৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

ছুটির দিনেও নিত্যপণ্যের বাজার খোলা থাকবে

প্রকাশিত : ২৪ মার্চ ২০২০, ০৯:৩৪ পি. এম.
ছুটির দিনেও নিত্যপণ্যের বাজার খোলা থাকবে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ভোগ্যপণ্যের সরবরাহ নিশ্চিতে সরকারী ছুটির দিনেও আগের মতোই নিত্যপণ্যের বাজার খোলা থাকবে। ভোক্তারা বাজার থেকে স্বাভাবিকভাবে প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী কেনাকাটা করতে পারবেন। তাই অহেতুক আতঙ্কিত হয়ে ভোক্তাদের পণ্যসামগ্রী বেশি করে কেনা ও তা মজুদ না করার পরামশ দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

এছাড়া যেকোন পণ্যবাহী ট্রাক, লরি ও কাভার্ডভ্যানের চলাচল স্বাভাবিক রাখতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সারাদেশ থেকে শাক-সবজি, চাল ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ট্রাক ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যেতে পারবে।

এছাড়া বন্দরে ভোগ্যপণ্যবাহী জাহাজ দ্রুত খালাস করে তা দ্রুত দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর জন্য বন্দর ও নৌ-কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে। জরুরী প্রয়োজনে আর্থিক লেনদেন করার জন্য সরকারী ছুটির মধ্যেও ব্যাংক প্রতিদিন অর্ধবেলা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মেডিকেলপণ্য ও জরুরী ওষুধ সেবা নিশ্চিত করতে ঢাকাসহ দেশের সব ফার্মেসী খোলা রাখা হবে। ওষুধের দাম বেশি না রাখার জন্যও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সুপারশপগুলো খোলা রাখা হবে। এখান থেকে প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী কিনতে পারবেন ভোক্তারা। মুদিপণ্যের দোকান চালু থাকবে আগের মতোই।

মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানায়, করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য প্রাদুর্ভাব বিবেচনা করে উদ্ভূত বাজার ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করা হয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ সচিবালয়ের ৩ নম্বর ভবনের ২৩ নং কক্ষ এ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের টেলিফোন নম্বর-০২-৯৫৪৫৮৫৩।

সংশ্লিষ্ট যেকোন প্রয়োজনে এ টেলিফোন নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে। প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে রাত ১২ পর্যন্ত শুক্র-শনিবারসহ ২৯ মার্চ পর্যন্ত এটি খোলা থাকবে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ পালাক্রমে এ নিয়ন্ত্রণ কক্ষে দায়িত্ব পালন করবেন। এই কক্ষ থেকে আমদানি-রফতানির বিষয়ে তথ্য সরবরাহ ও খোঁজখবর রাখা হবে।

এছাড়া এ রোগের সম্ভাব্য প্রতিরোধ বিষয়ক সচেতনতা এবং এ মন্ত্রণালয়ের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী স্বাস্থ্য সেবা চাইলে চাহিদা মোতাবেক প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করা হবে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর এবং ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সকল প্রকার ছুটি বাতিল করা হয়েছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর বাজার অভিযান পরিচালনাসহ স্বাভাবিক দাফতরিক কাজ পরিচালনা করবে। জরুরি সেবা প্রদানের জন্য এখানে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মোবাইল নম্বরগুলো হচ্ছে- ঢাকা বিভাগীয় অফিস- উপপরিচালক মোবাবইল নম্বর ০১৮১৯৪০৪৭৩০,উপ-পরিচালক (প্রশাসন) মোবাবইল নম্বর ০১৭১১২৭৩৮০২, সহকারী পরিচালক ঢাকা জেলা- মোবাইল নম্বর ০১৭১৪৪৬১১৮২ এবং ভোক্তা বাতায়ন নম্বর ১৬১২১। এছাড়া আরও জানানো হয়, টিসিবি মাঠ পর্যায়ে পণ্য বিক্রয়ের কার্যক্রম পূর্বের ন্যায় চলমান থাকবে। টিসিবির পণ্য বিক্রয় সংক্রান্ত এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে যোগাযোগ অব্যাহত রাখার জর‌্য একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের টেলিফোন নম্বর ০২- ৫৫০১৩৪৪৭। এদিকে, করোনা আতঙ্কের মধ্যে ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ে সাধারণ ভোক্তাদের উদ্বেগ রয়েছে। মঙ্গলবারও বাজার থেকে চাহিদার অতিরিক্ত পণ্যসামগ্রী কিনে নিয়েছেন ভোক্তারা। এতে করে চালম, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি, আদা, রসুন ও পেঁয়াজসহ বিভিন্ন পণ্যসামগ্রীর দাম বেড়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন জনকণ্ঠকে বলেন, ভোগ্যপণ্যের কোন দোকান পাট ও বাজার বন্ধ করা হবে না। এছাড়া মাছ-মাংস ও শাক-সবজির পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে সরকারের সব ধরনের উদ্যোগ রয়েছে। ভোক্তাদের আতঙ্কিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। তারা বাজারে গিয়ে আগের মতো পণ্য সামগ্রী কেনাকাটা করতে পারবেন। এছাড়া টিসিবিও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সব জায়গায় তাদের বিক্রি কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

প্রকাশিত : ২৪ মার্চ ২০২০, ০৯:৩৪ পি. এম.

২৪/০৩/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

ব্যবসা বানিজ্য



শীর্ষ সংবাদ: