বৃহস্পতিবার ৭ মাঘ ১৪২৮, ২০ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বিধিনিষেধের সুযোগ নিতে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি

  • চাল আটা ভোজ্যতেলের দাম বেড়েছে
  • মার্কেট শপিংমল ও কাঁচাবাজারে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

এম শাহজাহান ॥ করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন মোকাবেলায় সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধের মধ্যেও মার্কেট শপিংমল ও কাঁচাবাজারে বেচাবিক্রি হচ্ছে আগের মতো স্বাভাবিক ভাবেই। ভোগ্য ও নিত্যপণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলেও বিধিনিষেধের সুযোগ নিয়ে আরেক দফা চাল, আটা, মসুর ডাল ও ভোজ্যতেলের দাম বাড়িয়েছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। পণ্যের দাম বাড়তে অসাধু ব্যবসায়ীরা তৎপর হয়ে উঠছেন। মার্কেট, শপিংমল, বিপণি বিতান শো-রুমগুলোতে ক্রেতাদের উপস্থিতি আগের মতো থাকলেও মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার তেমন দেখা যায়নি। বেশিরভাগ ক্রেতা-বিক্রেতার মুখে কোন মাস্ক ব্যবহারের বালাই ছিল না। এতে করে স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবারের মতো সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার সকাল থেকে কাঁচা বাজারে উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। নগরবাসীর একটি বড় অংশ ভোগ্যপণ্যের বাড়তি কেনাকাটা করেছেন। এতে করে বাজারে অতিরিক্ত চাহিদা তৈরি হওয়ার কারণে কোন কোন ভোগ্যপণ্যের দাম ইতোমধ্যে বেড়ে গেছে।

জানা গেছে, চলমান বিধিনিষেধের সুযোগ নিতে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি বাড়ছে। বিশেষ করে যারা ভোগ্যপণ্যের ব্যবসায়ী তারা নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানোর লক্ষ্যে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করছেন। নানা অজুহাত দেখিয়ে পণ্যের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম হ্রাস পাওয়ার পরও ভোজ্যতেলের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন রিফাইনাররা। দাম বাড়াতে সরকারের অনুমতি না থাকলেও তা আমলে নেয়া হয়নি। ইতোমধ্যে ভোজ্যতেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। আগামী রমজান মাস সামনে রেখে চিনি এবং মসুর ডালের দাম বাড়ানোর কারসাজি হচ্ছে বলে আভাস পেয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এ কারণে ভোজ্যতেলের পাশাপাশি চিনি ও মশুর ডালের আমদানি বাড়ানোর নির্দেশনা রয়েছে সরকারের।

বাজার স্বাভাবিক রাখতে চলমান বিধিনিষেধের মধ্যে সব ধরনের পণ্যবাহী ট্রাক, লরি, কাভার্ডভ্যান এবং অন্যান্য পরিবহন সার্ভিস চালু রাখা হয়েছে। এরপরও চাল, আটা, ভোজ্যতেল ও মসুর ডালের মতো পণ্যের দাম বাড়ছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা ও পূর্বাভাস সেলের এক উর্ধতন কর্মকর্তা জনকণ্ঠকে জানিয়েছেন, বিধিনিষেধের মধ্যে ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ার কোন কারণ নেই। দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ খাদ্য ও ভোগ্যপণ্যের মজুদ রয়েছে। এর পাশাপাশি চলমান বিধিনিষেধের মধ্যে সব ধরনের পণ্যবাহী যানবাহন স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারছে। আমদানি-রফতানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখা হয়েছে। এছাড়া আমদানিকৃত ভোগ্যপণ্য বন্দরে দ্রুত খালাসের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সরকারের এসব উদ্যোগের কারণে ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়তে পারবে না। তবে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বিধিনিষেধের সুযোগ নিতে পারেন- এ বিষয়ে সজাগ রয়েছে মন্ত্রণালয়। এ রকম কিছু করা হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এদিকে, বিধিনিষেধের মধ্যে ভোগ্যপণের দাম বাড়ার তথ্য দিয়েছে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবি। সরকারী বাজার নিয়ন্ত্রণকারী এই সংস্থার মতে, বাজারে চাল আটা, মসুর ডাল, আমদানিকৃত পেঁয়াজ এবং মসলাপাতির দাম বেড়েছে। এর পাশাপাশি বাজারে ভোজ্যতেল, দেশী ও পাকিস্তানী লেয়ারখ্যাত লাল মুরগি, আদা ও রসুনের মতো পণ্যের দাম বাড়তির দিকে রয়েছে। কিছুটা কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম। আবার ডিমের দাম বেড়েছে। প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে-১৬০-১৭৫ টাকায়। সবজিবাহী ট্রাক ঢাকায় আগের মতো আসলেও দাম কমছে না। সাধারণত শীতের এই সময়ে প্রতিদিনই কমতে থাকে সবজির দাম। এবার বাজারে উল্টোচিত্র দেখা যাচ্ছে। শীতেও বেশি দাম দিয়ে সবজি কিনতে হচ্ছে ভোক্তাদের। করোনা মোকাবেলায় কঠোর বিধিনিষেধ ও লকডাউনের মতো কর্মসূচী না দিতে সম্প্রতি অনুরোধ করেছে ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই। ওই সংগঠনের সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন জনকণ্ঠকে বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতির কথা চিন্তা করে কঠোর বিধিনিষেধ ও লকডাউনের মতো কর্মসূচীতে যাওয়া ঠিক হবে না। এতে করে অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিতে পারেন। ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়ে যেতে পারে। অন্যদিকে যারা আমদানি-রফতানির ব্যবসা-বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত তারাও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন। এজন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনেই অর্থনৈতিক কর্মকান্ড স্বাভাবিক রাখতে হবে। কাপ্তান বাজারের পাইকারী ব্যবসায়ী আব্দুল খালিদ বলেন, বিধিনিষেধের মধ্যে এখনও জিনিসপত্রের দাম তেমন বাড়েনি। তবে সামনের দিকে দাম বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, সবেচেয়ে বেশি বেড়েছে মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা চালের দাম। কেজিতে ২-৪ টাকা বেড়ে খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকায়। এছাড়া মোটা স্বর্ণা ও চায়না ইরির চাল ৪৮-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরু মিনিকেট ও নাজিরশাইল চাল মানভেদে ৬৫-৭২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি খোলা আটা ২ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩৫-৩৮ এবং প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ৪২-৪৮ টাকায়, প্রতিকেজি মসুর ডালের দাম বেড়ে মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ১১০-১২৫ টাকায়। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিধিনিষেধের কারণে পাইকারি বাজারে দাম বাড়ার কারণে খুচরা বাজারে দাম বেড়ে গেছে। কাপ্তান বাজারের চাল ব্যবসায়ী হাজী নুরু জনকণ্ঠকে বলেন, গত কয়েক মাস ধরে চালের দাম একটু একটু করে বাড়ছে। করোনায় বিধিনিষেধের কারণে আরেকদফা বেড়েছে। তবে এটা সাময়িক। বিধিনিষেধ তুলে দেয়া কিংবা শিথিল করা হলে ফের দাম কমবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

