ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

গাঁয়ের টানে, নাড়ির টানে

প্রকাশিত: ০৯:০২, ৩০ মে ২০১৯

 গাঁয়ের টানে, নাড়ির টানে

আজিজ আহমেদ ॥ মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হচ্ছে ঈদ। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর অনুষ্ঠিত হয়। আর এই সময়টা ঢাকাতে বসবাসরত অনেকেই নিজের শেকড়ের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগির জন্য ফিরে যায় নিজ গাঁয়ে। ঈদ মানে খুশি, মায়ের টানের পরম মমতায় গাঁয়ে ফেরা। শেকড়ের সন্ধানে এই সময়টাতে মানুষ যে কোন প্রকারেই হোক নিজের শেকড়ের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতেই শত বাধা-বিপত্তিকে দুমড়েমুচড়ে ঠিকই পৌঁছে যায় নিজের জন্মস্থানে। জীবিকার প্রয়োজনে ইট-পাথরের শহরে আবাস গড়লেও রাজধানীবাসীর মন পড়ে থাকে অন্য কোথাও, নিজ গ্রামে। যেখানে রয়েছে মানুষের নাড়ির টান। ঈদের মাত্র আর কয়েকদিন বাকি আর এরই মধ্যে বাস, ট্রেন, লঞ্চের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে গেছে। এই সময়টাতে যারা টিকেট পেয়েছে তারা যেন সোনার হরিণ হাতে পেয়েছে তাদের আনন্দের অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ রাজধানীতে যে পরিমাণ ফিটনেস সম্পন্ন গাড়ি দরকার তা পর্যাপ্ত পরিমাণে নেই। তার মধ্যে টিকেট কালোবাজারি রোধ করতে সরকার ব্যবস্থা নিলেও ঈদের আগে এই সমস্যাটা যেন আরও বেড়ে যায়। ফলে যাত্রীদের ভয়াবহ সমস্যায় পড়তে হয়। যারা টিকেট পেয়েছে তারা ইতোমধ্যেই হয়ত পরিবার-পরিজনের জন্য ঈদের কেনাকাটা করে প্রস্তুতি নিচ্ছে নিজের গাঁয়ে ফেরার। টিকেট হাতে পেলেও এই ঈদে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে রাস্তায় অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় মানুষকে। ট্রেন, বাস কিংবা লঞ্চ এই সময়টাতে অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়ায় যে ট্রেনের,বাসের ছাদে অবধি মানুষের ভিড় থাকে। সেখানে তিল পরিমাণ জায়গা থাকে না। সামনে ঈদ আর এই ঈদকে কেন্দ্র্র্র করে কোটি মানুষ ঢাকা ছেড়ে যাবে নাড়ির টানে, বাড়ির টানে। ঈদে যেভাবেই হোক বাড়ি ফেরা চাই-ই চাই সবার সঙ্গে একসঙ্গে ঈদ করতে। দেশের পরিবহন খাতের কিংবা রাস্তাঘাটের উন্নতি হলেও ঠিক যতটুকুন দরকার ততটুকুন এখনও হয়নি। ঈদের মধ্যে বাড়ি ফেরা মানুষগুলোকে যথেষ্ট ভোগান্তি পোহাতে হয়। যেখানে বাড়ি ফেরার নিরাপদ বাহন ট্রেন সেখানেও অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক হয়ে যায়। ঈদ এলেই মানুষের যানবাহনের চাহিদা দ্বিগুণ হয়ে যায়। আর এই চাহিদা পূরণ করতে এক ধরনের অসাধু পরিবহন ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায়। তারা ফিটনেসবিহীন গাড়ি রং করিয়ে রাজপথে নামিয়ে দেয় যার ফলে বিভিন্ন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার সৃষ্টি হয়। অতএব ঈদে ঘরমুখো মানুষদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে যাতে তারা কোন দুর্ঘটনা মুখোমুখি না হয়ে নিরাপদে বাড়ি যেতে পারে। আর প্রতি বছর ঈদকে সামনে রেখে যে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি করা হয় এটা বন্ধ করতে হবে তা না হলে জনগণের দুর্ভোগের মাত্রা আরও অনেকটা যোগ হবে। টাঙ্গাইল থেকে