২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

আততায়ীদের হাতে খুন হয়েছেন যে সব মহিলা রাজনীতিকরা


আততায়ীদের হাতে খুন হয়েছেন যে সব মহিলা রাজনীতিকরা

অনলাইন ডেস্ক ॥ ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রিটেনে টালমাটাল অবস্থা। তারই মধ্যে গত ১৬ জুন, আততায়ীর হাতে খুন হয়ে গেলেন ব্রিটেনের লেবার পার্টির প্রথম সারির নেত্রী জো কক্স। তিনি পার্লামেন্টের সদস্যও ছিলেন। দক্ষ রাজনীতিবিদ জো কক্সের মৃত্যুতে, রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন তুলছেন, মহিলা রাজনীতিবিদদের এইভাবে কেনই বা বারবার খুন হতে হচ্ছে। এরআগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দেখা গেছে, প্রকাশ্য রাস্তায় গুলি করে কিংবা সুইসাইড বোম ব্লাস্টে হত্যা করা হয়েছে মহিলা রাজনীতিবিদদের। এক নজরে দেখা নেওয়া যাক, কোন কোন মহিলা রাজনীতিবিদরা এইভাবে অকালে প্রাণ হারিয়েছেন।

জো কক্স (ব্রিটেন)- লেবার পার্টির নেত্রী জো কক্সকে ব্রিস্টল লাইব্রেরির বাইরে প্রকাশ্যে হত্যা করা হয়। আততায়ীরা খুব কাছে প্রথমে গুলি করে তারপর, ছুরি দিয়ে একাধিক আঘাত করে কক্সকে।

হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও বাঁচানো যায়নি ৪২ বছর বয়সী জো কক্সকে।

আনা লিন্ধ (সুইডেন)- সুইডেনের বিদেশ মন্ত্রী আনা লিন্ধকেও প্রকাশ্যে খুন করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছিল ২০০৩ সালে। স্টকহম ডিপার্টমেন্ট স্টোরে শপিং করার সময় এক দুষ্কৃতির হাতে খুন হন তিনি।

পরে গ্রেফতার করে সেই দুষ্কৃতীকে যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হয়।

বেনজির ভুট্টো (পাকিস্তান)- ২০০৭ সালে রাওয়ালপিন্ডিতে এক সমাবেশে আত্মঘাতী হামলায় নিহত হন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো।

নির্বাসন কাটিয়ে ২০০৮ সালে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন ভুট্টো। এর আগে দু’বার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।

আগাথে উইলিঙ্গিমানা (রাওয়ান্ডা)- তিনি ম্যাডাম আগাথে নামে বেশি পরিচিত ছিলেন। রাওয়ান্ডার প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন আগাথে উইলিঙ্গিয়ামানা।

১৯৯৪ সালে ৬ এপ্রিল রাওয়ান্ডার প্রেসিডেন্টের বিমান উড়িয়ে দেওয়ার পরের দিনই আগাথে উইলিঙ্গিয়ামানা ও তাঁর স্বামীকে নিজের বাসভবনে গুলি করে হত্যা করে সে দেশের সেনারা।

ইন্দিরা গাঁধী (ভারত)- ১৯৮৪ সালে ভারতের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গাঁধী নিহত হন নিজের বাসভবনে।

অ্যাকিউলা আল-হাশিমি (ইরাক)- ইরাকের মহিলা রাজনীতিবিদ অ্যাকিউলা আল-হাশিমি ছিল সাদ্দাম হুসেনের খাস লোক। ২০০৩ সালে বাগদাদে নিজের বাসভবনে অ্যাকিউলাকে হত্যা করে ছয় দুষ্কৃতী।

হানিফা সফি (আফগানিস্তান)- আফগান রাজনীতিবিদ হানিফা সফিকে তাঁর গাড়ি-সহ বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়া হয়। তিনি মহিলা মানবধিকার সংগঠনের প্রথম সারির উকিলও ছিলেন।

ইসাবেল কারাস্কো (স্পেন)- স্পেনের উত্তর লিওন প্রভিন্সের গভর্নর এবং পপুলার পার্টির নেত্রী ইসাবেল কারাস্কোকে খুন করেন ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা ও তাঁর দুই মেয়ে। ২০১৪ সালে ঘটনাটি ঘটেছিল।

সাদো আলি ওয়ারসেম (সোমালিয়া)- সাদো আলি ওয়ারসেম একধারে গায়িকা ছিলেন, আবার সোমালিয়ার ফেডারেল পার্লামেন্টের সদস্য ছিলেন। ২০১৪ সালে ওয়ারসেমকে হত্যা করে জঙ্গিরা।

জারা শাহিদ হুসেন (পাকিস্তান)- ইমরান খানের তেহেরিক- ই-ইনসাফ পার্টির অন্যতম সদস্য জারা শাহিদকে ২০১৩ সালে করাচিতে নিজের বাড়িতে প্রকাশ্যে খুন করা হয়।

জেসিলা মোটা (মেক্সিকো)- চলতি বছর জানুয়ারিতে টেমিক্সকোর মেক্সিকো সিটির মেয়র জেসিলা মোটাকে তাঁর নিজের বাসভবনে কিছু দুষ্কৃতি খুন করে।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: