ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

প্রিমিয়ার লীগের রেকর্ড ফি’তে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপজয়ী এনজো ফার্নান্দেজকে দলে ভেড়ালো ব্লুজরা

দলবদলে হৈচৈ ফেলে দিল চেলসি

জিএম মোস্তফা

প্রকাশিত: ০০:৩৬, ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

দলবদলে হৈচৈ ফেলে দিল চেলসি

সতীর্থ আলভারেজের সঙ্গে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জয়ী তরুণ ফরোয়ার্ড ফার্নান্দেজ

জানুয়ারির ট্রান্সফার উইন্ডোতে সাধারণত খুব বেশি চমক দেখা যায় না। গত বছরেও এই সময়ে মাত্র ২৯৫ মিলিয়ন পাউন্ড অর্থ খরচ করেছিল ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ক্লাবগুলো। কিন্তু এবারের জানুয়ারির ট্রান্সফার উইন্ডো আর সেই প্রথা মেনে চলেনি। খেলোয়াড় কেনায় এবার প্রিমিয়ার লীগের ক্লাবগুলো ব্যয় করেছে রেকর্ড ৮১৫ মিলিয়ন পাউন্ড! মঙ্গলবার শেষ হওয়া এবারের দলবদলে বাজিমাত করেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ক্লাবগুলো।

এর বড় কারণ কাতার বিশ্বকাপে তরুণ ফুটবলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স। আর জানুয়ারির ট্রান্সফার উইন্ডোতে খেলোয়াড়দের পেছনে টাকা খরচ করে রীতিমতো হৈচৈ ফেলে দিয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট চেলসি।  
জানুয়ারির এই মধ্যবর্তী দলবদলে সাতজন খেলোয়াড় কিনেছে চেলসি। সব মিলিয়ে খরচ করেছে ৩২ কোটি ৬৫ লাখ ইউরো।  প্রিমিয়ার লীগের রেকর্ড ফি ১২১ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপজয়ী তারকা ফুটবলার এনজো ফার্নান্দেজকে শীতকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোর শেষ দিনে দলে ভিড়িয়েছে ব্লুজরা। তার আগে গ্রাহাম পটারের চেলসি মাখিয়ালো মাড্রিক, বেনোয়িট বাডিয়াশিলে, নোনি মাদুয়েকে ও অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ থেকে হুয়াও ফেলিক্সকে ধারে দলে ভিড়িয়েছে।

তবে পর্তুগিজ ক্লাব বেনফিকা থেকে ফার্নান্দেজকে দলে নিতে চেলসি যা ব্যয় করেছে তা প্রিমিয়ার লীগের ইতিহাসে নতুন রেকর্ড। ২০২১ সালে অ্যাস্টন ভিলা থেকে ১০০ মিলিয়ন পাউন্ডে জ্যাক গ্রীলিশকে দলে ভিড়িয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি। যা এতদিন পর্যন্ত ছিল দলবদলের বাজারে সর্বোচ্চ ফি। কিন্তু এবার সেই রেকর্ড পেছনে ফেলে দিলেন ফার্নান্দেজ। অথচ, গত জুলাইয়ে মাত্র ১০ মিলিয়ন পাউন্ডে পর্তুগিজ জায়ান্ট বেনফিকায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি। ২২ বছর বয়সী এই সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার সাড়ে আট বছরের চুক্তিতে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে নতুন করে ঠিকানা গড়লেন।

