রবিবার ১০ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নতুন বছরে নতুন শিশু

নতুন বছর ২০২২ সালের প্রথম দিন প্রায় ৬০ হাজার নবজাতককে স্বাগত জানিয়েছে ভারত। যা বিশ্বের অন্য যে কোন দেশের তুলনায় অনেক অনেক বেশি। ভারতের পিছনে রয়েছে চীন, নাইজিরিয়া ও পাকিস্তান। বাংলাদেশে বছরের প্রথম দিন নতুন শিশুর জন্ম ৯,২৩৬। নতুন শিশুর স্বর্গীয় হাসি পৃথিবীর মানুষ দেখে থাকে প্রতিদিনই। ‘কুসুম ঝরিয়া পড়ে, কুসুম ফুটে’। রবিবাণীর গূঢ় অর্থ অনুধাবনে স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে জীবনের নিয়মই এই প্রবহমানতা। একদিকে মৃত্যুতে জীবনাবসান ঘটে, অন্যদিকে নতুন কুঁড়ির জন্ম হয়। আমাদের পিতৃপুরুষেরা যেমন আর এই ইহজগতে নেই, তারা অনুপস্থিত হয়ে গেছেন, তেমনি উত্তরপুরুষেরা তথা উত্তারাধিকার আগামী দিনের আগন্তুক। ধারাবাহিক ভাবেই তাদের আগমন। নতুন শিশু জন্ম নেবে, আবার ওই শিশুই একদিন হবে জন্মদাতা। ‘ঘুমিয়ে আছে শিশুর পিতা সব শিশুরই অন্তরে।’ এসেছে নতুন সময়, নতুন বছর। বছরের প্রথম দিনই এই বঙ্গদেশে প্রকৃতির নিয়মে নতুন শিশুর জন্ম হয়েছে। বিশ্বব্যাপীই এই মহামারীর সঙ্কটের ভেতর নতুন শিশুর জন্মলাভ ঘটেছে।

আমাদের দেশে যদি বছরের প্রথম দিনের মতো জন্মহার অব্যাহত থাকে তবে তিন বছরের কম সময়ের মধ্যে জাতীয় জনসংখ্যায় যোগ হবে বহু শিশু। এই বাস্তবতা আমাদের সামনে প্রধান যে দুটি প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয় তার প্রথমটি হলো সত্যি কি আগামীতে এই জনবিস্ফোরণ জনসম্পদে পরিণত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করবে? প্রতিটি মানবজন্মকে অর্থপূর্ণ করে তুলতে হলে প্রত্যেকের জন্য চাই মৌলিক মানবিক প্রয়োজন পূরণের সার্বিক সুব্যবস্থা। সীমাবদ্ধ আয়তনের একটি ভূখন্ডে প্রত্যেকের জন্যে নিদেনপক্ষে আবাসন ও খাদ্য নিশ্চিত করার পরিস্থিতি সত্যিকারার্থেই বিদ্যমান কিনা, সেটি ভেবে দেখা জরুরী। পরিবারের সুখ ও সমৃদ্ধির প্রয়োজনে একদা যে পরিবার পরিকল্পনার কার্যক্রম বেগবান করে তোলা হয়েছিল ক্রমান্বয়ে তাতে ভাটা পড়েছে। আগামীতে জন্মনিয়ন্ত্রণের মতো বাস্তবসম্মত বিচক্ষণ সিদ্ধান্তের দিকে আমাদের যাওয়া সমীচীন হবে কিনা সেটি নীতিনির্ধারকদেরই বিষয় বটে। তবে শিক্ষিত ও আধুনিক দম্পতি স্বউদ্যোগেই সর্বদা পরিবারের সদস্যসংখ্যা সীমিত রাখেন।

কবিরা হোন সত্যদ্রষ্টা, মানবসমাজের গূঢ় গহীন বক্তব্য তাদের বাণীতে উঠে আসে। কবির বক্তব্যের মর্মকথা হলো একটি নতুন শিশুর এই পৃথিবীতে ছাড়পত্র তখনই অর্থবহ হবে যখন পূর্বসূরিরা প্রাণপণে পৃথিবীর জঞ্জাল সরাতে সমর্থ হবেন। আজকের বাস্তবতায় নতুন শিশুর জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী রচে যেতে হলে মানবসমাজকে শত হাজার বছরের সামনের টালমাটাল দিনগুলোর কথা বিচক্ষণতার সঙ্গে বিশ্লেষণ করে সেই পথরেখা নির্মাণ করায় ব্রতী হতে হবে। তাতে জাতিতে জাতিতে ঐক্য ও সহমর্মিতা বাড়াতে হবে। প্রাকৃতিকভাবে শিশুর জন্ম দেয়ার তুলনায় সেই শিশুর সমগ্র জীবনকে সর্বাঙ্গীণ সুন্দর করে তুলবার অঙ্গীকার ও অভিজ্ঞান যে সুগভীর একটি ভাবনার বিষয়, সেটিই বছরের প্রথম দিনের শিশুজন্মের হার আমাদের সূক্ষ্মভাবে জানিয়ে গেল।

শীর্ষ সংবাদ:
শহীদ মিনারে ফুল দিতে গেলে টিকা সনদ বাধ্যতামূলক         খালেদার বিরুদ্ধে গ্যাটকো মামলার শুনানি পেছাল         মাদারীপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা ॥ প্রধান অভিযুক্ত গ্রেফতার         শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে রাবি শিক্ষকের নিরব প্রতিবাদ         সংসদে শাবি ভিসির অপসারণ দাবি ২ এমপির         ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নিহত ১         গত বছর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৭৮০৯         নির্বিচারে অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োগের ফলে মারাত্মক অসুখের ক্ষেত্রে এর কার্যকারিতা কমে যায়         চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রাক-মাহিন্দ্রা সংঘর্ষে নিহত ২         রাজশাহীতে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ৪৪.১৯%         ইউক্রেনে রুশপন্থি নেতাকে ক্ষমতায় বসাতে চায় মস্কো ॥ যুক্তরাজ্য         নড়াইলে হত্যা মামলায় এক ভাইয়ের ফাঁসি, অন্য ভাইয়ের যাবজ্জীবন         ১০১ টাকা কাবিন ধরা হল রাজ-পরীর বিয়েতে         প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করলেন সালমান         কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এসেছে একটি মৃত ডলফিন         চাটমোহরে মাঘের শীতে চলছে মাছ ধরা উৎসব         হাতিয়ায় ১৪০ মণ জাটকা জব্দ, এতিমখানায় বিতরণ         করোনার কারণে নিজের বিয়ের অনুষ্ঠান বাতিল করেছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী         মেয়াদ শেষে জেলা পরিষদে বসবেন প্রশাসক, বিল উত্থাপন         জনবান্ধব পুলিশিং করুন ॥ প্রধানমন্ত্রী