ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯

জ্বালানি তেল বিক্রিতে ফের লোকসানে বিপিসি

প্রকাশিত: ০৬:০২, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

জ্বালানি তেল বিক্রিতে ফের লোকসানে বিপিসি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জ্বালানি তেল বিক্রিতে আবারও লোকসান গুনছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি)। টানা কয়েক বছর লাভ করে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দর বৃদ্ধিতে দেশের বাজারেও তেলের দাম বৃদ্ধির জন্য জ্বালানি বিভাগে চিঠি দিয়েছে। বিপিসি দাবি করছে গত নবেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত তাদের ৫০০ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে। সম্প্রতি জ্বালানি বিভাগে পাঠানো চিঠিতে কেরোসিনে ১১ টাকা, ডিজেলে ৭টাকা এবং ফার্নেস অয়েলে ১৩ টাকা বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে। এখন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ায় কেরোসিনে ১১ টাকা, ডিজেলে সাড়ে ৫ টাকা এবং ফার্নেস অয়েলে ১০ টাকা লোকসান করছে বিপিসি। বিপিসি বলছে সমীন্তের ওপারে বাংলাদেশী মুদ্রায় ৮৬ টাকা লিটার দরে ডিজেল বিক্রি হচ্ছে যা বিপিসির দরের তুলনায় ২৩ টাকা বেশি। এতে করে দেশ থেকে ডিজেল পাচার হচ্ছে বলে দাবি করছে বিপিসি। গত ৭ ফেব্রেুয়ারি জ্বালানি বিভাগে পাঠানো এক চিঠিতে বিপিসি দাবি করেছে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ায় তাদের লোকসান হচ্ছে। এজন্য সংস্থাটি ডিজেল, কেরোসিন ও ফার্নেস অয়েলের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ করেছে। তবে অকটেন ও পেট্রোলের দামের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। বিপিসি বলছে, তারা গত বছরের জুনে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে প্রতি ব্যারল ত্রুড অয়েল ৪৭ ডলারে কিনেছিল তা বেড়ে বর্তমানে ৭১ ডলার হয়েছে। বিপিসির পরিচালক (মার্কেটিং) মীর আলী রেজা বলেন, আমরা সরকারকে একটি ফর্মুলার কথা বলেছি যেভাবে ভারতে তেলের দাম নির্ধারণ হয়। এতে করে তেলের মূল্য আপনা আপনি সমন্বয় হতে পারে। তেলের মূল্য সমন্বয় নিয়ে এতে জটিলতা তৈরি হবে না।