বুধবার ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চালের বাজার অস্থির করছে একই চক্র

চালের বাজার অস্থির করছে একই চক্র
  • গোয়েন্দা প্রতিবেদন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চালের বাজার অস্থিরতার পেছনে বার বার একই ব্যক্তিদের নাম আসছে। তারা সিন্ডিকেট করে চালের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রভাবশালী হওয়ায় ওই সিন্ডিকেটদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। এমনকি কোন ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নেয়াও যাচ্ছে না। গোয়েন্দা প্রতিবেদন জানা যায়, প্রভাবশালী সিন্ডিকেটটি হচ্ছে, দেশের চালের সর্ববৃহৎ মিল মালিক কুষ্টিয়ার আব্দুর রশিদ, নওগাঁর আলহাজ বেলাল হোসেন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের এরফান আলী। সারাদেশেই আছে তাদের সদস্য। এমনকি সিন্ডিকেটের সদস্যরা পাইকারি ও খুচরা বাজারের ব্যবসায়ীরাও। আর তাদের পেছনে কাজ করছে শক্তিশালী চক্র। সম্প্রতি এ ব্যাপারে সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা প্রতিবেদন জমা দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। এর আগেও একই ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দিয়ে ব্যবস্থা নিতে বলা হলেও নেয়া হয়নি কোন ধরনের ব্যবস্থা। এমন পরিস্থিতিতে সঠিক তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে গঠিত উচ্চপর্যায়ের বিভিন্ন কমিটির কার্যক্রম ও মনিটরিং গতিশীল করার সুপারিশ করা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, বেশ কিছুদিন ধরেই ধানের দাম কমলেও চালের বাজার আগের মতোই চড়া রয়েছে। বিশেষ করে চিকন চালের দর কেজিপ্রতি ৬-১০ টাকা বেড়েছে। মোটা চালের দাম বেড়েছে ২ থেকে ৪ টাকা পর্যন্ত। এতে সাধারণ মানুষ চরম বিপাকে পড়েছেন। ধানের জোগান স্বাভাবিক থাকলেও চালের বাজার চড়া হওয়ার নেপথ্য কারণ খুঁজতে গিয়ে বাজার সংশ্লিষ্ট ও গোয়েন্দারা এই বিশেষ সিন্ডিকেটের সন্ধান পেয়েছেন। গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে-এই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পরিকল্পিতভাবে ধানের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। পরে ধানের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে তারাই চালের দাম বাড়িয়েছে। কেবলমাত্র ব্যাপক চাহিদা থাকা মিনিকেট (চিকন চাল) চালের ক্ষেত্রে তারা এ কৌশল অবলম্বন করেছে। এ সুযোগে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা সব ধরনের চালের দাম বাড়িয়ে দিয়ে বাজার অস্থিতিশীল করেছেন। কিন্ত চালের দাম বাড়িয়ে কত টাকা সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিয়েছে সে বিষয়ে প্রতিবেদনে উল্লেখ নেই। প্রতিবেদনটি গত সপ্তাহে সরকারের উচ্চপর্যায়ে জমা দেয়া হয়েছে।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়েছে, চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে মনিটরিং ব্যবস্থা খুবই দুর্বল। এ দুর্বল মনিটরিং ব্যবস্থার সুযোগে অসাধু চাল ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফার আশায় সিন্ডিকেট করে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন। তাই চালের দাম মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে রাখার জন্য সরকার গৃহীত বিদ্যমান ব্যবস্থাগুলোকে গতিশীল করতে হবে। দাম নিয়ন্ত্রণে মিল মালিক, আড়তদার, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা কোনভাবেই যেন সিন্ডিকেট গঠন না করতে পারেন, সেদিকে নিরীক্ষণ ও নজরদারি বাড়াতে হবে। এছাড়া চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে গঠিত উচ্চপর্যায়ের বিভিন্ন কমিটির কার্যক্রম ও মনিটরিং গতিশীল করার সুপারিশ করা হয়েছে ওই গোয়েন্দা প্রতিবেদনে। এদিকে বিআইডিএসের জ্যেষ্ঠ গবেষক ড. নানজীন আহমেদ সম্প্রতি চালের বাজার নিয়ে এক গবেষণায় দাবি করেছেন, মজুদ আইন অনুযায়ী ধারণ ক্ষমতার পাঁচ গুণ ধান ৩০ দিন এবং দ্বিগুণ চাল ১৫ দিন পর্যন্ত মজুদ করা যায়। এটি মানছে কিনা তা মনিটরিং করতে হবে। দেশে মোট চালের ২০ শতাংশের মতো মজুদ করতে পারে বড় ৫০টি মিল। এখানে মনিটরিং জোরদার করতে হবে যাতে কোন মিলার বেশি সময় ধান বা চাল আটকে না রাখতে পারেন। ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে মিনিকেট চালের বাজার দর ছিল ৬৫-৬৮ টাকা। যা একমাস আগেও ছিল ৫৫-৫৮ টাকা। এ হিসাবে এক মাসের ব্যবধানে কেজি প্রতি দাম বেড়েছে অন্তত ১০ থেকে টাকা। মোটা চালের দাম বেড়ে হয়েছে ৫২ টাকা। যা কিছুদিন আগেও ছিল ৪৭ টাকা।

