ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

ছেলে হত্যার বিচার দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন মা

প্রকাশিত: ০৭:১৭, ২৬ জানুয়ারি ২০১৬

ছেলে হত্যার বিচার দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন মা

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটে ছেলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে পুলিশ প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ফকিরহাট উপজেলার কামটা গ্রামে রহিমা বেগম নামের অসহায় এক মা। পাচ্ছে না কোন প্রতিকার। সোমবার দুপুরে বাগেরহাট প্রেসক্লাবে আহূত এক সংবাদ সম্মেলনে এমনই অভিযোগ করেন ছেলেহারা এই মা। ছেলেহারা মা রহিমা বেগম জানান, স্বামী ইশারাত শেখ ও ছেলে জহির শেখ পচাকে নিয়ে ছিল তাদের সুখের সংসার। জমিসক্রান্ত বিরোধ নিয়ে একই এলাকার ইয়ার আলী শেখ, নাজমিন বেগম, মনি খান, শাহীন খান ও মনিরুল মোল্লার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছিল বিরোধ। এ বিরোধের জের ধরে প্রভাবশালী ওই মহল একাধিকবার তাকে ও তার স্বামীকে জীবননাশের হুমকি দিয়ে আসছিল। ২০১৫ সালের ৩ মার্চ আমার ছেলে জহির শেখ পচা বাড়ি থেকে মৎস্য ঘেরের উদ্দেশ্যে বের হয়। দুইদিন পর ওই মৎস্য ঘেরে তার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় সে ও তার স্বামী ছেলের শোকে মুহ্যমান থাকায় সুযোগ নিয়ে ওই প্রভাবশালী চক্রটি সুকৌশলে জহির শেখ পচার লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই কবর দিয়ে দেয়। পরবর্তীতে তারা জানতে পারে লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই কবর দিয়ে দেয়া চক্রটিই পরিকল্পিতভাবে তার ছেলেকে হত্যা করেছে। এ খবর জানতে পেরে পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে অনীহা প্রকাশ করে। সংবাদ সম্মেলনে জানান হয়, পরে তারা বাগেরহাট আদালতে মামলা দায়ের করলে ফকিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেই মামলার এজাহার হিসেবে রেকর্ড করতে অসহায় এই পরিবারটির কাছ থেকে দশ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে। বর্তমানে ওই মামলার আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। পুলিশ মামলার সাক্ষীদের উল্টো হয়রানি করছে। আর পুলিশের সহযোগিতা পেয়ে আসামিরা এখন ছেলেহারা মা-বাবাকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। এ বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে ফকিরহাট থানা ও জেলা পুলিশ কর্মকর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন প্রতিকার মিলছে না বলে দাবি করেছেন রহিমা বেগম।