শুক্রবার ৬ কার্তিক ১৪২৮, ২২ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আট বছরে পুঁজিবাজার থেকে সরকারের আয় ২ হাজার ৬১৩ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সরকার গত আট বছরে বিও হিসাব ব্যবস্থাপনা ফি এবং দুই স্টক এক্সচেঞ্জে সম্পাদিত বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ওপর আরোপিত শুল্ক-কর বাবদ ২ হাজার ৬১৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকার রাজস্ব পেয়েছে। এর মধ্যে সদ্য বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সরকারের কোষাগারে জমা হয়েছে ৩৯৫ কোটি ৯ লাখ টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সদ্য বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল) কর্তৃক বিও হিসাব ব্যবস্থাপনা ফি থেকে অর্জিত ৫৭ কোটি ৫৩ লাখ টাকার চেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের হাতে তুলে দেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম খায়নুল হোসেন। এ সময় ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মোঃ আসাদুল ইসলাম, বিএসইসি কমিশনার অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালাসহ দুই পক্ষের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১০-১১ অর্থবছর থেকে সর্বশেষ অর্থবছর পর্যন্ত আট বছরে এ তিন শিরোনামভুক্ত খাত থেকে সব মিলিয়ে ২ হাজার ৬১৩ কোটি ৫৪ টাকার রাজস্ব পেয়েছে সরকার। ইতিহাসের সবচেয়ে চাঙ্গা অবস্থার সুবাদে পুঁজিবাজার থেকে সরকারের কোষাগারে সর্বোচ্চ রাজস্ব যায় ২০১০-১১ অর্থবছরে ৫৩৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এরপর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৯৫ কোটি ৯ লাখ টাকা জমা হলো সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে। পূর্ববর্তী ২০১৬-১৭ অর্থবছরে জমা হয়েছে তৃতীয় সর্বোচ্চ ৩৮৩ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। ২০১২-১৩ অর্থবছরের মন্দা বাজার পরিস্থিতিতে তা সর্বনিম্ন ১৬০ কোটির ঘরে নেমে গিয়েছিল।

খাতভিত্তিক বিভাজন চার্টে দেখা যায়, প্রতি বছরই সরকার সর্বোচ্চ রাজস্ব পায় দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সিকিউরিটিজ লেনদেন ও বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ওপর ধার্য করা বিভিন্ন শুল্ক-কর থেকে। গত আট বছরে ডিএসই থেকে সরকার সব মিলিয়ে ১ হাজার ৯৫৬ কোটি টাকার বেশি রাজস্ব পেয়েছে। এর মধ্যে ডিএসই সরকারকে সর্বোচ্চ ৪৪৮ কোটি ২২ লাখ টাকা রাজস্ব দিয়েছিল ২০১০-১১ অর্থবছরে। ২০১২-১৩ অর্থবছরে তা ১৩০ কোটি টাকার নিচে নেমে এলেও গত দুই অর্থবছরে তা ছিল ২৮০ কোটি টাকার বেশি।

সরকারের কোষাগারে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অঙ্কটি যায় সিডিবিএল থেকে বিও হিসাব ব্যবস্থাপনা ফি থেকে সরকারের জন্য কেটে রাখা অর্থ থেকে। ২০১০-১৮ সময়ে এ খাত থেকে সরকারের হাতে মোট ৪৬১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা তুলে দিয়েছে বিএসইসি। এ খাত থেকে সরকার সর্বোচ্চ ৮১ কোটি ২১ লাখ টাকা রাজস্ব পেয়েছে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে। বিনিয়োগকারীদের বাজারবিমুখতায় এর আগে ২০১২-১৩ অর্থবছরে তা ১৭ কোটি ৫১ লাখ টাকায় নেমে এসেছিল।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) কর্তৃপক্ষ শুল্ক ও কর বাবদ মোট ১৯৪ কোটি ৯৪ লাখ টাকা সংগ্রহ করে সরকারের কোষাগারে জমা করেছে। বন্দরনগরীর স্টক এক্সচেঞ্জটি গত অর্থবছরে তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের শুল্ক-কর বাবদ সর্বোচ্চ ৫৭ কোটি ৩৬ লাখ টাকা সরকারকে দিয়েছে। ২০১০-১১ অর্থবছরের চাঙ্গা বাজারে তা ছিল ৩৫ কোটি ১৮ লাখ টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সিএসই থেকে সরকারের মোট রাজস্ব ১২ কোটি টাকার নিচে নেমে এসেছিল।

শীর্ষ সংবাদ:
সুপার টুয়েলভে ॥ টাইগারদের চমৎকার নৈপুণ্য         সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে নজরদারি বাড়ান         জনকণ্ঠ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম         বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের রেকর্ড সাকিবের         অবশেষে কুমিল্লাকাণ্ডের হোতা ইকবাল গ্রেফতার         মূল্যস্ফীতি বাড়ছে         হঠাৎ বন্যায় তিস্তাপাড়ে ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী         শেখ হাসিনার হাতের ছোঁয়ায় উন্নত হচ্ছে রাজবাড়ী         সরকারের ধারাবাহিকতা থাকায় অভ‚তপূর্ব উন্নয়ন ॥ প্রধানমন্ত্রী         সন্ধ্যার পর ভাসানচর থেকে নৌযান চলাচল বন্ধ         বানরের শরীরে সফল ট্রায়াল, সব ভেরিয়েন্টে কার্যকর বঙ্গভ্যাক্স         শাহজালালে বসবে বিশ্বসেরা থ্যালাসের রাডার         হাসপাতালে আর থাকতে চাচ্ছেন না, বাসায় ফিরতে চান খালেদা         আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর, স্বস্তি ফিরছে জনমনে         জনকণ্ঠ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম         ডাকসেবাকে ডিজিটাল করতে আসছে ‘ডিজটাল ডাকঘর’         সারাদেশের রেলপথ ব্রডগেজে রূপান্তর করা হবে : রেলমন্ত্রী         টি-টোয়েন্টি : বড় জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ         শ্লীলতাহানির মামলা : কাউন্সিলর চিত্তরঞ্জন দাসের জামিন         দাম কমল পেঁয়াজের