মঙ্গলবার ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

‘এ যেন বন্ধুত্ব পরায়ণ বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি’

‘এ যেন বন্ধুত্ব পরায়ণ বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি’
  • অরুণিমায় অতিথি পাখির সাথে দেশি পাখির মিতালি
  • হাজারো পাখির কলকাকলিতে মুখরিত অরুণিমা

নিজস্ব সংবাদদাতা, নড়াইল ॥ অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্যময় পরিবেশ আর বিনোদনের আধুনিক সকল সুযোগ-সুবিধায় সন্তুষ্ট ভ্রমণপিপাসুরা। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় নাম জানা, না-জানা অসংখ্য পাখির কলরব। এই ‘অরুনিমা’ দেশের একমাত্র এগ্রো-ইকো-রিভারাইন-স্পোর্টস পর্যটন কেন্দ্র। চারিদকে শুধু পাখি আর পাখি। যতদুর চোখ যায় শুধুই পাখির ওড়াউড়ি। হাজারো পাখির কিচিরমিচির শব্দ আর ডানামেলার দৃশ্যপট মুগ্ধ করবে যে কাউকেই। গাছের ছায়ায় পাখির মায়ায় আবেগে আপ্লুত হবেন সবাই। বলছি-অরুণিমা রিসোর্ট অ্যান্ড গলফ ক্লাবের কথা।

এখানে অতিথি পাখির সাথে দেশি পাখির মিতালি, এ যেন বন্ধুত্ব পরায়ণ বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি। অরুণিমার সুবাধে আশেপাশের গ্রামগুলোও এখন পাখিগ্রামে পরিণত হয়েছে। বিশাল এলাকাজুড়ে পাখির নিরাপদ অভয়াশ্রমে পরিণত হয়েছে। শীত মওসুমের শুরুতেই বিভিন্ন প্রজাতির অতিথি (বিদেশি) ও দেশি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত নড়াইলের নড়াগাতী থানার পানিপাড়ার অরুণিমা রিসোর্টসহ আশেপাশের গ্রামগুলো। এক যুগ (১২ বছর) ধরে এখানে অতিথি পাখির সাথে দেশি পাখির বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয়েছে। সূর্য্যমিামা ওঠার সময় পাখি যেমন অরুণিমার নীড় ছেড়ে যায়, তেমনি বিকেল ৪টা গড়ালেই ঝাঁকে ঝাঁকে ফিরে আসে তাদের সেই (অরুণিমা) আবাসস্থলেই।

তখনই শুরু হয় ভালোলাগা, ভালোবাসার প্রতিক্ষণ। এরই মধ্যে দলধরে এক রঙের পাখি আকাশে উড়ে বেড়ায়। অনেক দল অরুণিমার লেকের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা গাছগুলোতে বসে ডানা ঝাপটায়। এসব দৃশ্য সত্যিই ভালোলাগার, বর্ণনাতীত। পাখি দেখার পাশাপাশি অরুণিমার প্রায় ৫২ একর বিশাল জায়গা জুড়ে গাছপালা, ফুল ও প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করেন পর্যটকরা। করোনার ধাক্কা কাটিয়ে প্রায় দুই বছর পর পর্যটকরা ছুটে এসেছেন এখানে। গাছের ছায়ায় পাখির মায়ায় মুগ্ধ সবাই। এছাড়া এই পর্যটন কেন্দ্রে যোগ হয়েছে আন্তর্জাতিক মানের গলফ মাঠ। দেশী-বিদেশী পর্যটকদের আগমনে অনুন্নত পানিপাড়ায় লেগেছে উন্নয়নের ছোঁয়া। পর্যটকদের বিনোদনের পাশাপাশি সৃষ্টি হয়েছে নারী-পুরুষের কর্মসংস্থানের। ফলে সরকার আয় করছে প্রচুর রাজস্ব।

