। তারা বলছেন, বিচারের আগেই অভিযুক্তদের এভাবে হত্যা করা কিছুতেই গ্রহণযোগ্য নয়। হায়দ্রাবাদে কাউন্সিল ফর সোশাল ডেভেলপমেন্টের কল্পনা কান্নাবিরান বলছেন, "আমরা যে উত্তর খুঁজছি সেটা ট্রিগার-হ্যাপি পুলিশের আইন অমান্য করার মধ্যমে পাওয়া যাবে না।"

"ভিকটিমের শোকগ্রস্ত পরিবার কিম্বা শোকের মাধ্যমে বিচারের পথ নির্ধারিত হয় না। বিচার হচ্ছে এসময় তাদেরকে সাহায্য সমর্থন দেওয়া এবং অভিযুক্তদের যাতে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচার করা যায় সেটা নিশ্চিত করা।"

অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পুলিশ যে আসলেই অপরাধীদের গ্রেফতার করেছে তার গ্যারান্টি কী? এমনও তো হতে পারে যে তারা মানুষের ক্ষোভ প্রশমনের জন্যে দরিদ্র কিছু ট্রাক চালককে ধরে একাজটা করেছে!

কিন্তু এধরনের প্রশ্ন যারা করেছেন, শুক্রবার তাদের সংখ্যা খুব একটা বেশি ছিল না।

সূত্র : বিবিসি বাংলা

শীর্ষ সংবাদ:
চিকিৎসায় প্রতারণা ॥ সিলগালা করা হলো রিজেন্ট হাসপাতাল         পিক টাইম কবে ॥ করোনা সংক্রমণ         বান্দরবানে ফের ব্রাশফায়ারে ছয় খুন         বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান বাড়ানোই লক্ষ্য         জাবিতে ১২ জুলাই থেকে অনলাইন ক্লাস শুরু         উত্তরে পানি কমতে শুরু করলেও দুর্ভোগ কমেনি         বন্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশকে এক লাখ ইউরো দিচ্ছে ইইউ         ভার্চুয়াল আদালত নিয়ে আজ বিচারপতিদের ফুলকোর্ট সভা         বাজার স্থিতিশীল রাখতে এবার চাল আমদানির সিদ্ধান্ত         ঘরে বসেই দেখা যাবে গোয়ালঘর, কেনা যাবে কোরবানির পশু         এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও বেশি আউশ আবাদ হয়েছে         ড্রেন নির্মাণে রডের পরিবর্তে বাঁশ ব্যবহারকারী ইউপি মেম্বার সাসপেন্ড         সারাদেশে ১৫৮টি প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৫৫ জনের, নতুন শনাক্ত ৩০২৭         ওয়ারি লকডাউন আরো কঠোর হবে,এলাকাবাসী ধৈর্য্য ধরুন : মেয়র তাপস         একযুগ পর ট্রেনে কোরবানীর পশু পরিবহন করবে রেলওয়ে : রেলপথমন্ত্রী         ‘করোনা পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’: তথ্যমন্ত্রী         লঞ্চ দুর্ঘটনা : হত্যাকাণ্ড প্রমাণিত হলে ‘হত্যা মামলা’ হবে : নৌপ্রতিমন্ত্রী         বিজিবির ১১৯ মুক্তিযোদ্ধার গেজেট বাতিলের প্রজ্ঞাপন স্থগিত         সংসদের মুলতবি অধিবেশন বসছে বুধবার        
//--BID Records