ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

বঙ্গবন্ধুর পাঞ্জাবি, সেই পাইপ মুজিব কোট জাতীয় জাদুঘরে

মোরসালিন মিজান

প্রকাশিত: ০০:০৮, ১২ আগস্ট ২০২২

বঙ্গবন্ধুর পাঞ্জাবি, সেই পাইপ মুজিব কোট জাতীয় জাদুঘরে

বঙ্গবন্ধুর পাঞ্জাবি, সেই পাইপ মুজিব কোট জাতীয় জাদুঘরে

জাতীয় জাদুঘরের দীর্ঘদিনের চাওয়া পূরণ হলোদেশের প্রধান জাদুঘরের সংগ্রহে এলো বাঙালীর অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের বিখ্যাত মুজিব কোট, সফেদ পাঞ্জাবি, পাজামা ও একটি টোব্যাকো পাইপ

শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনক্রমে বৃহস্পতিবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘর কর্তৃপক্ষ জাতীয় জাদুঘরকে স্থায়ীভাবে এসব অমূল্য স্মারক প্রদান করেনস্মৃতি জাদুঘর থেকে জাতীয় জাদুঘরে স্থায়ীভাবে কোন নিদর্শন দান করার ঘটনা এটিই প্রথম। 

জানা যায়, সরকারী প্রতিষ্ঠান জাতীয় জাদুঘরে বঙ্গবন্ধুর বেশ কিছু স্মৃতি নিদর্শন রয়েছেতবে মুজিব কোট, সফেদ পাঞ্জাবি, পাজামা ও পাইপ  দিয়েই মহান নেতাকে বিশেষভাবে চেনা যেতএগুলোর কোনটিই জাতীয় জাদুঘরে ছিল নাঘাটতি পূরণে গত জুলাই মাসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘরের সহায়তা চায় জাতীয় জাদুঘর

২৬ জুলাই জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান ম্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম বরাবর একটি চিঠি  লেখেনতাতে জাতির পিতার পাঞ্জাবি, পাজামা, মুজিব কোট, চশমা ও টোব্যাকো পাইপ স্থায়ী নিদর্শন হিসেবে পাওয়ার আবেদন জানানো হয়

সূত্র জানায়, এর পর গত বুধবার গণভবনে স্মৃতি জাদুঘরের ট্রাস্টিদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাবৈঠকের এক পর্যায়ে কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান জাতীয় জাদুঘরের আবেদনটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করে এ ব্যাপারে তাঁর সিদ্ধান্ত চানজাতীয় জাদুঘরের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী তক্ষণা ইতিবাচক সিদ্ধান্ত দেনএর প্রেক্ষিতে জাতীয় জাদুঘরের প্রতিনিধিদের হাতে চারটি নিদর্শন তুলে দেয়া হয়।    

তবে হস্তান্তর উপলক্ষে এদিন কোন আনুষ্ঠানিকতা ছিল নাবিকেলে জাতীয় জাদুঘরের একজন কীপারসহ তিন কর্মকর্তা যান ধানম-ির স্মৃতি জাদুঘরেঘরোয়া পরিবেশে জাতীয় জাদুঘরের কীপার সাইফুজ্জামানের হাতে চারটি নিদর্শন তুলে দেন স্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান

এদিন নিদর্শনগুলো খুব কাছ থেকে খুঁটিয়ে দেখার সুযোগ পান এই প্রতিবেদককালো রঙের মুজিব কোটটি বহু বছরের পুরনো হলেও তাতে কোন খুঁত বা ক্ষত ছিল নারঙটাও তেমন ফিকে হয়নিগুনে দেখা যায়, মুজিব কোটে রয়েছে ছয়টি বড় বোতামবোতামের রঙও কালোসাদা পাঞ্জাবিটি  হালকা ও আরামদায়ক কাপড়ে তৈরিপুরনো কাটিংসে সময়কার গোল গলা