পাখিদের স্বর্গরাজ্য

সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় মুক্ত আকাশে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়তে থাকে অতিথি পাখির দল। একই সঙ্গে থাকে সাদা ডানায় উড়তে থাকা বকের দল। পাখির ডাকে মুখরিত হয় চারদিক। সাধারণত শীতের শুরুতে সুদূর সাইবেরিয়া থেকে বাংলাদেশে আসতে শুরু করে অতিথি পাখি। কিন্তু এ বছর শীত মৌসুম শুরুর আগেই নড়াইলের অরুনিমা রিসোর্ট গল্ফ ক্লাব পরিণত হয়েছে পাখিদের আবাস ভূমিতে। এয়াড়া, বছরে প্রায় ৮/৯ মাস অতিথি পাখি এবং সারা বছরই এখানে দেশী পাখি দেখতে পাওয়া যায়। নড়াইল জেলা শহর থেকে প্রায় ৩৭ কিলোমিটার দূরে কালিয়া উপজেলার নড়াগাতী থানার পানিপাড়া গ্রামে প্রায় ৫০ একর জমির ওপর গড়ে উঠেছে বাংলাদেশের অন্যতম নেচারবেজ পার্ক অরুনিমা রিসোর্ট গল্ফ ক্লাব। বিগত ৭-৮ বছর ধরে ডিসেম্বর/ জানুয়ারি মাসে সাইবেরিয়া থেকে এখানে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি আসে, এ সময় এদের সঙ্গে থাকে দেশী সাদা বক, কানি বক, শালিক ও ফিঙ্গেসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি। এরা দল বেঁধে সারাদিন খাদ্যের সন্ধানে পার্কের বাইরে ওড়াউড়ি করলেও বিকেলে ফিরে আসে নিরাপদ আশ্রয় এই পার্কে। তখন আকাশের বুক চিরে পাখিদের মধুর কলরব সবাইকে মুগ্ধ করে তোলে। সন্ধ্যায় পার্কের প্রায় প্রতিটি গাছ নেচে ওঠে সাদা বক আর অতিথি পাখির ডাকাডাকির ছন্দে। পাখি দেখতে আসা এবং পার্কে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা জানালেন, তাদের অনুভূতির কথা। পাখি দেখে তাদের মধ্যে অন্য রকম ভাললাগার কথা বললেন সকলেই।

কৃষিভিত্তিক ও পরিবেশবান্ধব

সবুজ ছায়াঘেরা বনায়নে অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্যময় পরিবেশে ৫০ একর জমির ওপর গড়ে উঠেছে অরুনিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাব। যা অরুনিমা ইকোপার্ক নামেও পরিচিত। বলা যেতে পারে, এটি একটি ফুল ও ফলের বাগান। আবার একে বৃহৎ একটি মাছের খামারও বলা যায়। বিনোদনপ্রিয় মানুষের জন্য এখানে রয়েছে পিকনিকের ব্যবস্থা। মনে হবে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে আবহমান গ্রাম-বাংলার চিরচেনা রূপ আর আধুনিকতার সুপরিকল্পিত সমন্বয়ে সাজানো হয়েছে অরুনিমাকে। এ যেন মনের মাধুরী মেশানো স্বপ্নপুরী। এর প্রবেশ পথেই দেখা যাবে প্রচুর ঝাউগাছ। দেখে মনে হবে এরা যেন সারিবদ্ধভাবে আগন্তুককে অভ্যর্থনা জানাতে দাঁড়িয়ে আছে। হাজার হাজার ফুল ও ফলের চারাসহ বনজ ও ওষুধি বৃক্ষের চারা রোপণ করে সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ সৃষ্টি।

যেমন রয়েছে আম, কাঁঠাল, লিচু, নারকেল, চেরি, স্টার আপেল, জলপাই, পেঁপে, কুলসহ অসংখ্য ফলের গাছ; তেমনি রয়েছে ডেফোডিল, ক্যামেলিয়া, লিলি, কুমারী পান্থ, পদ্ম, নীলপদ্ম, রঙ্গন, কাঞ্চন, দুই শ’ প্রজাতির গোলাপ, মার্বেল টাস্ক, টগর, গ্যালাডুলাসসহ হরেক রকম ফুলের গাছ, যেগুলো পর্যটন কেন্দ্রের শোভাবর্ধনসহ প্রাকৃতিক রূপ এনে দিয়েছে। অরুনিমার অভ্যন্তরে তিন একরের সবুজ মেহগনির বাগান যেন পরিণত হয়েছে সবুজ পাহাড়ে।

