রবিবার ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৯ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

এখনই ইংল্যান্ডে চোখ লেহম্যানের

এখনই ইংল্যান্ডে চোখ লেহম্যানের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ টানা তিন জয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই ঐতিহ্যের এ্যাশেজ ট্রফি পুনরুদ্ধার করেছে অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ জানিয়েছেন, ব্যবধানাটা শেষ পর্যন্ত ৫-০ করতে পারলে সেটি হবে দারুণ কিছু। ২০১৩-২০১৪ মৌসুমে যেভাবে ঘরের মাটিতে ইংলিশদের ‘হোয়াইটওয়াশের’ লজ্জায় ডুবিয়েছিলেন মাইকেল ক্লার্ক-মিচেল জনসনরা। তবে কোচ ড্যারেন লেহম্যানের দৃষ্টি আরও সামনে। ইংল্যান্ড সফরে গিয়ে ইংলিশদের বিপক্ষে এ্যাশেজ জয়ের মতো গর্বের আর কিছু হতে পারে না বলে মনে করেন সাবেক অসি ব্যাটসম্যান। ২০১৫ সালে ইংল্যান্ডে গিয়ে ৩-২এ সিরিজ হারের পর গোটা অস্ট্রেলিয়া কেঁপে উঠেছিল। ক্লার্কসহ অবসর নিয়েছিলেন চার-পাঁচজন তারকা ক্রিকেটার। এবার ট্রফি পুনরুদ্ধারের পর তাই আগামীবার ইংল্যান্ডে (২০১৯) গিয়ে প্রতিশোধ নেয়ার ছক কষতে শুরু করে দিয়েছেন নেপথ্যের সফল কারিগর লেহম্যান।

অস্ট্রেলিয়া কোচ বলেন, ‘টানা তিন জয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখে এ্যাশেজ পুনরুদ্ধারের কৃতিত্ব ছেলেদের। ওরা সত্যি ভাল ক্রিকেট খেলছে। তবে আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই। বাকি দুটি ম্যাচেও আমাদের স্পিরিট ধরে রাখতে হবে। আমাদের লক্ষ্য হবে ইংল্যান্ডের মাটিতে এ্যাশেজ জয়। আমি নিশ্চিত এই গ্রুপটি সমন্বিতভাবে সেটা করতে পারবে। তারা বয়সে যথেষ্ট তরুণ, এখনও বেশ কয়েক বছর একত্রে খেলতে পারবে এবং গত এক বছর আগে আমাদের জন্য এটাই ছিল গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। অবশ্য এ সময়ে বেশ কয়েকজন তরুণ খেলোয়াড়কে আমরা পরিবর্তন করেছি। সেটা দলের প্রয়োজনে। সেরা কম্বিনেশন তৈরির জন্য। মাঠে এখন তারই প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে।’ স্মিথের মতো এবার সিরিজে প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশের স্বপ্নে বিভোর লেহম্যানও, ‘তারা (ইংল্যান্ড) কিছু ভাল তরুণ খেলোয়াড় পেয়েছে। আমরা সঠিক সময়ে তাদের চাপে রাখতে পেরেছি এবং আশা করছি আগামী দুই ম্যাচেও সেটা অব্যাহত রাখতে পারব। তবে এ সকল খেলোয়াড়ের মধ্যে কেউ কেউ আগামী এ্যাশেজে (ইংল্যান্ডের মাটিতে) খেলবে। সুতরাং সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের পরিকল্পনার উন্নতি ঘটাতে হবে এবং আরও ভাল হতে হবে।’ তবে দুই বছর বাকি থাকলেও অস্ট্রেলিয়া এখনই লক্ষ্য নির্ধারণ করতে চায় ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য পরবর্তী এ্যাশেজ সিরিজ নিয়ে। যা অসিদের জন্য মোটেই সহজ নয়। কেননা তারা ইংল্যান্ডের মাটিতে সেই ২০০১ সালের পর আর এ্যাশেজ সিরিজ জিততে পারেনি। নিজ মাঠে আরেকটি এ্যাশেজ শিরোপা জিতলেও ইংল্যান্ডে গিয়ে সাফল্য কঠিন বলেই মনে করেন তিনি। তবে সফল এ কোচের বিশ্বাস অস্ট্রেলিয়ার মেধাবী তারুণ্যনির্ভর দলটি আরও ভাল অবস্থানে থাকবে। ইতোমধ্যেই সিরিজের ফয়সালা হয়ে যাওয়ায় মেলবোর্নে ২৬ ডিসেম্বর শুরু হতে যাওয়া ‘বক্সিং ডে টেস্ট (চতুর্থ)’ নিয়ে বাড়তি চাপ নেই অস্ট্রেলিয়ার। নির্ভার হয়ে নিজেদের সাবলীল খেলা উপহার দিতে পারবেন স্মিথ-ডেভিড ওয়ার্নাররা-মিচেল স্টার্করা। লেহম্যান কিছুটা এক্সাইটেড, ‘আমরা কিছু ব্র্যান্ড ক্রিকেট খেলব। তবে অবশ্যই আমাদের চাপ কম থাকবে। এমন অবস্থায় ছেলেরা কেমন খেলে সেটা দেখাটা হবে মজার বিষয়।’

শীর্ষ সংবাদ:
দাম কমানোর টার্গেট ॥ সংসদে বাজেট পেশ ৯ জুন         ৫৭ বছর পর ঢাকা থেকে ‘মিতালি এক্সপ্রেস’ যাবে ভারতে         রাজনীতির মাঠ গরম করতে চায় বিএনপি         মাঙ্কিপক্সে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে তরুণরা         দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হবে ॥ রিফাত         পাহাড়ে বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা দিন দিন বাড়ছে         ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি ঢাকায় আসছে ৮ জুন         আজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস ॥ নানা আয়োজন         উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় কমিউনিটি রেডিও শক্তিশালী মাধ্যম         অবৈধ ক্লিনিক বন্ধে দেশজুড়ে অভিযান         ইয়াবা ও মানব পাচারে কমিশন পায় রোহিঙ্গা নারীরা         চলচ্চিত্র ব্যবসায় আশার আলো মিনি সিনেপ্লেক্স         সিলেটে ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগ বাড়ছে         বিএনপি খোমেনি স্টাইলে বিপ্লব করার দুঃস্বপ্ন দেখছে ॥ কাদের         শান্তিরক্ষীগণ পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন : প্রধানমন্ত্রী         প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সময়োপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির         বাংলাদেশ আজ শান্তি ও সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত : রাষ্ট্রপতি         ভারতের গুয়াহাটিতে তৃতীয় নদী সম্মেলন শুরু         রাজধানীকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বাগেরহাটে ঝড়ে গাছ ভেঙ্গে পড়ল ইউএনওর গাড়ির উপর