ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১

টেসলার স্মার্ট গাড়ি টেক্কা দিতে নতুন কোম্পানি

শেরিফ ফারুকী

প্রকাশিত: ২২:১৪, ২৪ মে ২০২৪

টেসলার স্মার্ট গাড়ি  টেক্কা দিতে নতুন কোম্পানি

.

মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান টেসলার তৈরি বৈদ্যুতিক গাড়ি একের পর এক সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে। চীনে সম্প্রতি ফেরত নিতে হয়েছে টেসলার তৈরি করা সব সাইবারট্রাক। জার্মানিতে বন্ধ করতে হয়েছে গাড়ির ফ্যাক্টরি। টেসলার গাড়িগুলোর ক্ষেত্রে কী ঘটছে আসলে?

টেসলাকে টেক্কা দিতে নতুন নতুন কোম্পানি : জ্বালানি সাশ্রয়ী হওয়ায় বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা বাড়ছে দিন দিন। চীনে ক্রমবর্ধমান বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক কাজ করেছে ইলন মাস্কের টেসলা। কিন্তু এই প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানকে টেক্কা দিতে বাজারে এসেছে চীনের প্রতিষ্ঠান নিও। চীনের কোনো প্রতিষ্ঠান যখন বাজারে আসে তখন তারা আগ্রাসী ব্যবসায় নামে। পরিবহন প্রতিষ্ঠান উবারকে বাজার থেকে তুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে ডিডি নামের চীনা প্রতিষ্ঠানটির আগ্রাসী পলিসির কথা স্মরণ করা যেতে পারে। বৈদ্যুতিক গাড়ির প্রতিষ্ঠান নিও বাজারে এসেই টেসলার চেয়ে অনেক কম দামেই গাড়ি ছাড়া শুরু করেছে। টেসলার তৈরি জনপ্রিয়মডেল ওয়াইগাড়িকে টেক্কা দিতে বৈদ্যুতিক গাড়ি বাজারে আনার ঘোষণা দেওয়া নিও জানাচ্ছে, তারাএসইউভিমডেলের গাড়িটি বাজারে ছাড়ছে ৩৫ লাখ টাকায়। যা টেসলার সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়ামডেল ওয়াইগাড়ির চেয়ে ১০ ভাগের ভাগ দাম।

গাড়ির ব্যাটারি নিয়ে ঝামেলা যত : বৈদ্যুতিক ব্যাটারি নিয়ে টেসলা ব্যাপক গবেষণা চালাচ্ছে, কারণ অভিযোগ আসছে ব্যাটারির কর্মক্ষমতা নিয়ে। বর্তমানে টেসলারমডেল এসগাড়িতে ব্যবহৃত ব্যাটারির ক্ষমতা ৯৮ কিলোওয়াট-ঘণ্টা। টেসলার এই গাড়ির ব্যাটারি কয়েক হাজার লিথিয়াম-আয়ন সেলের মাধ্যমে তৈরি করা হয়ে থাকে। এসব সেলের চার্জিং ক্ষমতা ৩৪০০-৫০০০ মিলি-অ্যাম্পায়ার-ঘণ্টা। এই লিথিয়াম ব্যাটারিগুলো পূর্ণ চার্জ করতে ১৭ ঘণ্টা পর্যন্ত সময় প্রয়োজন হয়। আরেকটু শক্তিশালী ব্যাটারি চাইলে এর আকার ওজন বেশি হবে ফলে গাড়িতে ওজন বাড়বে জায়গা বেশি নেবে। এজন্য চাইলেও বেশি ক্ষমতার ব্যাটারি গাড়িতে ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না টেসলার পক্ষে। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারির আরও আধুনিকায়নে কাজ করছে টেসলা।