এক একরের ঝাউবন, ৬৪৭ আম্রপালি গাছের বাগান, ৫ কাঠার গোলাপ বাগান ও ১ হাজার ৪শ’ প্রজাতির ফলদ, বনজ ও ওষুধি বৃক্ষ রয়েছে এখানে। ৬৬ বিঘা জমি নিয়ে রয়েছে ১৯টি বিশালাকৃতির পুকুর, যা পর্যটকদের আকৃষ্ট করে দারুণভাবে। এসব পুকুরে রুই, কাতলা, মৃগেল, পাঙ্গাস, চিংড়ি, বোয়াল, কইসহ অর্ধ-শতাধিক প্রজাতির মাছ চাষ করে আয়ও হচ্ছে লাখ লাখ টাকা।

কাছেই ঐতিহাসিক নিদর্শন

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই কান্ট্রি সাইড ঘিরে রয়েছে নানা ঐতিহাসিক নিদর্শন। এখান থেকে মাত্র ১২ কিলোমিটার পশ্চিমে কালিয়া উপজেলা শহরে রয়েছে বিশ্ব খ্যাত সেতারবাদক রবি শংকর ও নৃত্যশিল্পী উদয় শংকর ভ্রাতৃদ্বয়ের জন্মস্থান, কিংবদন্তি চিত্রনায়িকা সুচিত্রা সেনের কৈশোরের স্মৃতি-বিজড়িত দৌহিত্র ভবানী সেনের বসতবাড়ী এবং সেখানে রক্ষিত কয়েক শ’ বছরের পুরনো ২শ’ মণ ওজনের পিতলের রথ-মন্দির। প্রায় দুই কিলোমিটার পূর্ব-পশ্চিমে নবগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত শুকতাইল গ্রামে হাজার বছরের স্থাপত্য নিদর্শন শুকতাইল মাঠ, যা প্রায় ১৭শ’ বছর পূর্বে সম্রাট অশোকের শাসনামলে নির্মিত বলে লোকমুখে প্রচলিত আছে। এছাড়া ৩০ কিলোমিটার পশ্চিমে নড়াইল জেলা শহরের মাছিমদিয়া গ্রামে বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের বসতবাড়ি। সেখানে তিনি শিশুদের জন্য নিজ হাতে গড়ে তুলেছেন শিশুস্বর্গ।

এই পর্যটন কেন্দ্রে যেভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকা থেকে অরুনিমায় আসার সহজ একটি পথ রয়েছে। বিশ্বরোডে মাওয়া-ভাঙ্গা-ভাটিয়াপাড়া হয়ে গোপালগঞ্জের চন্দ্রদীঘলিয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে হাতের ডানে কিছু দূর গিয়ে বরফা ফেরিঘাট পার হলেই স্বপ্নপুরী ইকোপার্ক। আসতে সময় লাগবে সাড়ে তিন থেকে চার ঘণ্টা। খুলনা ও যশোর থেকে নড়াইলের কালিয়া হয়ে এখানে যেতে সময় লাগে প্রায় তিন ঘণ্টা। এছাড়াও নড়াইলের লোহাগড়া হয়ে মহাজন বাজার থেকে নবগঙ্গা ও মধুমতি নদী ফাইবার বোটে পাড়ি দিয়ে ইকোপার্কে যাওয়া যায়। মহাজন থেকে নবগঙ্গা নদী পার হয়ে বড়দিয়া বাজার থেকে ভ্যান, মোটরসাইকেল বা নছিমনযোগেও ইকোপার্কে যাওয়া যায়। আরেকটি পথ রয়েছে সেটি হলো- গোপালগঞ্জ শহর-সংলগ্ন মানিকদাহ ফেরিঘাট পার হয়ে নড়াইলের কালিয়ায় অবস্থিত উপমহাদেশের বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী উদয় শংকর ও সেতারবাদক রবি শংকরের স্মৃতিবিজড়িত বাড়ি ঘুরেও সেখানে সহজে পৌঁছানো যায়। এখানে আগত বিনোদনপ্রিয় পর্যটকদের জন্য রয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

