ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

রোনাল্ডোর বিশ্বরেকর্ড, ইংলিশ রেকর্ড হ্যারি কেনের

​​​​​​​স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২২:২০, ২৪ মার্চ ২০২৩

রোনাল্ডোর বিশ্বরেকর্ড, ইংলিশ রেকর্ড হ্যারি কেনের

গোলের পর পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো এবং ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেনের উদযাপন

দুই সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো হ্যারি কেন অনন্য রেকর্ডে ভাস্বর হয়েছেন। পর্তুগাল অধিনায়ক এককভাবে সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন। আর ইংলিশ অধিনায়ক নিজ দেশের ইতিহাসে এককভাবে সবচেয়ে বেশি গোল করার রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন। ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের নিজ নিজ ম্যাচে মাঠে নেমে এমন কীর্তি গড়েছেন রোনাল্ডো কেন।

বৃহস্পতিবার রাতে ইউরো বাছাইয়েরজে গ্রুপের ম্যাচে মাঠে নামেন রোনাল্ডো। নিজ দেশের লিসবনে অনুষ্ঠিত ম্যাচে সফরকারী লিচেনস্টেইনকে - গোলে হারায় স্বাগতিক পর্তুগাল। এই ম্যাচটি খেলেই ইতিহাস গড়েছেন রোনাল্ডো। ছেলেদের আন্তর্জাতিক ফুটবলে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড এখন এককভাবে পর্তুগিজ মহাতারকার। ম্যাচটি সি আর সেভেন রাঙিয়েছেন জোড়া গোল করে। পর্তুগালের বাকি গোল দুটি করেন জোয়াও ক্যান্সেলো বার্নাডো সিলভা। বাছাইপর্বেরসি গ্রুপের হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ইতালি ইংল্যান্ড। এর ফলে সবশেষ ইউরোর ফাইনালের আবহ চলে আসে। লন্ডনের ওই ফাইনালে ইংলিশদের হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইতালি। এবার সেই হারের মধুর প্রতিশোধ নিয়েছে ইংলিশরা। ইতালির নেপলসের দিয়াগো ম্যারাডোনা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত উত্তাপ ছড়ানো ম্যাচে ইতালিকে - গোলে পরাজিত করে ইংল্যান্ড। ম্যাচে পেনাল্টি থেকে এক গোল করে ইংল্যান্ডের ইতিহাসের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতার রেকর্ড গড়েছেন অধিনায়ক হ্যারি কেন।

লিচেনস্টেইনের বিরুদ্ধে ৩৮ বছর বয়সী রোনাল্ডো খেলেছেন ১৯৭ নম্বর ম্যাচ। সর্বোচ্চ ম্যাচের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ফুটবলে সবচেয়ে বেশি ১২০ গোল করার বিশ্বরেকর্ডও সি আর সেভেনের। গত ডিসেম্বরে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে মরক্কোর বিরুদ্ধে বদলি নেমে রোনাল্ডো সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ডে ছুয়েছিলেন কুয়েতের ফরোয়ার্ড বাদের আল-মুতাওয়ার ১৯৬ ম্যাচের রেকর্ড। তাকে ছাড়িয়ে এবার তিনি উঠে গেছেন নতুন উচ্চতায়। ১৯৫ ম্যাচ খেলে তালিকায় তিনে আছেন মালয়েশিয়ার সোহ চিন আন। পরের তিনটি স্থানে আছেন যথাক্রমে মিশরের আহমেদ হাসান (১৮৪), ওমানের আহমেদ মুবারাক (১৮৩) স্পেনের সার্জিও রামোস (১৮০)

ঐতিহাসিক ম্যাচের ৫১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে নিজের প্রথম গোল করেন রোনাল্ডো। ৬৩ মিনিটে চোখ ধাঁধানো ফ্রিকিক থেকে করেন আরেক গোল। এর আগে ম্যাচে অষ্টম মিনিটে জোয়াও ক্যান্সেলো ৪৭ মিনিটে সিলভা পর্তুগালের হয়ে গোল করেন। জোড়া গোল করার পথে ইতিহাসের প্রথম ফুটবলার হিসেবে প্রতিযোগিতামূলক আন্তর্জাতিক ম্যাচে ১০০ গোলের রেকর্ড গড়েছেন পাঁচবার করে ফিফা সেরা ব্যালন ডিঅর জয়ী রোনাল্ডো। ২০০৩ সালে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক হওয়া রোনাল্ডো গত বছর কাতার বিশ^কাপে গোল করে  পাঁচটি  বিশ^কাপে গোল করার অনন্য নজির স্থাপন করেন। অন্যদিকে ইতালির বিরুদ্ধে ইউরো বাছাইয়ের ম্যাচে লক্ষ্যভেদ করে দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন হ্যারি কেন। কাতার বিশ্বকাপে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে প্রথম পেনাল্টি থেকে গোল করলেও দ্বিতীয় পেনাল্টি মিস করে দলকে ডোবান ২৯ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার। যে কারণে ইংলিশরা ছিটকে পড়ে বিশ্বকাপ থেকে। যে কারণে নতুন ইতিহাস গড়তে অপেক্ষা বাড়ে তার। অবশেষে রেকর্ডটি নিজের করে নিয়েছেন। বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে পিছিয়ে পড়া দলকে সফল স্পট কিকে সমতায় ফিরিয়েছিলেন টটেনহ্যাম হটস্পার তারকা। এর ফলে ৫৩ গোল নিয়ে স্পর্শ করেছিলেন ইংল্যান্ডের জার্সিতে সাবেক কিংবদন্তি ওয়েন রুনির রেকর্ড। পরে ওই ম্যাচে আরেকটি পেনাল্টি পায় ইংল্যান্ড। কিন্তু সেই শটটি বারপোস্টের ওপর দিয়ে মারেন। ফলে রেকর্ডটিও এককভাবে নিজের করে নিতে ব্যর্থ হন কেন, আর বিদায়ঘণ্টা বাজে ইংলিশদের।

এবার ইতালির বিরুদ্ধে পেনাল্টি পেয়ে আর ভুল করেননি কেন। ৪৪ মিনিটে ডি বক্সে ইতালির ডিফেন্ডার জিওভানি দি লরেন্সোর হাতে বল লাগলে ভিএআরের সাহায্যে পেনাল্টি দেন রেফারি। দারুণ শটে লক্ষ্যভেদ করে ইংল্যান্ডের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন ইংলিশ অধিনায়ক। বর্তমানে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৮১ ম্যাচে কেনের গোলসংখ্যা ৫৪টি। ৫৩ গোল করতে রুনির লেগেছিল ১২০ ম্যাচ। কেনের ইতিহাস গড়ার ম্যাচে ইংল্যান্ডের ৬২ বছরের অপেক্ষার অবসানও ঘটেছে। ইতালির মাঠে ফুটবলের জনকরা জিতেছে সেই ১৯৬১ সালের পর।

×