সংশ্লিষ্টদের মতে, দেশে চালের কোন ঘাটতি নেই। গত বোরো ও আউসের মৌসুমেও ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় রেকর্ড পরিমাণ চাল উৎপাদন হয়েছে। এখন মাঠে আছে আমন ধান। বন্যা না হলে আমনেও ভাল ফলনের আশা করছে কৃষি মন্ত্রণালয়। কিন্তু ইতিবাচক এত খবরের পরও অস্থির হয়ে উঠেছে চালের বাজার। বর্তমানে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি মোটা চালের দাম ৫২ টাকায় উঠেছে। এই দাম গত কয়েক বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। অন্য চালের দামও বাড়তি। ফলে এই করোনা মহামারীর মধ্যে বিপাকে পড়েছে স্বল্প আয়ের মানুষ। কারসাজি চক্রের কারণেই চালের দাম বাড়ছে। বেশি লাভের আশায় মিলার ও মজুদদাররা ধান, চাল মজুদ করে রেখেছে। ফলে চাহিদার তুলনায় বাজারে ধান-চালের সরবরাহ কম। এই সিন্ডিকেট এতটাই শক্তিশালী যে, চালের দাম কমাতে সরকার সারাদেশে ওএমএস চালু করলেও বাজারে তা কোন প্রভাব ফেলছে না। একাধিক চাল ব্যবসায়ী জানান, দেশে চালের সবচেয়ে বড় মোকাম কুষ্টিয়ার খাজানগর। কিছুদিন ধরেই এই মোকামসহ অন্যান্য মোকামেও চালের দর বাড়তি। ধানের ব্যাপক মজুদ গড়ে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করে দর বাড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ দেশের অটো রাইস মিলের মালিকসহ অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কুষ্টিয়ার খাজানগর মোকামে বর্তমানে ৫০ কেজির প্রতি বস্তা মিনিকেট চাল ২ হাজার ৮৫০ টাকা, বাশমতি ৩ হাজার ৩৫০ টাকা, কাজললতা ২ হাজার ৬০০ টাকা ও মোটা জাতের ব্রি-২৮ ও স্বর্ণা ২ হাজার ২৫০ থেকে ২ হাজার ৩০০ টাকা পাইকারি দরে বিক্রি হচ্ছে। যা গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে মণপ্রতি চালভেদে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি। অন্য মোকামের অবস্থানও একই। এর প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও।

শীর্ষ সংবাদ:
জান্তার দোসর আরসা ॥ প্রত্যাবাসন ঠেকাতে মিয়ানমারের নয়া কৌশল         আমরা ইচ্ছে করলেই পারি, সবই করতে পারি         ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আজ ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই টাইগারদের         চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে নৌকার প্রার্থী যারা         ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার নির্দেশ ॥ সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস         ইন্ধনদাতাদের নাম শীঘ্র প্রকাশ করা হবে         পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ, টিয়ার শেল         বন্ধুকে বিয়ে করলেন জাপানের রাজকুমারী মাকো         পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রদীপ-লিয়াকত ফোনালাপ, এসএমএস         চট্টগ্রামে ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পের দুটি পিলারে ফাটল         সংখ্যালঘু নির্যাতনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রয়োজন         কর্ণফুলী মাল্টিপারপাস শত শত কোটি টাকা হাতিয়েছে         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬         রফতানি পণ্যের উৎপাদন বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর         অপপ্রচার করাই বিএনপির শেষ আশ্রয়স্থল ॥ কাদের         ইউপি নির্বাচন : ৮৮ ইউনিয়নে নৌকার প্রতীক থাকছে না         সাক্ষ্য অইনের ১৫৫(৪) ধারা বাতিলে নারীর মর্যাদাহানি রোধ করবে : আইনমন্ত্রী         নিম্ন আয়ের পরিবারের সদস্যরা সরকারের সকল সেবা সম্পর্কে অবগত নয় : মেয়র খালেক         আন্দোলন থেকে সরে এলেন বিমানের পাইলটরা         ডেঙ্গু : হাসপাতালে ভর্তি ১৮২, মৃত্যু ১