ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০

সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা সাংবিধানিকভাবে বাধ্য

প্রকাশিত: ২০:৩০, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা সাংবিধানিকভাবে বাধ্য

সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, আমরা আমাদের যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা, একটা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা আইনগত ও সাংবিধানিকভাবে বাধ্য, সেটা খুব স্পষ্ট করে তাদের বুঝিয়েছি, আগেও বুঝিয়েছি।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন সিইসি।

বৈঠকে ঢাকায় ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির নেতৃত্বে সুইডেন, স্পেন, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, ফ্রান্স ও জার্মানির মিশনপ্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের পরে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল সাংবাদিকদের জানান, ইইউভুক্ত রাষ্ট্রদূতদের ৯ জনের প্রতিনিধিদল এসেছিলেন। ইইউ প্রতিনিধিরা এর আগেও একাধিকবার এসেছেন। সহসাই তাদের একটা এক্সপার্ট ইলেকশন টিম আসবে বলে জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে তাদের চার জনের এক্সপার্ট (ইলেকশন অবজারভার টিম) এসে গেছেন। তারা দীর্ঘ সময় ধরে আমাদের প্রস্তুতি সম্পর্কে জেনেছেন। এরই মধ্যে আমাদের প্রস্তুতি এগিয়ে গেছে। এটা তো তারা জানতেন না, তারা আগেও এসেছেন। আমাদের কী কী অগ্রগতি হয়েছে তা জানিয়েছি।

সিইসি বলেন, আমরা আগের মতো স্পষ্ট করে বলেছি- আমরা নির্বাচন ফ্রি, ফেয়ার, পিসফুল অ্যান্ড ক্রেডিবল যাতে হয়, সেটা নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা তাদের জানিয়েছি, আমাদের নির্বাচন কমিশনাররা দুই সপ্তাহ ধরে জেলা, বিভাগীয় পর্যায়ে গেছেন। তারা প্রশাসন ও জনগণকে এ বিষয়গুলো অবহিত করছেন। যাতে প্রশাসন স্থানীয়ভাবে তাদের সব শক্তিকে সমন্বিত করে, যাতে অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনটা নিশ্চিত হয়।

ইসির অবস্থানে ইইউ সন্তুষ্ট বলে বলে মনে করেন সিইসি। তিনি বলেন, তারা আমাদের বক্তব্যে যত দূর বুঝেছি সন্তুষ্ট হয়েছেন। আমরা আমাদের যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা, একটা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা আইনগত ও সাংবিধানিকভাবে বাধ্য, সেটা খুব স্পষ্ট করে তাদের বুঝিয়েছি, আগেও বুঝিয়েছি। আমার বিশ্বাস, আমাদের এ সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতা, এটা তারা বুঝতে পেরেছেন।

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, পলিটিক্যাল সাইডটা আমরা বলেছি, রাজনৈতিক অঙ্গনে যদি কোনও মতবিরোধ, বিভেদ, বিভাজন থাকে- সেখানে কোনোভাবেই আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারি না। আমরা নিজেরা সেখানে সম্পৃক্ত হতে পারি না।

 

এসআর

×