মার্কেট শপিংমলে বেচাবিক্রি স্বাভাবিক ॥ বিধিনিষেধের মধ্যেও মার্কেট, শপিংমল এবং বিপণি বিতানে বেচাবিক্রি স্বাভাবিক রয়েছে। রাজধানীর গাউছিয়া, নিউমার্কেট, এ্যালিফ্যান্ট রোড, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স, যমুনা ফিউচার পার্ক, তালতলা সিটি কর্পোরেশন মার্কেট, শাহবাগ আজিজ মার্কেট, মৌচাক মার্কেটসহ ঢাকার ওয়ারী, বেইলি রোড, গুলিস্তান এলাকা ও মিরপুর রোডের পোশাকের শো-রুমগুলোতে বেচাবিক্রি হয়েছে আগের মতো। ক্রেতা সমাগম হচ্ছে যথেষ্ট। তবে পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। ব্যবসায়ীরা বলছেন, ক্রেতাদের সতর্ক করার পরও অনেকে মাস্ক ছাড়া শো-রুম ও দোকানে ঢুকে পড়ছেন। কিন্তু তাকে বের করে দেয়া যাচ্ছে না। এজন্য সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বেশি ভূমিকা পালন করতে হবে। ঢাকার নিউ মার্কেটের ব্যবসায়ী ফরিদ হাসান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাটে বেচাবিক্রি করা হচ্ছে। ক্রেতা সমাগম ভাল হওয়ায় ব্যবসায়ীদের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করছে। ওয়ারীর গ্রামীণ ইউনি ক্লো’র শো-রুম বিক্রয়কর্মী শারমিন সুলতানা জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তারা বেচাবিক্রি করছেন। তবে অনেক ক্রেতা মাস্ক ছাড়াই শো-রুমে চলে আসছেন। তাদের বের করে দেয়া যাচ্ছে না। মাস্ক পরার জন্য ক্রেতাদের অনুরোধ করা হচ্ছে।

শীর্ষ সংবাদ:
২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৪, শনাক্ত ১০৮৮৮         ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলেই সাংবাদিককে গ্রেফতার নয়, ডিসিদের আইনমন্ত্রী         সন্ত্রাসীরা অস্ত্র তুললেই ফায়ারিং-এনকাউন্টারের ঘটনা ঘটে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ৪৩তম বিসিএস প্রিলির ফল প্রকাশ         ব্যাংকারদের বেতন বেধে দিলো বাংলাদেশ ব্যাংক         সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধে ডিসিদের নির্দেশ         শাজাহান খানের মেয়েকে বিয়ে করলেন এমপি ছোট মনির         শান্তিরক্ষা মিশনে র‍্যাবকে বাদ দিতে জাতিসংঘে চিঠি         আইপিটিভি-ইউটিউবে সংবাদ পরিবেশন করা যাবে না ॥ তথ্যমন্ত্রী         মগবাজারে দুই বাসের প্রতিযোগিতায় প্রাণ গেল কিশোরের         নদীদূষণ ও দখলরোধে ডিসিদের আরও তৎপর হতে নির্দেশ         আইসিসি বর্ষসেরা ওয়ানডে দলে টাইগারদের দাপট         হাইকোর্টে আগাম জামিন পেলেন তাহসান         ‘সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের একসঙ্গে কাজ করার বিকল্প নেই’         ঠিকাদারি কাজে এফবিআই’র সাজাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান!         এক সপ্তাহে করোনা রোগী বেড়েছে ২২৮ শতাংশ         যুক্তরাষ্ট্রে ফেডারেল কোর্টের প্রথম মুসলিম বিচারক হচ্ছেন বাংলাদেশি নুসরাত         সস্ত্রীক করোনা আক্রান্ত প্রধান বিচারপতি, হাসপাতালে ভর্তি         ‘স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে শহীদ আসাদ একটি অমর নাম’         ‘শহীদ আসাদের আত্মত্যাগ সবসময় প্রেরণা জোগাবে’