সুপারচার্জার স্টেশন নিয়ে সমস্যা : বৈদ্যুতিক গাড়িগুলো চার্জ করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ৫০ হাজারের অধিক সুপারচার্জার স্টেশন তৈরি করেছে ইলন মাস্কের টেসলা। ২০১২ সাল থেকে সুপারচার্জার স্টেশনের কাজ শুরু করে তারা। ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ চীনে সুপারচার্জার স্টেশন চালু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু এর রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে নানান ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে তাদেরকে। টেসলার সুপারচার্জার নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের জন্য সম্প্রতি ৫০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করার ঘোষণা দিয়েছেন ইলন মাস্ক। কিন্তু খামখেয়ালি এই ধনকুবেরের একের পর এক কর্মী ছাঁটাই নিয়োগ সুপারচার্জার নেটওয়ার্ককে থিতু হতে দিচ্ছে না। সর্বশেষ গত ১০ মে ৫০০ কর্মীকে ছাঁটাই করেন ইলন মাস্ক।

কারখানা জাহাজে হামলা : মে জার্মানির বার্লিনে ভলকানো গ্রুপ নামের একটি পরিবেশবাদী সংগঠনের হামলায় টেসলারগিগাফ্যাক্টরিবন্ধ হয়ে যায় সাময়িকভাবে। পরিবেশবাদী সংগঠনটি বলছে, টেসলা পরিবেশের জন্য হুমকি তৈরি করেছে। ইউরোপীয় অটোমোবাইল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবে ইউরোপে গত তিন মাসে টেসলার গাড়ি বিক্রির পরিমাণ . শতাংশ কমে গেছে। এর বাইরে চীনের বাজারেও টেসলার বিক্রির পরিমাণ ১৮ শতাংশ কমেছে। লোহিত সাগরে জাহাজে হামলার কারণে গত জানুয়ারি মাসে গাড়ির উৎপাদন কমাতে বাধ্য হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি।

বৈদ্যুতিক গাড়ির দুর্ঘটনা : সম্প্রতি বড় দুটি দুর্ঘটনার পর মার্কিন আদালত টেসলারঅটোপাইলটনামের একটি প্রযুক্তি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। এটি একটি স্বয়ংক্রিয় ড্রাইভিং সফটওয়্যার। এর মাধ্যমে চালক অটো ড্রাইভিং সিস্টেমে গাড়ি রেখে পার্কিং করতে পারে এবং ঝুঁকিমুক্ত সড়কে স্টিয়ারিং ছেড়ে দিতে পারে। অটো পাইলট ব্যবহারের সময় চালককে বেশ সতর্ক থাকতে হয়। তবে এমন অটোপাইলট সিস্টেমে চলার সময় এক যুবকের নিহত হওয়ার ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে আমেরিকান আদালত।

সাইবার ট্রাকে ত্রুটি : গত ৩০ নভেস্বর প্রথমবার সাইবারট্রাক আনে টেসলা। গাড়িগুলোর বিশেষত্ব হচ্ছে এর বডি বেশ শক্ত করে তৈরি করা হয়। সাইবারট্রাক দুর্ঘটনায় পড়লেও যাত্রীদের নিরাপদ থাকার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু বাজারে ছাড়া এই গাড়ির এক্সিলেটর প্যাডেলে সমস্যা দেখা দিয়েছে। ফলে বিক্রি হওয়া সকল গাড়ি ফেরতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেসলা। এখন পর্যন্ত প্রায় হাজারের মতো সাইবারট্রাক গ্রাহকের হাতে পৌঁছেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সড়ক নিয়ন্ত্রক সংস্থান্যাশনাল হাইওয়ে ট্রাফিক সেফটি অ্যাডমিনিস্ট্রেশনজানিয়েছে, সাইবারট্রাকে থাকা ত্রুটির কারণে প্যাডেল বেশি জোরে চাপ দিলে তা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি আটকে যেতে পারে। বাজারে আসার প্রথম মাসেই যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে একটি সাইবারট্রাক। অবশ্য টয়োটা করোলা গাড়ির সঙ্গে সাইবারট্রাকটির সংঘর্ষে টয়োটা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সাইবারট্রাকের কোনো ক্ষতি হয়নি।

×