ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

ফুটবলে একঝাঁক তারার বিদায়

আয়ান আব্রাজ

প্রকাশিত: ০০:৩০, ১০ জুলাই ২০২৪

ফুটবলে একঝাঁক তারার বিদায়

জার্মান অধ্যায় শেষ হয়েছে দুই কিংবদন্তি ফুটবলার টনি ক্রুস ও টমাস মুলারের (ডানে)

বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকার নাম ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। টানা দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক ও ক্লাব ফুটবলের মাঠ দাপিয়ে বেড়িয়েছেন তিনি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, রিয়াল মাদ্রিদ এবং জুভেন্টাসের মতো ইউরোপের শীর্ষ সারির জায়ান্টের জার্সিতে প্রতিনিধিত্ব করা সিআর সেভেন ক্লাব ফুটবলে সম্ভাব্য সব শিরোপাই উঁচিয়ে ধরেছেন। পর্তুগালের জার্সিতে পেয়েছেন ইউরো জয়ের স্বাদও। ২০১৬ সালে ফাইনালে ফ্রান্সকে হারিয়ে স্বপ্নের শিরোপায় চুমো একেছিলেন তিনি।

ইউরোপিয়ান ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে এবারও বড় স্বপ্ন দেখেছিলেন ৩৯ বছর বয়সী ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। কিন্তু বিধিবাম। এবারের ইউরো-অধ্যায়টা চরম হতাশায় শেষ করেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্সের কাছে টাইব্রেকারে হেরে বিদায় নিয়েছে তার দল। ইউরোর এবারের আসরে তেমন কোনো ভূমিকাই রাখতে পারেননি সিআর সেভেন।
ইউরো চলাকালীন সময়েই ঘোষণা দিয়ে দেন যে এটাই রোনাল্ডোর শেষ আসর। টুর্নামেন্টের শেষ আট থেকে পর্তুগালের বিদায়ের পর সিআর সেভেনের ক্যারিয়ার নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাকে এখনই ‘বিদায়’ বলছেন অনেকে। তাদের মতে শুধু ইউরো নয়, বরং দেশের জার্সিতেও হয়তো শেষ ম্যাচটা খেলে ফেলেছেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী। পর্তুগালের মহাতারকার বিদায়টা কী তাহলে সত্য? নিশ্চিত করার জন্য এ বিষয়ে সেই ম্যাচের শেষেই প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া হয়েছিল কোচ রবার্তো মার্টিনেজকে। তবে রোনাল্ডোর বিষয়ে রহস্যই রেখে দিলেন তিনি।

পর্তুগাল কোচ সাফ জানিয়ে দেন যে, ‘ম্যাচ শেষ হওয়ার পরপরই এটা নিয়ে কথা বলাটা একটু আগেভাগেই হয়ে যায়। তবে ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।’ শুক্রবার পর্তুগালের হয়ে ২১২তম ম্যাচ খেলেছেন রোনাল্ডো। জাতীয় দলের হয়ে তার ১৩০ গোল আন্তর্জাতিক ফুটবলে এখনো সর্বোচ্চ। দুইয়ে থাকা লিওনেল মেসিও অনেক দূরে! তার গোল ১০৮টি। কিন্তু চলতি ইউরোয় রোনাল্ডো সেই সোনালি দিনগুলোর মতো কোনো ঝলকই দেখাতে পারেননি। পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে খেললেও শুটআউট ছাড়া কোনো গোলই পাননি তিনি।

পুরো ক্যারিয়ারে এটাই তার প্রথম বড় আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট যেখানে কোনো গোলের দেখা পাননি ইউরোতে রেকর্ড সর্বোচ্চ গোলের মালিক! স্বাভাবিকভাবেই তাতে হতাশ হয়েছেন তার ভক্ত-অনুরাগীরা। এমনকি খোদ রোনাল্ডোও মেনে নিতে পারছেন না এমন পারফর্মেন্স। ইউরোর পর তাই তো সিআর সেভেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সিআর সেভেন লিখেছেন, ‘আমরা আরও বেশি চেয়েছিলাম। আমাদের আরও বেশি প্রাপ্য ছিল। আমাদের নিজেদের জন্য, আমাদের প্রত্যেকের জন্য, পর্তুগালের জন্য।’

