ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মুশফিক ঝড় থামাতে মরিয়া আয়ারল্যান্ড

শাকিল আহমেদ মিরাজ

প্রকাশিত: ০০:৫৬, ২২ মার্চ ২০২৩

মুশফিক ঝড় থামাতে মরিয়া আয়ারল্যান্ড

মুশফিক

দুই ওয়ানডেতে প্রায় সাড়ে সাতশ’ রানের নিচে চাপা পড়া আইরিশদের এখন ‘ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা।’ জয়-পরাজয় ছাপিয়ে অতিথিতের বরং বলতে হচ্ছে, আগে মুশফিক-ঝড় থামাও! ঝড় নয় তো কী। চা-বাগানে ঘেরা নয়নাভিরাম সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ার আগে যে ঝড়টা উঠেছিল তার নাম মুশফিক-ঝড়। রেকর্ড বই তছনছ করে আয়ারল্যান্ড বোলারদের ক্রিকেটের দীক্ষা দিয়ে ৬০ বলে খেলেছেন অপরাজিত ১০০ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস। দেশের হয়ে ওয়ানডেতে দ্রুততম সেঞ্চুরির পথে হাঁকিয়েছেন ১৪ চার ও দুটি বিশাল ছক্কা।

ব্যাটে রান নেই, চারদিকে সমালোচনা, সিনিয়রদের প্রতি বস্ চন্দ্রিকা হাতুরুসিংহের বিরূপ মনোভাব, এমনি সব চাপ সঙ্গী করে ৩ চার ও ৩ ছক্কায় প্রথম ম্যাচে ২৬ বলে ৪৪-এর পর এই টর্নেডো। প্রতিপক্ষ অলরাউন্ডার কার্টিস ক্যাম্ফারের স্বরল স্বীকারোক্তি, সিরিজে ফিরতে সবার আগে মুশফিকুর রহিমকে থামাতে হবে তাদের। টাইগার তারকা লিটন দাসের মুল্যায়ন, এমন ইনিংস আগে দেখেননি তিনি। আর আবেগী মুশি বিশেষ ধন্যবাদ দিয়েছেন বন্ধু তামিম ইকবালকে। সিলেটে ফয়সালার তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে বৃহস্পতিবার। 
‘আমার মতে, (মুশফিকের ইনিংসের বর্ণনা কার জন্য) সঠিক শব্দটা হবে খুবাই ইমপ্যাক্টফুল ইনিংস। সে ক্লাস ক্রিকেটার। সে দেখিয়েছে কেন সে এত দিন ধরে এত ভালো করে আসছে। সে যেভাবে খেলাটি প্রভাবিত করেছে, উইকেটে গিয়েই স্বাধীনভাবে ব্যাটিং করেছে, কিছু দৃষ্টিনন্দন, কিছু উদ্ভাবনী শট খেলেছে। সে আমাদের চাপে ফেলে দিয়েছে। দুটি ম্যাচেই সে এটি করল। আশা করি এখান থেকে ঘুড়ে দাঁড়াতে আমরা তার (মুশফিকের) স্কিলের সঙ্গে লড়াই করার পথ খুঁজে পাব।’

৩৪তম ওভারে উইকেটে গিয়ে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত মুশফিক খেলেন ৬০ বলে ১৪ চার ও ২ ছয়ে ১০০ রানের ঝড়ো ইনিংস। ১৩তম বলে প্রথম চার মারা উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানের প্রথম ছক্কা আসে ১৮তম বলে। ওই ছক্কা দিয়ে তার স্ট্রাইক রেট ১০০ ছাড়িয়ে যায়। যা পরের সময়ে একবারের জন্যও একশর নিচে নামেনি।
মুশফিকের ৬০ বলে অপরাজিত ১০০, শান্তর ৭৭ বলে ৭৩ ও লিটন দাসের ৭১ বলে ৭০ রানে ভর করে শেষ পর্যন্ত নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ পায় টাইগাররা (৩৪৯/৬)। আর এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্রুততম ২০০০ রানের (৬৫তম ইনিংসে) রেকর্ডে সাবেক তারকা শাহরিয়ার নাফিসের সঙ্গী হয়েছেন লিটন। মুশির ব্যাটিংয়ে মুদ্ধ ইনফর্ম এই ব্যাটসম্যান, ‘সত্যি কথা বলতে আমি যতদিন খেলছি, বাংলাদেশের কোনো খেলোয়াড়ই এভাবে শেষের দিকে গিয়ে ১০০ করেনি। যখন দল থেকে কেউ এরকম একটা  সেঞ্চুরি করে, দেখলে অনেক ভালো লাগে।

সিনিয়ররা কেউ করলে তো আরও ভালো লাগে।’ চাপে থাকা মুশফিক সেঞ্চুরি পেলেন ১৭ মাস পর! একই দিনে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১৫ হাজার রানের মাইলফলকে পা-রেখেছেন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালও। দ্যুতিময় ব্যাটিংয়ে ছন্দে ফেরা মুশফিক বিশেষ ধন্যবাদ দিয়েছেন বন্ধু, অধিনায়ক তামিমকে, ‘মাঠের ভেতরে-বাইরে আমাকে সবটুকু সমর্থন দেওয়ার জন্য আজকে ধন্যবাদ জানাতে চাই তামিমকে। এখনো পর্যন্ত সামান্য যা কিছু অর্জন করতে পেরেছি, এই ভদ্রলোক তাতে বড় ভূমিকা রেখেছে। ১৫ হাজারের বেশি আন্তর্জাতিক রান এবং আমার চোখে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটার।’ 
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তামিমের সঙ্গে ছবি দিয়ে লিখেছেন মুশফিক। ব্যাট হাতে সময়টা খুব একটা ভালো যাচ্ছে না তামিমেরও। টানা ৬ ওয়ানডে ইনিংসে ফিফটির দেখা নেই ওয়ানডে অধিনায়কের। বন্ধু মুশফিকের আগাম শুভ কামনা, ‘সবকিছুর জন্য কৃতজ্ঞতা বন্ধু। তোর সময়ও দ্রুত আসবে ইনশাল্লাহ।’ মুশফিকের সেই পোস্টের নিচে তামিমের মন্তব্য আসতেও সময় লাগেনি, ‘ধন্যবাদ বন্ধু, আজকে মাঠে তুই ছিলি অসাধারণ।’ ওদিকে সুখবর দিয়েছে আবহাওয়া বার্তা, সিলেটে আগামীকালের ম্যাচে বৃষ্টির তেমন সম্ভাবনা নেই।

×