ফার্নান্দেজ ছাড়াও শাখতার থেকে মিখাইল মুদরিককে দলে ভিড়িয়েছে ব্লুজরা। ইউক্রেনের নেইমার হিসেবে খ্যাত এই ফুটবলারের জন্য তাদের ব্যয় করতে হয়েছে ৮ কোটি ৮০ লাখ পাউন্ড। সাড়ে ৮ বছরের জন্য স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের ক্লাবটিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন ইউক্রেনের এই ফুটবলার। ৩ কোটি ৩০ লাখ পাউন্ডের বিনিময়ে মোনাকো থেকে বেনোয়া বাদিয়াশিলকে কিনেছে গ্রাহাম পটারের দল। টাকার অঙ্কে শীর্ষ পাঁচ দলবদলের মধ্যে বাদিয়াশিলই একমাত্র ডিফেন্ডার। চেলসির হয়ে এরই মধ্যে দুই ম্যাচে খেলেছেন তরুণ এই ফরাসি ডিফেন্ডার। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ থেকে জোয়াও ফেলিক্সকে কেনার জন্য তাদের খরচ হয়েছে ৯৬ লাখ ৯০ হাজার পাউন্ড। 
গত মৌসুমের শেষে চেলসি কিনে নেয়া টড বোহলি শুরু থেকেই দলবদলের বাজারে বিপুল পরিমাণ অর্থলগ্নি করে চলেছেন। কিন্তু তার বিপরীতে ক্লাবের আশানুরূপ পারফরমেন্স দেখা যায়নি এখনও। কেননা, এই মুহূর্তেও যে প্রিমিয়ার লিগের ১০ নম্বরে অবস্থান করছে চেলসি। 
এছাড়াও ৪ কোটি পাউন্ডের বিনিময়ে এভারটন থেকে অ্যান্থনি গর্ডনকে দলে ভিড়িয়েছে এবারের আসরের শুরু থেকেই চমকে দেওয়া নিউক্যাসল ইউনাইটেড। এই উইঙ্গারের দিকেও চোখ ছিল চেলসির। কিন্তু শেষমেশ গর্ডনকে দলে ভিড়িয়েছে নিউক্যাসল। লিভারপুলের চমক ছিল কোডি গ্যাকপো। পিএসভি থেকে ৩ কোটি ৫০ লাখ পাউন্ডের বিনিময়ে ডাচ তরুণকে দলে ভেড়ায় জার্গেন ক্লপর দল। কাতার বিশ্বকাপে হল্যান্ডকে শেষ আটে তোলার পথে বড় অবদান রেখেছিলেন এই গ্যাকপোই। করেছিলেন তিন গোল। লিয়ান্দ্রো ট্রসারকে কিনেছে আর্সেনাল।

ব্রাইটন থেকে তাকে আনতে গানারদের খরচ হয়েছে ২ কোটি ১০ লাখ পাউন্ড। আক্রমণভাগের গভীরতা বাড়াতেই ট্রসারকে দলে নিয়েছেন আর্সেনাল। বোঝাই যাচ্ছে শীর্ষে থাকলেও বাকি অর্ধেক মৌসুমের জন্য কোনো ঝুঁকি নিতে চাচ্ছেন না মাইকেল আর্তেতা। চেলসি থেকে জর্জিনহোকে দলে ভেড়াতেও ১২ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করেছে আর্সেনাল। ভাউগ ভেগহোর্স্টকে বার্নলি থেকে ইউনাইটেড ধার করেছে ২ দশমিক ৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে।

তবে মৌসুম শেষে ২০ মিলিয়ন পাউন্ডে তাঁকে পাকাপাকিভাবে কিনে নেওয়ার সুযোগ আছে ইউনাইটেডের সামনে। ধারে কেইলর নাভাসকে পিএসজি থেকে নিয়ে এসেছে নটিংহাম ফরেস্ট।  মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিটাইজারও শেষ মিনিটে বায়ার্ন মিউনিখ থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দিয়েছেন।   
মেম্ফিস ডিপাইকে বার্সেলোনা থেকে ২৬ লাখ পাউন্ডে ধারে নিয়ে এসেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। ধারে জোয়াও ক্যানসেলো ম্যানসিটি থেকে বায়ার্ন মিউনিখে যোগ দিয়েছেন। আপাতত ধারে গেলেও মৌসুম শেষে ৬ লাখ ১০ হাজার পাউন্ডে কানসেলোকে পাকাপাকিভাবে কিনে নেওয়ার সুযোগ আছে বায়ার্নের।

×