খুলনা থেকে অরুণিমা রিসোর্টে ঘুরতে আসেন সরকারি বিএল কলেজের দর্শন শেষবর্ষের শিক্ষার্থী খাদিজা খাতুন তন্বী। তিনি জানান, প্রকৃতির মাঝে আনন্দ উপভোগের অন্যতম স্থান হচ্ছে অরুনিমা। প্রকৃতির সব সৌন্দর্যই এখানে আছে। ঢাকা থেকে ঘুরতে আসা সাংবাদিক মুজাহিদ শুভ বলেন, অরুণিমা রিসোর্ট হচ্ছে একের ভেতর শত অনুসঙ্গের সমাহার। পাখি ও প্রকৃতির টানে অরুণিমায় এসেছি। দ্বিতীয়বার আসা হলো এখানে। নাইম আবির বলেন, ভিডিও এবং ফটোগ্রাফি আমার শখ। অরুণিমার যেখানে দাঁড়াই, সেখানেই ছবিতোলার ফ্রেম হয়ে যায়। এখানে এসে কাছ থেকে পাখি দেখা সত্যিই আনন্দের। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের প্রযোজক (প্রডিউসার) মুহতাসিম বিল্লাহ বলেন, অনেক জায়গায় পাখি দেখার সুযোগ পেয়েছি। এক্ষেত্রে পর্যটকদের সাথে অরুণিমার পাখিগুলোর সখ্যতা বেশি যেন। এখানে অনেক মানুষের আনাগোনাসহ কাছ থেকে ছবি তোলা হলেও পাখিগুলো ভয়ে দিক-বেদিক ছোটাছুটি করে না। দুইবার আসা হলো এখানে।

অরুণিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাবের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইরফান আহমেদ বলেন, নিরাপদ অভয়াশ্রম হিসেবে এক যুগ ধরে দেশি-বিদেশি হরেক রকম পাখির বিচরণ এখানে। বিশেষ করে হরেক রকম অতিথি পাখির সাথে বকসহ বিভিন্ন প্রজাতির দেশি পাখির মিতালি, যেন বন্ধুত্ব পরায়ণ বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি। তাই অরুণিমাসহ আশেপাশের মায়াবী পরিবেশ পাখির নিরাপদ আবাসস্থল। করোনার ধাক্কা কাটিয়ে প্রায় দুই বছর পর পর্যটকরা আসছেন এখানে।

অরুণিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাবের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সদস্য খবির উদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রায় আট মাস যাবত অতিথি পাখিসহ সারাবছর দেশি পাখির আনাগোনা থাকে এখানে। পাখিদের নিরাপদ অভয়াশ্রম খ্যাত অরুণিমার সৌন্দর্য ও ঐহিত্য ধরে রাখতে গ্রামবাসীসহ রিসোট কর্তৃপক্ষ আন্তরিক ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। পাখি দেখার সুবিধার্থে সুবিশাল লেকের মাঝে এবার বোটআইল্যান্ড করা হয়েছে। এছাড়া লেকের পাশে দাঁড়িয়ে এবং বোটযোগে (নৌকা) কাছ থেকেই পাখির দেখার সুযোগ রয়েছে অরুণিমাতেই।

শীর্ষ সংবাদ:
জনগণের অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর         ডলারের দাম ১০২ টাকার বেশি         সিলেটে বন্যার আরও অবনতির আশঙ্কা         পদ্মা সেতুর টোল বাইক ১০০, কার ৭৫০ টাকা         ফের ১০ দিনের রিমান্ডে পি কে হালদার         হজ্ : শনিবার ব্যাংক খোলা থাকবে         দেশের বাজারে বাড়লো স্বর্ণের দাম         জাতি চায় পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার নামে হোক ॥ কাদের         ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা সরকারের অন্যতম লক্ষ্য: আইনমন্ত্রী         এমপিও ভুক্তির দাবিতে বেসরকারি কলেজের অনার্স-মাস্টার্স শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত         মিরপুর-২ এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ অনুমোদনবিহীন মোবাইল হ্যান্ডসেট জব্দ, আটক ৬         সোনারগাঁয়ে মেম্বার প্রার্থী জুতা পায়ে দিয়ে শহীদ মিনারে উঠে ফোটোসেশন         কোরবানিতে দেশের পশু দিয়েই চাহিদা পুরণ : প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী         বাধ্যতামূলক ছুটিতে ডিএসইর জিএম আসাদ         ক্ষমতা কমানো হলো পরিকল্পনামন্ত্রীর         বিআরটিএ অভিযান চালিয়ে গাড়ি থেকে খুলে নেওয়া হচ্ছে শব্দদূষণকারী হর্ন         ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটির উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন         গম রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা শিথিল করলো ভারত         ভোলায় বেইলি ব্রিজ ভেঙ্গে খালে ট্রাক-অটোরিকশা, আহত-৩