রবিবার ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ওটিসিতে ক্রেতার অভাব ॥ শেয়ার বিক্রির আদেশ বাড়ছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ নিয়মিত বাজারের বাইরে অভার দ্য কাউন্টার বা ওটিসি মার্কেটে ৬৬টি কোম্পানি নিবন্ধিত রয়েছে পুঁজিবাজারে। প্রতিদিনই এ মার্কেটে কিছু বিনিয়োগকারীর আগাগোনা দেখা যায়। তবে এদের বেশিরভাগ বিক্রেতা। কালেভদ্রে ক্রেতার দেখা মিললেও তারা শেয়ার কিনতে চান নামমাত্র দরে। ফলে মার্কেটটিতে সব সময়ই ক্রেতার আকাল লেগেই থাকে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, এ মার্কেটে বছরের সব সময়ই ৪ থেকে ৫ লাখ শেয়ারের বিক্রির আদেশ থাকে। ক্রেতা না থাকায় ক্রমেই ভারি হচ্ছে বিক্রির আদেশ। শেষ হচ্ছে না ভোগান্তি।

সম্প্রতি ডিএসই থেকে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ওটিসিতে থাকা ৩৬ কোম্পানির শেয়ার বিক্রির অপেক্ষায় রয়েছে। তিন ডজন কোম্পানির মোট শেয়ারের সংখ্যা ৫ লাখ ২৮ হাজার ৬০টি।

নির্ভরশীল একটি সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি ওটিসিতে সেল অর্ডারের পরিমাণ আগের চেয়ে বেড়েছে। এর কারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে খবর রয়েছে এ মার্কেট থেকে কিছু কোম্পানি মূল মার্কেটে ফিরবে। এ খবর কাজে লাগিয়ে ভুক্তভোগীরা কম দরে হলেও শেয়ার বিক্রি করে মার্কেট থেকে নিষ্কৃতি পেতে চাচ্ছেন। তবে বিষয়টি আমলে নিচ্ছেন না অন্য বিনিয়োগকারীরা। তাদের যুক্তি এ মার্কেটের উন্নয়ন হবে অনেক দিন আগে থেকেই এমন খবর শোনা যাচ্ছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য কোন অগ্রগতি চোখে পড়েনি। ফলে তারা এ মার্কেটে পুঁজি আটকে রাখতে চান না। অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে আলাপ করলে ডিএসইর সাবেক প্রেসিডেন্ট ও বর্তমান পরিচালক রকিবুর রহমান বলেন, আমি বহুবার বলেছি যে এ মার্কেটের শেয়ার নিয়ে ভোগান্তিতে রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। কারণ, এখানে তাদের অনেক পুঁজি আটকে রয়েছে। তিনি বলেন, কিভাবে এসব কোম্পানির শেয়ারের প্রতি বিনিযোগকারীদের আগ্রহ সৃষ্টি করা যায় সেটা নিয়ে আমরা ভাবছি। আশা করছি খুব শীঘ্র এর একটি সহজ উপায় খুঁজে পাব। প্রাপ্ত তথ্যমতে, এ মার্কেটে এখন সবচেয়ে বেশি সেল অর্ডার জমে রয়েছে এপেক্স উইভিংয়ের। এ প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগকারীদের ১ লাখ ৬০ হাজার শেয়ার বিক্রির অপেক্ষায় রয়েছে। পরে অবস্থানে রয়েছে মুন্ন ফ্রেবিক্সের। এ প্রতিষ্ঠানের বিক্রির আদেশে জমে থাকা শেয়ার সংখ্যা প্রায় ৯৫ হাজার।

এছাড়া মর্ডান সিমেন্টের সেল অর্ডার রয়েছে ৬০ হাজার শেয়ারের। একইভাবে ওয়ান্ডারল্যান্ড টয়েসের প্রায় ২৪ হাজার, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের ৩ হাজার ২০০, বাংলাদেশ জিপারের প্রায় ৭ হাজার ও ঢাকা ফিসারিজের সাড়ে তিন হাজারের বেশি শেয়ার বিক্রির অপেক্ষায় রয়েছে। এসব শেয়ারের বেশিরভাগেরই কাঙ্খিত দরে ক্রেতা খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

ওটিসি মার্কেটে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর সীমাহীন অনিয়মের মধ্যে রয়েছেÑ ঠিকমতো আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ না করা, বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) না করা, পূর্ব নির্ধারিত ফেস ভ্যালু অভিন্ন (১০ টাকা) না করা, বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ না দেয়া এবং কোম্পানির ঠিকানা এবং কর্তৃপক্ষের উধাও হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। এসব কারণে এ মার্কেটের কোম্পানিগুলোর শেয়ার লেনদেন হয় না। ২০০৯ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ওটিসি চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত লেনদেন হয়নি এমন কোম্পানির সংখ্যা এখনও ১২টি।

শীর্ষ সংবাদ:
হাজি সেলিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ আদালতের         সরকার পরিবর্তনের একমাত্র উপায় নির্বাচন ॥ কাদের         পরিবেশ রক্ষায় যত্রতত্র অবকাঠামো করা যাবে না ॥ প্রধানমন্ত্রী         সুনামগঞ্জে নদীর পানি কমলেও হাওড়ের জনপদে দুর্ভোগ বেড়েছে         পতনে নাকাল শেয়ারবাজার, দিশেহারা বিনিয়োগকারীরা         ‘বিশ্বজুড়ে আরও মাঙ্কিপক্স শনাক্তের আশঙ্কা’         সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা বেতন চান সরকারি কর্মচারীরা         হাতিয়ায় ত্রান পেল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তরা         নরসিংদীর বেলাবতে মা, ছেলে ও মেয়ের গলাকাটা লাশ উদ্ধার         খুলনায় বিস্ফোরক মামলায় ২ জঙ্গীর ২০ বছরের কারাদণ্ড         অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন         বাংলাদেশিরা মালদ্বীপে বৈধ হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন         চার মাসে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ৬ লাখ ৭৭ হাজার         বাজারে গ্যালে দাম হুইন্না কইলজাডা মোচড় মারে         কুয়াকাটায় ভেসে আসা ডলফিনের মৃত্যু         ফটিকছড়ির বাগানে জাপানের লাখ টাকার মিয়াজাকি আম         ভারতের জাম্মু-কাশ্মিরে সুড়ঙ্গ ধসে ১০ জন নিহত         এখন আমাদের নতুন করে চিন্তা করতে হবে ॥ মুমিনুল         দি মারিয়া একটানা ৭ বছর খেলে পিএসজি ছাড়লেন