ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১

চাই কল্যাণময় রাজনীতি

প্রকাশিত: ০৬:১৩, ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮

চাই কল্যাণময় রাজনীতি

মানুষের কল্যাণের রাজনীতি দিয়ে শুরু হোক নতুন বছর। ২০১৮ এর ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনকে ঘিরে দেশকে প্রতিবারই কোন না কোন সংঘাতের মুখোমুখি হতে হয়। এই সংঘাত থেকে মুক্তি পাওয়ার পথ হলো দেশের মানুষের মাঝে সৌহার্দ্য ও শান্তি স্থাপন। মানুষের মধ্যে বিভিন্ন মত ও সেই মতের পার্থক্য থাকবে কিন্তু মতপার্থক্য মানে জাতিতে বিভক্তি নয়। একটি কল্যাণমুখী রাষ্ট্র গড়ে তুলতে হলে জনগণের মধ্যে শান্তি ও শৃঙ্খলা আনয়ন জরুরী। ২০১৯ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতার ৪৮তম বছরে পদার্পণ করবে। গরিব-দুঃখী মানুষের একটি কল্যাণমুখী রাষ্ট্র এই ২০১৯ সালেই প্রতিষ্ঠিত হবে বলে প্রত্যাশা করি। বাংলাদেশে ধনী লোকের আরও ধনী হওয়া নয়, গরিব মেহনতী মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির পথ দেখানোই ২০১৯ সালে লক্ষ্য হওয়া উচিত। এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রতিটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে একটি সুষম বণ্টনের রাষ্ট্রের জন্য এক হতে হবে। গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিতের মাধ্যমে দেশের প্রতিটি মানুষের মত প্রকাশের স্বাধীনতার মধ্য দিয়েই সেই সুষম বণ্টনের রাষ্ট্রের পরিবেশ নিশ্চিত করা সম্ভব। দেশে যে কোন রকম অগ্রহণযোগ্য পরিবেশ দেশের উন্নয়ন ও সমাজের মানুষের সুষ্ঠুভাবে চলাচলের পরিবেশকে বাধাগ্রস্ত করে। যেই লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে ১৯৭১ এ মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম সংঘটিত হয়েছিল বাংলাদেশে সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে প্রথমেই বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশকে সুসংহত রাখা দরকার। অগণতান্ত্রিক পরিবেশ কোন সময়ই স্বাধীনতার সেই লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে বাস্তবায়ন করতে দেবে না। তাই আমাদের উচিত হবে কিভাবে সেই লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে সেই দিকটাকে ঠিক করা। ঢাকা কলেজ, ঢাকা থেকে
×