বুধবার ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

জজ মিয়া উপাখ্যান

গ্রেনেড হামলার ১০ মাসের মাথায় ২০০৫ সালের ৯ জুন নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার বীরকোট গ্রামের বাড়ি থেকে জজ মিয়া নামের এক যুবককে সিআইডি আটক করেছিল। ১৭ দিন রিমান্ডে রেখে জজ মিয়ার কাছ থেকে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী আদায় করে এবং তদন্তের নামে ‘আষাঢ়ে গল্প’ প্রচার করেন মামলার তৎকালীন তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির এএসপি আবদুর রশিদ ও তৎকালীন বিশেষ সুপার রুহুল আমিন। সিআইডির এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার পর তিনিও সাজানো ছকে কথিত তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যান। এই গল্প সাজানোর ঘটনায় তদন্তকারী কর্মকর্তাদের তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর সরাসরি পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছেন বলে পরে তদন্তে বেরিয়ে আসে। ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে দেয়া সাজানো জবানবন্দীতে জজ মিয়া বলেছিলেন, তিনি আগে কখনও গ্রেনেড দেখেননি; গ্রেনেড ও বোমার মধ্যে পার্থক্য তিনি জানেন না। পাঁচ হাজার টাকার বিনিময়ে বড় ভাইদের নির্দেশে তিনি অন্যদের সঙ্গে গ্রেনেড হামলায় অংশ নেন। আর বড় ভাইয়েরা হচ্ছেন সন্ত্রাসী সুব্রত বাইন, জয়, মোল্লা মাসুদ, মুকুল প্রমুখ।

পার্থ ও মোখলেছুর রহমানকে ধরেও হামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর দৃশ্যপটে হাজির করা হয় জজ মিয়া উপাখ্যান। ১৭ দিন রিমান্ডে রেখে জজ মিয়ার কাছ থেকে সিআইডি সাজানো জবানবন্দী আদায় করে। একইভাবে ওই বছরের নবেম্বরে আবুল হাসেম রানা ও শফিক নামের আরও দুই যুবকের কাছ থেকে প্রায় একই রকম সাজানো জবানবন্দী আদায় করা হয়। তৎকালীন সরকার সমর্থক পত্রিকা ও তাদের বুদ্ধিজীবীরা ওই সাজানো জবানবন্দী ফলাও করে প্রচার করে হামলার ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার প্রাণপণ চেষ্টাও করে। বিভাগীয় তদন্তের নামে বিচারপতি জয়নুল আবেদীনের প্রতিবেদনেও ওই একই কথা বলা হয়। পরে প্রকাশ হয়ে পড়ে জজ মিয়ার পরিবারকে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিন প্রতিমাসে মাসোহারা প্রদানের শর্তে এই সাজানো জবানবন্দী আদায় করে।

এর প্রায় দুই বছর পর ২০০৬ সালের আগস্টে এই নাটকের পেছনের ঘটনা ফাঁস করে দেন জজ মিয়ার মা জোবেদা খাতুন। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, জজ মিয়াকে গ্রেফতারের পর থেকেই সিআইডি তার পরিবারকে মাসে মাসে ভরণপোষণের টাকা দিয়ে আসছিল। জজ মিয়াকে গ্রেনেড হামলা মামলায় রাজসাক্ষী করতে সিআইডির প্রস্তাবের কথাও ফাঁস করে দেন তিনি।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারির পর পুরো পরিস্থিতি পাল্টে যায়। সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এসেই ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার তদন্ত শুরু করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পড়ে। গ্রেনেড হামলার নেপথ্যের অনেক তথ্যই দেশবাসীর সামনে বেরিয়ে আসে। দেশবাসীর সামনে পরিষ্কার হয়ে যায়, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের উচ্চ পর্যায়ের পরামর্শেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা, সিআইডি ও পুলিশের তখনকার উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ব্যাপারে অবহিত ছিল এবং অনেকেই প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িতও ছিলেন।

তদন্তে বেরিয়ে আসে বিএনপির উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর বাসভবনে বৈঠক করেই এ হামলার পরিকল্পনা করা হয়। সেখানেই সিদ্ধান্ত হয় গ্রেনেড হামলা চালিয়ে তৎকালীন বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের হত্যা করার। এরপর আবদুল সালাম পিন্টু ও তার ভাই তাজউদ্দিন মাওলানা তাহের হামলার জন্য ১৫টি গ্রেনেড ঘাতকদের হাতে হস্তান্তর করে। শীর্ষ জঙ্গী মুফতি হান্নানের জবানবন্দীতেও হামলার ঘটনা অনেক আগে থেকে তারেক জিয়া জানতেন এবং হামলার ব্যাপারে তার সমর্থন ছিলÑ এটিও প্রকাশ পেয়ে যায়। আসামিদের জবানবন্দীতেই হামলার সঙ্গে জড়িতদের মধ্যে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদফতরের ওই সময়ের পরিচালক রেজ্জাকুল হায়দার ও এনএসআইয়ের মহাপরিচালক আবদুর রহিম, জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ, জঙ্গীনেতা তাজউদ্দিন, মাওলানা ফরিদ, মুফতি আবদুল হান্নান, হুজির সাবেক আমির মাওলানা আবদুল সালাম এবং কাশ্মিরী জঙ্গী আবদুল মাজেদ বাটের নাম উঠে আসে।

শীর্ষ সংবাদ:
কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি বন্ধে ছয় দফা দাবি         ছাত্রদল থেকেই এসব শিখে এসেছে মুরাদ ॥ হানিফ         রায় কার্যকর হলে আরও খুশি হব ॥ আবরারের বাবা         একজন সৃষ্টিশীল শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়কে আলোকিত করতে পারে ॥ ইবি ভিসি         মালিক-শ্রমিকের সম্পর্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ॥ প্রধানমন্ত্রী         নেত্রকোনা ট্রাজেডি দিবসে পাঁচ মিনিট নীরবতা পালন         ফেনী নদীতে চলছে মুহুরী সেতু নির্মাণ কাজ         মহিলা হোস্টেলসহ ৮ স্থাপনা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী         জিয়ার শাসনামলে মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করা হয়েছে নির্বিচারে ॥ দীপু মনি         ভিত্তিহীন অভিযোগে আবরারকে হত্যা ॥ পর্যবেক্ষণে বিচারক         পটুয়াখালীতে শুরু হলো মুক্তির বিজয় উৎসব         মধ্যাহ্ন বিরতিতে বাংলাদেশ         বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যা ॥ ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড         আবরার হত্যা ॥ আসামিদের বিরুদ্ধে রায় পড়া শুরু         নীলফামারীতে ট্রেনে কাটা পড়ে একই পরিবারের ৩ শিশুসহ ৪ জন নিহত         জবি কেন্দ্রে দ্বিতীয় ডোজ টিকা পেল ১৪০৬ জন শিক্ষার্থী         আজ শায়েস্তাগঞ্জ ও আজমিরীগঞ্জ পাকসেনা মুক্ত হয়েছিল         ডাক্তার মুরাদের এমপি পদের বৈধতা নিয়ে রিট         বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যা ॥ মামলার ২২ আসামি আদালতে         পটুয়াখালী মুক্ত দিবস আজ