ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নিপুণকে যা বললেন সোহেল রানা

প্রকাশিত: ১৭:৫৭, ২১ মে ২০২৪; আপডেট: ১৮:০০, ২১ মে ২০২৪

নিপুণকে যা বললেন সোহেল রানা

নিপুণ  ও সোহেল রানা

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন যেন বিতর্ক পিছু ছাড়ছেই না। এ নির্বাচন নিয়ে নতুন করে প্রশ্নের সৃষ্টি করেছেন পরাজিত সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নিপুণ আক্তার। সম্প্রতি ভোটের ফল স্থগিত চেয়ে আদালতে রিট করেছেন তিনি। তার রিটের প্রেক্ষিতে স্থগিত হয়েছে বিজয়ী প্রার্থী মনোয়ার হোসেন ডিপজলের সাধারণ সম্পাদক পদ। আপাতত এই পদে তিনি দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। নিপুণের এমন কর্মাকান্ড নিয়ে এবার মুখ খুললেন মুক্তিযোদ্ধা, প্রযোজক, নির্মাতা ও অভিনেতা সোহেল রানা।

ক্ষোভ প্রকাশ করে সোহেল রানা বলেন, বারবার শিল্পী সমিতির আদালতের দারস্থ হওয়া শিল্পীদের জন্য লজ্জার। একজনের জন্য সব শিল্পীকেই সেই দায়ভার বহন করতে হচ্ছে। গত নির্বাচনের আগ পর্যন্ত কেউ শিল্পী সমিতির অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে আদালতে যায়নি। ছোট ছোট যে সমস্যাগুলো হয়েছে তার সমাধান শিল্পীরাই করেছে। গতবার প্রথম নিপুণ আদালতে গেছে। এবারও তাই করল। গতবার তার সঙ্গে প্যানেলের ১১ জন ছিলেন, এবার তার প্যানেল থেকে নির্বাচিত হওয়া তিনজন কিন্তু ইতিমধ্যে নতুন প্যানেলের সঙ্গে বসে মিটিং করেছেন। আগের কমিটির মতো আলাদা থাকেনি। এবার আদালতে যাওয়ার বিষয়টি অকল্পনীয় ব্যাপার, কল্পনাতীত। শিল্পী সমিতির আদালতের দারস্থ হওয়া শিল্পীদের জন্য লজ্জার।তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের পর নিপুণ মালা দিয়ে বিজয়ীদের বরণ করে নিয়েছে। আমিও তাকে বাহবা দিয়েছি। এক মাস না পেরোতেই সে আদালতে গেল। পুরো বিষয়টি আমার বোধগম্য হচ্ছে না। আলোচনায় থাকতেই হয়ত নিপুণ এমনটা করেছে। আদালত যদি সত্যিকার অর্থে সবকিছু বিচার-বিবেচনা করে দেখেন, তাহলে তার অভিযোগ কোনোটাই গ্রহণযোগ্য হওয়ার কথা নয়। আদালতের ওপর আমাদের দৃঢ় আস্থা আছে।সিনিয়র শিল্পীদের কাছে না গিয়ে কোর্টে যাওয়া নিপুণের ঠিক হয়নি উল্লেখ করে মাসুদ রানা খ্যাত এই নায়ক বলেন, আমরা যখন দিনের পর দিন শুটিং করেছি, সংগঠন করেছি, তখনো যে ঝুট-ঝামেলা হয়নি তা নয়। মনোমালিন্য হয়নি তা-ও নয়। কিন্তু কোর্ট কাচারি হয়নি। আমরা নিজেরা বসে সমাধান করেছি। শিল্পী হিসেবে সম্মান রেখেছি সবার,বলেন তিনি।

তিনি বলেন, নিপুণ তো সিনিয়র শিল্পীদের কাছে আসেনি? আসতে পারত। আসা উচিত ছিল। আমরা কয়েকজন সিনিয়র শিল্পী এখনো বেঁচে আছি। তার তো ভাবা দরকার ছিল একটিবার হলেও সিনিয়রদের কাছে যাই। তা করেনি। সিনিয়র শিল্পীদের কাছে না গিয়ে কোর্টে কেন গেল এটা বুঝতে পারছি না। এর কোনো কারণও খুঁজে পাই না। এটা দু:খজনক।

শহিদ

×