ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

‘কাজটার জন্য আমি উপযুক্ত নই’

প্রকাশিত: ১০:৩৩, ২৭ মে ২০১৯

  ‘কাজটার জন্য আমি উপযুক্ত নই’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বর্ণাঢ্য একটি ক্রিকেট ক্যারিয়ার শেষে কোচ হিসেবেও দারুণ সফলতা পাচ্ছেন। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) কোচ হিসেবে এবার শিরোপাই জিতেছেন। দুইবার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তার অধীনে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। আবার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগেও (বিপিএল) মাহেলা জয়বর্ধনে কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট ইতিহাসে অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান জীবন্ত কিংবদন্তি। এবার বিশ্বকাপে তাই শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) চেয়েছিল জাতীয় দলের জন্য কোন একটি দায়িত্বে বসাতে। কিন্তু জয়বর্ধনে তা গ্রহণ করেননি। কারণ দেশটিতে ক্রিকেট যেভাবে পরিচালিত হচ্ছে তাতে করে সমস্ত মোহমুক্তি ঘটেছে তার। এ জন্য তিনি দাবি করেছেন, এই মুহূর্তে কাজটির জন্য তিনি উপযুক্ত হয়ে উঠতে পারেননি। দেশের ক্রিকেট নিয়ে দারুণ কিছু ভাবনা শুরু করে দিয়েছিলেন জয়বর্ধনে। অবসরে যাওয়ার পর তিনি দেশের ঘরোয়া ক্রিকেট ঢেলে সাজাতে নিজস্ব একটি পরিকল্পনা প্রস্তাব এসএলসির কাছে দিয়েছিলেন। কিন্তু তার সেই পরিকল্পনা প্রস্তাবকে আমলে নেয়নি বোর্ড। এছাড়া গত বছর জয়বর্ধনে, কুমার সাঙ্গাকারা ও অরবিন্দ ডি সিলভাকে নিয়ে গঠিত একটি বিশেষ কমিটিও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের জন্য একটি বিস্তারিত, বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন পেশ করেছিল। এর মধ্যে পরামর্শ ছিল ঘরোয়া অবকাঠামোয় উন্নতির জন্য কিছু পরামর্শ এবং স্থানীয় ক্রিকেট প্রশাসনে সুবিধার জন্য কিছু দিকনির্দেশনা। তাদের সেই পরামর্শগুলোর প্রায় সবগুলোই এড়িয়ে গেছে এসএলসি। এর মধ্যেই জয়বর্ধনেকে দুইবার জাতীয় দলের জন্য উপদেষ্টা হিসেবে খেলোয়াড়দের সার্বিক সাপোর্ট দেয়ার কাজে নিয়োজিত করার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল। এর মধ্যে একবার শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী নিজে আহ্বান জানিয়েছিলেন তাকে। এরপর এসএলসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) তাকে এবার আইপিএল চলার সময় প্রস্তাব করেন। তবে দুইবারই এই আহ্বানে সাড়া দেননি জয়বর্ধনে। জয়বর্ধনে জাতীয় দলের কোন কাজ করতে নারাজ হয়েছেন কেন সেটা উপরোক্ত আলোচনাতেই স্পষ্ট হয়েছে। তার নিজস্ব এবং ডি সিলভা-সাঙ্গাকারাকে নিয়ে গঠিত কমিটির পরামর্শ ও প্রস্তাব পুরোপুরিই বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছে এসএলসি। এ কারণেই শান্তশিষ্ট স্বভাবের জয়বর্ধনে বুঝে গেছেন এসএলসির হয়ে তিনি মনমতো এবং নিয়মনীতি মেনে কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন না। জয়বর্ধনে বলেন, আমাকে বিভিন্নভাবে অনেকবার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই আমি ঠিক বুঝে উঠতে পারিনি আমার কাছ থেকে আসলে কি ধরনের দায়িত্ব পালন করাতে চায় তারা। কৌশলগত কোন বিষয়ে আমাকে নিয়োজিত করা হবে তেমন কোন বিষয় আমি দেখিনি। এমনকি পুরো অবকাঠামোগত বিষয় নিয়ে কোন কথা বলার মতো কিছু থাকবে না। দল নির্বাচন হয়ে গেছে এবং সবকিছুই পুরোপুরি শেষ। এখানে নতুন করে আমি প্রবেশ করার মতো কোন সুযোগই নেই, এমনকি নতুন কিছু যোগ করারও নেই। তবে বিভিন্ন সময়ে স্বল্প পরিসরে দলের ক্রিকেটারদের ক্লাস নেন জয়বর্ধনে। আর সেটি অব্যাহতই আছে তার। ক্রিকেটারদের সঙ্গে নিয়মিত কথা বলেছেন তিনি। এ বিষয়ে জয়বর্ধনে বলেন, আমি টিম ম্যানেজমেন্টের জন্য যে সামান্যটুকু অবদান রাখতে পারছি সেটাতেই আমি অনেক খুশি। কিন্তু এসএলসির হয়ে আমার কিছুই করার নেই। এই ব্যাপারটা আমি নিজেকেও সবসময় বলি। আমি কখনই এমন কোন কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ি না যেখানে নিশ্চিতভাবেই জানি যে কারও জন্য কিছু করার সঠিক জায়গা এটা নয়।