ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

মেসির পর পিএসজি ছাড়লেন সার্জিও রামোস

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২৩:৪৯, ৩ জুন ২০২৩

মেসির পর পিএসজি ছাড়লেন সার্জিও রামোস

পিএসজিকে বিদায় বলে দেয়া স্পেনের তারকা ফুটবলার সার্জিও রামোস

প্যারিস সেইন্ট জার্মেই ছাড়ছেন লিওনেল মেসি। এই মুহূর্তে এটাই সবচেয়ে আলোচিত খবর। তবে মেসির পর এই তালিকায় যোগ হলো সার্জিও রামোসের নামও। শনিবার ক্লেরমন্টের বিপক্ষে লিগ ওয়ানের শেষ ম্যাচের পরই পিএসজি ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক রিয়াল মাদ্রিদের এই অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার।
পিএসজি ছাড়ার প্রসঙ্গে ক্লেরমন্টের বিপক্ষে ম্যাচের একদিন আগেই মুখ খুলেছেন রামোস। এ ব্যাপারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লিখেছেন, ‘আগামীকাল (শনিবার) আমার একটি বিশেষ দিন। পিএসজিকে বিদায় জানাচ্ছি। জীবনের আরও একটি পর্যায়কে বিদায় জানাচ্ছি। আমি জানিনা সব জায়গায় বাড়ির মতো অনুভূতি হয় কিনা। কিন্তু নিঃসন্দেহে পিএসজি, এখানকার সমর্থক এবং প্যারিস আমার কাছে সেই ধরনের অনুভূতি উপহার দিয়েছে। বিশেষ দুটি বছরের জন্য অনেক ধন্যবাদ। এই সময়টাতে আমি প্রতিটি টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ পেয়েছি সেইসঙ্গে চেষ্টা করেছি আমার শতভাগ মেলে ধরার।’
বয়সে সাঁইত্রিশকে ছাড়িয়ে গেছেন সার্জিও রামোস। ২০২১ সালে স্বদেশের জায়ান্ট ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানে। স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে চারবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে প্যারিসে পাড়ি জমিয়েছিলেন রামোস। পিএসজিরও স্বপ্ন ছিল স্বপ্নের ইউরোপ সেরার মুকুটে। সেজন্য সার্জিও রামোস ছাড়াও কিলিয়ান এমবাপে, নেইমার এবং সময়ের মহাতারকা লিওনেল মেসিকে দলে ভেড়ায় প্যারিসের ক্লাবটি। কিন্তু কেউই ক্লাবটির স্বপ্ন পূরণ করতে পারেনি। তবে দুই বছর প্যারিসের ক্লাবটিকে প্রতিনিধিত্ব করায় সার্জিও রামোর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন পিএসজির সভাপতি নাসের আল-খেলাইফি।

তিনি বলেন, ‘যে দুই বছর রামোস আমাদের সাথে কাটিয়েছেন সেজন্য তার প্রতি আমাদের অশেষ কৃতজ্ঞতা। নেতৃত্ব, টিম স্পিরিট ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অভিজ্ঞতার মিশেলে সার্জিও একজন সত্যিকারের ফুটবল কিংবদন্তিতে পরিণত হয়েছেন। প্যারিসে তাকে পাওয়াটা আমাদের জন্য সত্যিই সৌভাগ্যের। ক্লাবের প্রত্যেকেই তার প্রতি শুভকামনা জানিয়েছে।’
আগামী ৩০ জুন পিএসজির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হবে লিওনেল মেসির। একই দিনে প্যারিস জায়ান্টদের সঙ্গে সম্পর্কের ইতি টানবেন রামোসও। এই সময়ের মধ্যে ৫৭টি ম্যাচ খেলেছেন স্পেনের জার্সিতে ইউরো-বিশ্বকাপ-ইউরোজয়ী এই তারকা ডিফেন্ডার। এর মধ্যে এবারের মৌসুমেই খেলেছেন ৪৪ ম্যাচ। মাউরিসিও পোচেত্তিনোর অধীনে প্রথম মৌসুমটাতে খুব সুবিধে করতে পারেননি তিনি। বিশেষ করে ইনজুরির কারণে প্রায় সময়ই মাঠের বাইরে ছিলেন রামোস। একটা সময় স্প্যানিশ লা লিগায় একে অপরের শক্তিশালী প্রতিপক্ষ ছিলেন মেসি-রামোস। বার্সিলোনার জার্সিতে মেসি অন্যদিকে রিয়ালের রক্ষণভাগের সেরা তারকা ছিলেন রামোস। দুজনের নামের পাশেই এখন যোগ হয়েছে বিশ্বকাপের ট্রফি। ২০১০ সালে স্পেনের জার্সি গায়ে বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পান রামোস।

পক্ষান্তরে ডিসেম্বরে কাতার বিশ্বকাপের ট্রফি উচিয়ে ধরেন লিওনেল মেসি। মূলত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের লক্ষ্য নিয়ে একই বছরের গ্রীষ্মে প্যারিসে এসেছিলেন তারা। কিন্তু দুই মৌসুমেই পিএসজি সমর্থকদের হতাশ করেছেন তারা।
যে কারণেই মেসি-রামোসের বিদায়কে নিশ্চিত করে দিয়েছে পিএসজি কর্তৃপক্ষ। এই মুহূর্তে আলোচনায় পিএসজি ছেড়ে কোথায় যাচ্ছেন ইতোমধ্যেই ক্যারিয়ারের গোধূলীতে পৌঁছে যাওয়া দুই তারকা? মেসিকে নিয়ে ইন্টার মিয়ামির পাশাপাশি সৌদি আরবের ক্লাবে যোগ দেওয়ার জোড় গুঞ্জন রয়েছে। সেইসঙ্গে রয়েছে বার্সিলোনায় ফেরার প্রস্তাবও। অন্যদিকে, সার্জিও রামোসও নতুন করে ঠিকানা গড়তে পারেন সৌদি প্রো লিগে। যেখানে আল নাসরের জার্সিতে লিগ মাতাচ্ছেন তারই সাবেক ক্লাব সতীর্থ ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। পাশাপাশি গুঞ্জন রয়েছে সৌদিতে যোগ দিতে পারেন তাদের আরেক সতীর্থ করিম বেনজেমাও।

×