বুকের অংশে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দাগ পড়েছেতবে কোন ছেড়াফাঁড়া নেইপাজামার লক্ষ্যণীয় দিক- এর আকারআকারে এটি অনেক বেশি ঢোলাটোব্যাকো পাইপটি পিতলেরআকর্ষণীয় টেক্সচারসেখানে ফুল ও লতাপাতার চমকার ডিজাইন দৃশ্যমান হয়। 

জানা যায়, নিদর্শনগুলো এতদিন বিশেষ যত্নে স্মৃতি জাদুঘরের স্টোর রুমে সংরক্ষিত হচ্ছিলসেখান থেকে বের করে জাতীয় জাদুঘরে দান করা হয়

এ প্রসঙ্গে স্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান জনকণ্ঠকে বলেন, জাতির জনকের যে কোন নিদর্শন আমাদের কাছে মহামূল্যবানআমরা চাই, এসব নিদর্শনের মাধ্যমে বাঙালীর নেতাকে মানুষ আরও জানুকতাঁকে নিয়ে গবেষণা হোকজাতীয় জাদুঘর এসব কাজ এগিয়ে নিতে ভালভাবে কাজ করতে পারেনিদর্শন সংরক্ষণে তাদের বিশেষ সক্ষমতা আছেঅসংখ্য দর্শনার্থী নিয়মিত এ জাদুঘর পরিদর্শন করেএসব বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিদর্শনগুলো জাতীয় জাদুঘরে স্থায়ীভাবে দান করেছেন বলে জানান তিনি

একই ধরনের আরও নিদর্শন স্মৃতি জাদুঘরে আছেআছে নিশ্চিত হয়েই কিছু নিদর্শন জাতীয় জাদুঘরে দেয়া সম্ভব হয়েছে বলে জানা যায়। 

জাতীয় জাদুঘরের পক্ষে নিদর্শন সংগ্রহ করেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের কীপার সাইফুজ্জামান বলেন, আমরা অনেকদিন ধরে একটা ঘাটতি অনুভব করছিলামএসব নিদর্শন সে ঘাটতি পূরণ করেছেআমরা ভাবতেই পারিনি যে, এত অল্প সময়ের মধ্যে, এত সহজে অমূল্য দান জাদুঘরের জন্য পাবএ জন্য জাতীয় জাদুঘরের পক্ষ থেকে স্মৃতি জাদুঘরের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি

এ প্রসঙ্গে জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, নিদর্শনগুলো পেয়ে জাতীয় জাদুঘর দারুণভাবে সমৃদ্ধ হলোপ্রতিটি নিদর্শন যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হবেআপাত বিশেষ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করে সেখানে এগুলো দেখার সুযোগ করে দেয়া হতে পারেপরবর্তীতে এগুলো স্থায়ী গ্যালারিতে প্রদর্শন করা হবে বলে জানান তিনি।   

এদিকে, জাতীয় জাদুঘরকে সমৃদ্ধ করতে সরাসরি ভূমিকা রেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু নিজেও।  জানা যায়, ১৯৭২ সালের জুন মাসে নেতা নিজেই বেশ কিছু স্মৃতি নিদর্শন জাতীয় জাদুঘরে দান করেছিলেনসে সময় জাদুঘরের দায়িত্বে থাকা ড. ফিরোজ মাহমুদ গণভবনে গিয়ে এগুলো গ্রহণ করেনএ তালিকায় ছিল বঙ্গবন্ধুকে লেখা সাধারণ মানুষের চিঠি, মানপত্র, কাঁসার থালা, কলম ইত্যাদিনিদর্শনগুলো এখন নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারিতে প্রদর্শিত হচ্ছে

একই সময় জাতীয় জাদুঘরের স্থায়ী গ্যালারিতে প্রদর্শিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহার করা টেবিল, রিভলবিং চেয়ার, শীতল পাঠি বিছানো পালঙ্কএসবের সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হলো মুজিব কোট, পাঞ্জাবি, পাজামা ও পাইপ