ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২৬ জুন ২০২৪, ১৩ আষাঢ় ১৪৩১

প্রথম প্রান্তিকের মুনাফায় চমক রূপালী ব্যাংকের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:৫৩, ১ জুন ২০২৩

প্রথম প্রান্তিকের মুনাফায় চমক রূপালী ব্যাংকের

নতুন বছরের প্রথম প্রান্তিকে মুনাফা প্রায় আড়াইগুণ বেড়েছে পুঁজিবাজারে

নতুন বছরের প্রথম প্রান্তিকে মুনাফা প্রায় আড়াইগুণ বেড়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রাষ্ট্র মালিকানাধীন রূপালী ব্যাংক লিমিটেডের। একই সঙ্গে ব্যাংকের পরিচালন মুনাফাও বেড়েছে ৪ গুণের বেশি। ব্যাংকটির চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৩১ মার্চ ২০২৩ সময়ে প্রকাশিত অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে। যা মঙ্গলবার কোম্পানিটির সর্বশেষ পর্ষদ সভায় অনুমোদন করা হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ডিএসই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যে, জানুয়ারি ২০২৩ থেকে ৩১ মার্চ ২০২৩ সময়ে ব্যাংকটির কনসুলেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৮ পয়সা। 
এর আগের বছর ২০২২ সালের একই সময়ে ইপিএস ছিল ২১ পয়সা। এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩০ পয়সা যা গতবছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি ছিল মাত্র ১২ পয়সা। অর্থাৎ ২০২২ সালের তুলনায় ২০২৩ সালে ১৮ পয়সা ইপিএস বেড়েছে বা প্রায় আড়াইগুণ মুনাফা বেড়েছে। এছাড়া আলোচিত সময়ে ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা বেড়েছে প্রায় ১০১ কোটি টাকা। 
গত বছরের প্রথম প্রান্তিকে পরিচালন মুনাফা ছিল ৩১.৮১ কোটি টাকা। এ বছর রূপালী ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা হয়েছে ১৩২ কোটি ৭১ লাখ টাকা। এক বছরের ব্যবধানে মুনাফা বেড়েছে ৪ গুণের বেশি। ব্যাংকের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, মূলত সুদ আয় এবং আদায় বাড়ায় ব্যাংকটি প্রথম প্রান্তিকে এই মুনাফা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। সরকারি ব্যাংকগুলো নিয়ে যখন চারদিকে নানা নেতিবাচক খবর তখন রূপালী ব্যাংকের এই অর্জন ব্যাংকগুলোর প্রতি সাধারণ জনগণ ও বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়াতে সক্ষম হবে বলে মনে করছেন খাত সংশ্লিষ্টরা। 
পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা মনে করেন, রাষ্ট্র মালিকানাধীন অন্য ব্যাংকগুলোও দ্রুত তালিকাভুক্ত করা উচিত। এতে করে তারাও জবাবদিহিতার আওতায় আসবে এবং রূপালী ব্যাংকের মতো ভালো করার তাগিদ অনুভব করবে। তারা এই অর্জন ধরে রাখার জন্য ব্যাংকটির পর্ষদ এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকের প্রতি আহ্বান জানান। 
এর আগের বছর অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর ২০২২ সালে ব্যাংকের কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছিল ২৮ কোটি ৩৪ লাখ ৬৫ হাজার ২৯৫ টাকা। মুনাফা বাড়ায় জানুয়ারি থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি নীট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩৬ টাকা ৭৭ পয়সা। ১৯৮৬ সালে তালিকাভুক্ত ব্যাংকটি সর্বশেষ ২০২১ সালে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। 
তবে ২০২০ সালে শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছিল। বুধবার কোম্পানির শেয়ার সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে ২৫ টাকা ২০ পয়সায়।

×