৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

রোহিঙ্গাদের জন্য ভারতের মানবিক সহায়তা

প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৬:৫৭ পি. এম.
রোহিঙ্গাদের জন্য ভারতের মানবিক সহায়তা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভারতীয় হাই কমিশন মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ সহায়তার ৫ম চালানে প্যাডেলযুক্ত এক হাজার সেলাই মেশিন, ৩২ টি অফিস তাঁবু, ৩২ টি উদ্ধার সরঞ্জাম, ৯৯টি ফ্যামিলি তাঁবু বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়কে হস্তান্তর করেছে।

ত্রাণ সহায়তার এই চালানটি গতবছর অক্টোবরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় দেয়া প্রতিশ্রুতির অংশ। মিয়াানমার থেকে বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের কক্সবাজারের অস্থায়ী শিবিরে আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের মানবিক প্রচেষ্টায় সহায়তা করতেই এই ত্রাণ সামগ্রীগুলো পাঠানো হয়েছে।

এই ত্রাণসামগ্রী মায়াানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মহিলাদের দক্ষতা বিকাশে এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের শিবিরগুলিতে অপ্রত্যাশিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সহায়তা করবে।

পঞ্চম চালানটি ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া একটি প্রক্রিয়ার অংশ, যখন ভারত সরকার মানবিক সহায়তার প্রথম চালান সরবরাহ করেছিল। ৯৮১ মেট্রিক টনের এই ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, চিনি, লবণ, রান্নার তেল, চা, নুডলস, বিস্কুট, মশারী ইত্যাদি। ২০১৮ সালের মে মাসে, ভারত ৩৭৩ মেট্রিক টন ত্রাণসামগ্রী সরবরাহ করে।

যার মধ্যে ছিল ১০৪ মেট্রিক টন গুড়ো দুধ, ১০২ মেট্রিক টন শুঁটকি, ৬১ মেট্রিক টন শিশুখাদ্য এবং বর্ষা মৌসুমে ব্যবহারের জন্য ৫০ হাজার রেইনকোট ও ৫০ হাজার জোড়া গামবুট। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে তৃতীয় চালানটি সরবরাহ করা হয়, যেখানে ভারত ১.১ মিলিয়ন লিটার সুপার কেরোসিন তেল এবং ২০ হাজার কেরোসিন স্টোভ হস্তান্তর করেছিল এবং ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে পাঠানো ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে ছিল ২ লাখ ২৫ হাজার কম্বল, ২ লাখ উলের সোয়েটার এবং ৫০০টি পরিবেশবান্ধব সৌর সড়কবাতি।

প্রতিবেশী হিসেবে ভারত যে কোন বাধা মোকাবেলায় বাংলাদেশকে সহায়তা করতে সদা প্রস্তুত। মিয়াানমার থেকে বাস্তুচ্যুত মানুষদের অস্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের উদারতা ও মানবিক প্রচেষ্টার প্রশংসা করে ভারত। এই ত্রাণসামগ্রীগুলো বাংলাদেশের জনগণের মানবিক প্রচেষ্টায় সহায়তা করার দীর্ঘমেয়াদী প্রতিশ্রুতিকেই তুলে ধরে।

প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৬:৫৭ পি. এম.

২৭/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: