ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

খালেদা জিয়াকে নিয়ে বক্তব্যের প্রতিবাদে সমাবেশ

পদ্মা সেতু নিয়ে বড়াই করা উচিত নয় ॥ ফখরুল

প্রকাশিত: ২৩:১৫, ২৪ মে ২০২২

পদ্মা সেতু নিয়ে বড়াই করা উচিত নয় ॥ ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পদ্মা সেতু নির্মাণে দুর্নীতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, জনগণের করের টাকায় এই সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। এটি নিয়ে আওয়ামী লীগের বড়াই করা উচিত নয়। এটি নির্মাণে দুর্নীতি করেছেন, তা সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছে। সোমবার খালেদা জিয়াকে নিয়ে বক্তব্যের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। সমাবেশটির আয়োজন করে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ বিএনপি। সকাল দশটায় বিএনপির সমাবেশটি শুরু হয়। এর আগে সকাল ৯টা থেকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ড বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে জড়ো হয়। মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণ জানতে চায়, পদ্মা সেতুর জন্য মানুষের কত টাকা কেটে নিয়েছেন। জাতির কত টাকা আপনারা এই পদ্মা সেতুতে ব্যয় করেছেন। আর কত টাকা নিজেদের পকেটে ভরেছেন। মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ উন্নয়ন-উন্নয়ন করে চিৎকার করে। কিসের উন্নয়ন করেছেন, কার উন্নয়ন করেছেন? উন্নয়ন তো করেছেন পি কে হালদারের। উন্নয়ন করেছেন শিক্ষামন্ত্রীর ভাইয়ের। আর আপনারা যারা ক্ষমতায় আছেন, তাদের প্রত্যেকের। আওয়ামী লীগ দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে গেছে দাবি করে তিনি বলেন, অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি রসাতলে যাচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ধ্বংসের দিকে নিয়ে গেছেন। খবরের কাগজ খুললে দেখা যায়, লুটপাট হচ্ছে। আর এর সঙ্গে সরকারী দলের লোকেরা জড়িত। খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, তাকে যদি উন্নত চিকিৎসা দেয়া না হয়, তাহলে তাঁর বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। আমরা বারবার বলেছি, তাকে মুক্তি দেন। আজ এখান থেকে দাঁড়িয়ে আহ্বান ও দাবি জানাতে চাই, এখনও সময় আছে, তাকে মুক্তি দেন। বিদেশে যাওয়ার সুযোগ দেন। আমাদের ৩৫ লাখ নেতাকর্মীর নামে যে মামলা আছে, তা তুলে নিন। যারা কারাগারে আছে, তাদের মুক্তি দেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ঢাকা উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক এবং দক্ষিণ বিএনপির সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুরের যৌথ সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে ছিলেন উত্তর মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নাল আবদীন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ। সভায় বক্তব্য না দিতে পেরে ইশরাকের ক্ষোভ ॥ বক্তব্যের সুযোগ না দেয়ায় রাগ করে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে সমাবেশস্থল ছেড়ে চলে যান বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। সোমবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ ঘটনা ঘটে। সকাল ১০টায় আনুষ্ঠানিকভাবে এই বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকেও বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পাননি ইশরাক হোসেন। পরে ঘোষণা করা হয় অনেককেই বক্তব্য দেয়ার সুযোগ দেয়া হয়নি। এমন ঘোষণার পর ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন ক্ষিপ্ত, উত্তেজিত হয়ে তার কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে মঞ্চ ছেড়ে প্রেসক্লাবের ভেতরে চলে যান। এ সময় তাকে অনেকে আটকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সব বাধা উপেক্ষা করে তিনি চলে যান। মঞ্চে এ নিয়ে আলোচনা হলে কিছুক্ষণ পর বক্তব্য দেয়ার জন্য ইঞ্জিনিয়ার ইশরাকের নাম ঘোষণা করা হয়। তখন মঞ্চে না থাকায় তিনি এলে তাকে সুযোগ দেয়া হবে বলে ঘোষণা করা হয়। এর কিছুক্ষণ পরে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে প্রেসক্লাব ত্যাগ করেন ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২