তবে সফলতা ও ব্যর্থতায় পাশে থাকার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন, ‘তোমরা আমাদের যা কিছু দিয়েছ এবং আমরা যা অর্জন করেছি, সবকিছুর জন্য কৃতজ্ঞ।’
রোনাল্ডোর মতো ক্যারিয়ারের শেষ ইউরো খেলে ফেলেছেন পেপেও। এবারের আসর খেলতে নেমেই সর্বোচ্চ বয়সী হিসেবে রেকর্ড গড়েন তিনি। কিন্তু শেষটা রাঙাতে পারলেন না ৪১ বছর বয়সী এই সেন্টার ব্যাক। বরং অশ্রুসিক্ত বিদায় নিলেন পেপে।

পেনাল্টি শুটআউটের শেষ বাঁশি বাজার পরই রোনাল্ডোর কাছে ছুটে যান পেপে। দলের হারে চোখে জল নিয়ে দীর্ঘদিনের প্রিয় সতীর্থের কাঁধে মাথা দিয়ে কাঁদতে থাকেন তিনি। সেই ম্যাচের পর রোনাল্ডোর কাঁধে মাথা রেখে কান্না নিয়ে পেপে বলেন, ‘রোনাল্ডো আমাকে কী বলেছে সেটা আমি বলব না। কিন্তু আমরা অনেক ধাক্কা খেয়েছি। আমরা জিততে না পেরে হতাশ। এই বড় টুর্নামেন্টে ব্যর্থ হতে পারাটা কষ্টের। তবে রোনাল্ডোর কাছ থেকে আলিঙ্গন পাওয়াটা অনেক বড় ব্যাপার। আমরা ভাইয়ের মতো।’

এদিকে, জার্মান তারকা টনি ক্রুসের ক্যারিয়ারও শেষ হলো পরাজয়ে। কোয়ার্টার ফাইনালে স্পেনের কাছে ২-১ গোলে হেরে বিদায় নেয় স্বাগতিক জার্মানি। তাতেই আন্তর্জাতিক ফুটবলের সমাপ্তি ঘটে ক্রুসের। চলতি বছরের মে মাসেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, এবারের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ দিয়েই ক্যারিয়ারের ইতি টানবেন। ক্লাব ক্যারিয়ারের শেষটা স্বপ্নের মতোই হয়েছিল টনি ক্রুসের। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা জিতেই রিয়াল মাদ্রিদকে বিদায় বলেন তিনি। কিন্তু জাতীয় দলের জার্সিতে হতাশায় বিদায় নিলেন আধুনিক ফুটবলের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার।  
আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে আগেও অবশ্য একবার অবসর নিয়েছিলেন ক্রুস। কিন্তু দীর্ঘ কয়েক বছরের ব্যর্থ পথচলার পর পালাবদলের মধ্য দিয়ে যাওয়া দলের প্রয়োজনের পাশাপাশি কোচের অনুরোধে অবসর ভেঙে ফিরেছিলেন মাঠে। লক্ষ্য ছিল এবারের ইউরো। কেননা, ক্যারিয়ারে অনেক ট্রফি জিতলেও, ইউরো জয়ের স্বাদ কখনো পাননি তিনি। আসরের শুরুতে দারুণ পারফর্মেন্সে আশা জাগালেও শেষটা বেদনামাখা।

স্পেনের বিপক্ষে ক্যারিয়ারে শেষ ম্যাচ খেলার দুই দিন পর ইনস্টাগ্রামে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে নতুন জীবনে পা রাখলেন টনি ক্রুস। ৩৪ বছর বয়সী এই জার্মান কিংবদন্তি লিখেন, ‘তো, এই পর্যন্তই। তবে বিরতি নেওয়ার এবং গত ১৭ বছরে কী হয়েছে তা অনুধাবন করার আগে, আমাকে আমার মতো করে গ্রহণ করার জন্য আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানানোর এই সুযোগ হারাতে চাই না।’
বিশ্ব ফুটবলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সফল দল জার্মানি। সর্বশেষ ২০১৪ সালে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইউরোপের পাওয়ার হাউজ খ্যাত দলটি। আর সেই বিশ্বকাপ জয়ী দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য এবং ইতিহাসের সেরা মিডফিল্ডারদের একজন ক্রুস ধন্যবাদ জানিয়েছেন তার সাফল্যের সঙ্গে জুড়ে থাকা সবাইকে। কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সমর্থক, ক্লাব, কোচ, বন্ধু এবং পরিবারের সবাইকে।

বিদায়ী বার্তার শেষটায় ক্রুস লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ ফুটবল! তুমি সুন্দর এক খেলা এবং তোমাকে স্বাগত। বিদায়।’ টনি ক্রুস আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় জানিয়ে দিলেও অবসরের ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন জার্মানির আরেক বিশ্বজয়ী তারকা থমাস মুলার। তিনি বলেন, ‘খুব সম্ভবত এটাই আমার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ।’

×