শুক্রবার ৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পানিশূন্য হচ্ছে ব্যাঙ্গালুরু

পানিশূন্য হচ্ছে ব্যাঙ্গালুরু

২০২৫ সালের মধ্যেই কার্যত জনমানবহীন হয়ে পড়তে পারে ভারতের সিলিকন ভ্যালি নামে পরিচিত শহর ব্যাঙ্গালুরু। বসতি গড়ে তোলার অনুপযুক্ত হয়ে যাবে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কর্নাটকের রাজধানী। এমনই আশঙ্কা কর্নাটক সরকারের। রাজ্যের সাবেক অতিরিক্ত মুখ্যসচিব ভি বালসুব্রাহ্মণ্যমের পরিচালিত একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে, যে হারে ব্যাঙ্গালুরুর পানির স্তর নিচে নামছে, তাতে ২০২৫ সালের মধ্যে পুরো শহরের বাসিন্দাদের খালি করে দিতে হতে পারে।

সম্প্রতি ব্যাঙ্গালুরুর বেলান্দুর জংশনের কাছে একটি আবাসিক এলাকায় পানির সরবরাহ অব্যাহত রাখতে একটি নলকূপ খোঁড়া হয়। পানির দেখা মিলেছে মাটির প্রায় ১ হাজার ৫০ ফুট নিচে। শুধু এই একটি আবাসিক এলাকাই নয়, ব্যাঙ্গালুরুতে সম্প্রতি যতগুলো আবাসিক এলাকা তৈরি হয়েছে প্রায় সবটিরই একই অবস্থা। পানির জন্য ভরসা করতে হয় যন্ত্রচালিত নলকূপের ওপর। সারজাপুর রোড, বানেরঘাটা রোড, হোয়াইটফিল্ড, ইয়েলাহানকা, মারাঠাহারির সব আবাসনেই পানির অভাব প্রকট হচ্ছে দিন দিন। শুধু শহরাঞ্চলেই যে এমন হচ্ছে তা নয়। বেলান্দুর শহরাঞ্চল থেকে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার দূরে রায়চুরের গদর গ্রামেও এক দশা। ১৯৮০ সালে এ গ্রামেই মাটির মাত্র ৩০ ফুট নিচে জলস্তরের দেখা মিলত। এখন ১ হাজার ২০ ফুট খুঁড়লে তবে পানি পাওয়া যাচ্ছে। পানির অভাবে আগামী পাঁচ বছরেও এলাকার সব ক্ষেত শুকিয়ে যাবে বলে আশঙ্কা স্থানীয় কৃষকদের। রাজ্য সরকারের এক সিনিয়র পানি বিশেষজ্ঞ বলেছেন, কর্নাটকে বছরে গড় বৃষ্টিপাত হয় ১২৪৮ মিলিমিটার। কিন্তু গত কয়েক বছরে রাজ্যজুড়ে প্রায় ২০ লাখ নলকূপ খোঁড়া হয়েছে। যার ফলে মাটি থেকে যে পরিমাণ পানি তুলে নেয়া হচ্ছে, তাতে বৃষ্টির পানি তার অভাব মেটাতে পারছে না। আর তাই মাটির প্রায় ১০০০ ফুট নিচে খুঁড়লেও এখন আর পানির দেখা মিলছে না। এছাড়া অস্বাভাবিক হারে জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে বসতির জন্য আবাসন তৈরি করতে কেটে ফেলা হচ্ছে গাছ, ভরাট করা হচ্ছে পুকুর। আরও নেমে যাচ্ছে জলস্তর। তার ওপর কর্নাটকের ৩০টি জেলার মধ্যে প্রায় ১২টি জেলার মাটির নিচের পানি অত্যাধিক মাত্রায় দূষিত। কারণ ওই সব এলাকায় প্রচুর আবাসন গড়ে উঠছে। তাদের নির্মাণ কাজের সময় নিঃসৃত ক্ষতিকর রাসায়নিক নদীর পানির সঙ্গে মিশে পানি দূষিত হচ্ছে। তবে আশার কথা হলো ব্যাঙ্গালুরুবাসীর তৃষ্ণা মেটাতে রাজ্য সরকার ‘ইয়েত্তিনাহোল প্রজেক্ট’ শুরু করতে চলেছে। ওই প্রকল্পের আওতায় যেখানে মাটির অল্প নিচেই জলস্তর রয়েছে সেখান থেকে পাইপের সাহায্যে অপেক্ষাকৃত শুষ্ক এলাকায় পানি পাঠানোর কথা ভাবছে রাজ্য সরকার। কিন্তু নানা প্রযুক্তিগত সমস্যা ও স্থানীয়দের বিক্ষোভের ফলে কাজ এখনও শুরু করা যায়নি। এ প্রকল্প শুরু না করা গেলে আগামী ১০ বছরের মধ্যে জনমানবহীন হয়ে পড়বে ব্যাঙ্গালুরু- আশঙ্কা রাজ্য সরকারের।

-টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে জাকিয়া সুলতানা

শীর্ষ সংবাদ:
গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য দুর্নীতি আড়ালের ব্যর্থ চেষ্টা ॥ ন্যাপ         করোনা ভাইরাস ॥ বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ছাড়াল সাড়ে ৯ লাখ, আক্রান্ত ৩ কোটির বেশি         অ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার অবনতি, আইসিউতে স্থানান্তর         করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় কারিগরি কমিটির ৭ পরামর্শ         ভিডিও কলে কথা বলে কিশোরীর ইচ্ছা পূরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী         এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে ২৪ সেপ্টেম্বর         ফিফা র্যাংকিংয়ে আগের অবস্থানেই আছে বাংলাদেশ, একধাপ পেছালো ভারত         স্বেচ্ছায় সরে দাঁড়ালেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী         শিক্ষায় বিভক্তির ফল সামাজিক বিভক্তি ॥ রাশেদ খান মেনন         বনানীতে আবাসিক ফ্লাটে অগ্নিকাণ্ড         ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান ছাড়া মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আসবে না ॥ রাশিয়া         হিগুয়াইনকে বিদায় জানাল জুভেন্টাস         সৌদিতে ড্রোন হামলা চালাল ইয়েমেন         ধর্ষককে নপুংসক করে দেওয়ার আইন পাস নাইজেরিয়ায়         বিস্ফোরণ গ্যাস লিকেজেই ॥ নারায়ণগঞ্জে মসজিদের ঘটনায় তদন্ত রিপোর্ট         নতুন সংসদ ভবন তৈরি করা হচ্ছে ভারতে         দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়ার উপায় বের করুন         পেঁয়াজ আমদানি প্রক্রিয়া সহজ হচ্ছে         মেয়াদ না বাড়িয়ে নির্দিষ্ট সময়ে সব প্রকল্প শেষ করার নির্দেশ         করোনা মোকাবেলায় আরও নজরদারির তাগিদ