ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় অগ্রযাত্রার ১৭ বছর

মোহাম্মদ রাজীব

প্রকাশিত: ০০:৩২, ২৮ মে ২০২৩

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় অগ্রযাত্রার ১৭ বছর

বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষায় এক অনন্য প্রতিষ্ঠান কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষায় এক অনন্য প্রতিষ্ঠান কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। আজ ২৮ মে গৌরব ও অগ্রযাত্রার ১৭ বছর পূর্ণ করল দেশের ২৬ তম এ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এ দিনে সাফল্যের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখে শিক্ষা ও গবেষণায় অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। আগামীর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে শিক্ষকরা কী ভাবে দেখতে চান ও তাদের প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেছেন- মোহাম্মদ রাজীব

নতুন জ্ঞান সৃষ্টি, মুক্তবুদ্ধির চর্চা ও জ্ঞানের সর্বোচ্চ প্রয়োগের অন্যতম বিদ্যাপীঠ হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়। বুদ্ধিবৃত্তির জাগরণ, সুবোধ, সুচিন্তা, মূল্যবোধ সৃষ্টি সর্বোপরি মানবীয় গুণে গুণান্বিত হওয়ার অন্যতম প্ল্যাটফর্ম  বিশ্ববিদ্যালয়। 
এটি শুধু একটি জাতির জ্ঞান অর্জনের গুদামঘর নয়, এটি এমন একটি প্রতিষ্ঠান যা একটি জাতির ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দেশের ২৬ তম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় তার ১৮ বছরে পদার্পণ করছে। 
বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ ব্যাচের সাবেক ছাত্র হিসেবে ও দীর্ঘ ছয় বছরের শিক্ষকতার বদৌলতে আমি এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবান্বিত দিন, যেমন দেখেছি তেমনি কিছু কালো অধ্যায়েরও প্রত্যক্ষ সাক্ষী। 
নূর মোহাম্মদ রাজু
সহকারী অধ্যাপক, বাংলা বিভাগ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

গৌরব, সাফল্য, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির ১৭ বছর পেরিয়ে ১৮বছরে পদার্পণ করছে আমাদের প্রাণের বিদ্যাপীঠ। বিগত বছরগুলোতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় এগিয়েছে স্বমহিমায়। তবে উদ্ভাবন ও প্রতিযোগিতার এই যুগে নিত্য নতুন চ্যালেঞ্জে তৈরি হচ্ছে আমাদের সামনে। আগামীর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেখতে চাই অপার সম্ভাবনার উৎস হিসেবে, যেখানে প্রতিনিয়ত জ্ঞান চর্চা ও সৃষ্টির পাশাপাশি আমাদের শিক্ষার্থীরা প্রয়োজনীয় দক্ষতা ও যোগ্যতা অর্জন করতে পারে। প্রাণচাঞ্চল্য ও আত্মবিশ্বাসে ভরপুর নতুন সারথীদের নিয়ে সামনে অগ্রসর হবে আমাদের লাল মাটির ক্যাম্পাস । তাছাড়া যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতায় শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল কর্মকা-ের মাধ্যমে নবচেতনার উদয় ঘটবে প্রতিটি পদক্ষেপে। আমাদের মনে রাখতে হবে যে বিশ্ববিদ্যালয় শুধু গ্র্যাজুয়েট তৈরির জায়গা নয় বরং এটি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখান থেকে সমাজ ও রাজনীতি সচেতন, দায়িত্বশীল নাগরিকদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ বের হয়ে থাকে। 
তারিন বিনতে এনাম
প্রভাষক, ইংরেজি বিভাগ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের একজন ছাত্র থেকে শিক্ষক হতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের অর্থাৎ বিশ্ববিদ্যালয় চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলাম। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করা, তাত্ত্বিক জ্ঞানের পাশাপাশি ব্যবহারিক জ্ঞানের পরিস্ফুটন, শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতাবৃদ্ধি, সহশিক্ষা কার্যক্রমে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণসহ শিক্ষার্থীদের মানবিক মূল্যবোধ সৃষ্টিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে বলে আমি মনে করি। ২০০৬ সালের সমকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠিত অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রগতি প্রশংসাতুল্য। যা ইতোমধ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমের শিরোনামে উঠে এসেছে। প্রাচীন শিক্ষানগরী হিসেবে কুমিল্লা অতি পরিচিত ও ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে শিক্ষার্থীরা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে পছন্দের শীর্ষে রাখে। 
মাহফুজুর রহমান
সহকারী অধ্যাপক, মার্কেটিং বিভাগ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং এই বিভাগের একজন শিক্ষক হিসেবে আমি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেশের সর্বোপরি বিশ্বের শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠগুলোর মধ্যে একটি হিসেবে দেখতে চাই। যেখানে ছাত্র-শিক্ষক সম্মিলিত প্রয়াসে উন্নতমানের চিন্তা, গবেষণা ও উদ্ভাবনী শক্তির মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে অনন্য ভূমিকা পালন করবে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যাতে তাদের অর্জিত শিক্ষা, জ্ঞান ও দক্ষতার বাস্তবিক প্রয়োগ করতে পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় সকল অবকাঠামো বিদ্যমান থাকবে। তাছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও গবেষণার পাশাপাশি নৈতিক চর্চার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা নিজেদের সচেতন, সৎ ও দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে। 
কাশমী সুলতানা
প্রভাষক, আইসিটি বিভাগ
কুমিল্লা, বিশ্ববিদ্যালয়।

×