রবিবার ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ১৩ জুন ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

অনলাইনে জুয়া খেলে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচার

  • লাইভ স্ট্রিমিং এ্যাপ ‘স্ট্রিমকার’

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাইভ স্ট্রিমিং এ্যাপ ‘স্ট্রিমকার’। এটি দেশের বাইরে থেকে পরিচালিত হয়। এই এ্যাপে বিন্স ও জেমস নামের দুটি ডিজিটাল মুদ্রা ব্যবহার করা হয়। এসব মুদ্রার বিনিময়ে সুন্দরী তরুণীদের সঙ্গে আড্ডার লোভ দেখিয়ে লোকজনকে কোটি টাকার জুয়ায় টেনে নেয়া হয়। এরপর এই এ্যাপ ব্যবহার করে দেশ থেকে বিপুল পরিমাণে অর্থ পাচার করেছে একটি চক্র। সম্প্রতি স্ট্রিমকার এ্যাপ ব্যবহার করে কোটি টাকা লেনদেনের তথ্য পেয়েছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। বুধবার রাতে আটক করা হয়েছে একটি চক্রের দুই সদস্যকে। এর আগে গত মে মাসেও একই অভিযোগে আটক করা হয় চার সদস্যকে। বৃহস্পতিবার দুপুরে মালিবাগ সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির সাইবার ক্রাইম কমান্ড এ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারের অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ কামরুল আহসান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে স্ট্রিমকার এ্যাপটি নিষিদ্ধ। ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) ব্যবহার করে এ দেশ থেকে এ্যাপটিতে যুক্ত হতেন ব্যবহারকারীরা। এ এ্যাপে দুই ধরনের আইডি রয়েছে। ইউজার বা ব্যবহারকারীর আইডি ও হোস্ট আইডি। হোস্ট আইডি ব্যবহার করেন তরুণীরা। লাইভ স্ট্রিমিংয়ে তাদের সঙ্গে আড্ডা দেয়ার প্রলোভনে এ্যাপে ঢোকেন সাধারণ ব্যবহারকারীরা। তার জন্য বিন্স নামে ভার্চ্যুয়াল মুদ্রা কিনতে হয় তাদের। সেই মুদ্রা উপহার হিসেবে দিয়ে আড্ডায় যুক্ত হতে পারেন ব্যবহারকারীরা। এই বিন্স হোস্টদের কাছে গেলে তা জেমস নামের ভার্চ্যুয়াল মুদ্রা হয়ে যায়। সঞ্চিত জেমসের পরিমাণের ওপর নির্ভর করে হোস্টদের আয়। এক লাখ বিন্স কিনতে ব্যবহারকারীদের দিতে হয় ১ হাজার ৮০ টাকা। অপরদিকে হোস্টদের ১ লাখ জেমসের দাম ধরা হয় ৬০০ টাকা। তবে হোস্টদের মাস শেষে বেতন পাওয়ার জন্য শুধু সঞ্চিত জেমসই যথেষ্ট নয়। তাদের প্রতিদিন ও প্রতি মাসে নির্দিষ্ট সময় লাইভ স্ট্রিমিংয়ে থাকতে হয়। বিন্স নামের ভার্চ্যুয়াল মুদ্রাটি সাধারণ ব্যবহারকারীরা কিছু এজেন্সির কাছ থেকে কিনে নেন। ওই এজেন্সিগুলো তা কিনে আনে বিদেশী এই এ্যাপের এ্যাডমিনদের কাছ থেকে। বিন্স দিয়ে ব্যবহারকারীরা লাইভ আড্ডায় যুক্ত হলে তাদের নানা কৌশলে জুয়া খেলায় টেনে নেয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, এই প্ল্যাটফর্মে বিভিন্ন অপরাধ পরিচালিত হওয়ার তথ্যের ভিত্তিতে সাইবার পুলিশ অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছিল। এই অনুসন্ধানে ১৫টি ব্যাংক এ্যাকাউন্ট থেকে বিপুল পরিমাণ তথ্য পায় সাইবার পুলিশ। এই এ্যাপের মূল টার্গেট যুব সমাজ ও বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীরা। গত ১৯ মে এন্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ) অভিযান চালিয়ে চারজনকে গ্রেফতার করে। পরে এদের বিরুদ্ধে সাভার থানায় মামলা করা হয়। যা সাইবার পুলিশ সেন্টার তাদের অধীনে নেয়। এই মামলার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তথ্য ও আগের অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টার (সিপিসি) বুধবার রাতে সিলেটের গোয়াইনঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে আরও দুইজনকে গ্রেফতার করে। তারা হলেন- নিধুরাম দাস, (২৭) ও ফরিদ উদ্দিন (৪০)।

সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ কামরুল আহসান বলেন, ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) ব্যবহার করে দেশ থেকে এ্যাপটিতে যুক্ত হতেন ব্যবহারকারীরা। এ এ্যাপে দুই ধরনের আইডি রয়েছে। ইউজার বা ব্যবহারকারীর আইডি ও হোস্ট আইডি। হোস্ট আইডি ব্যবহার করে বিশেষ কিছু চক্র এক ধরনের অপরাধ কার্যক্রম পরিচালনা করে। সেখানে তরুণীদের হোস্টিং করিয়ে বিভিন্ন উপায়ে অর্থ উপার্জন করা হয়।

লাইভ স্ট্রিমিংয়ে তাদের সঙ্গে আড্ডা দেয়ার প্রলোভনে এ্যাপে প্রবেশ করেন সাধারণ ব্যবহারকারীরা। তার জন্য বিন্স নামে ভার্চুয়াল মুদ্রা কিনতে হয়। সেই মুদ্রা উপহার হিসেবে দিয়ে আড্ডায় যুক্ত হন ব্যবহারকারীরা। টাকা সংগ্রহের বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, এই টাকা সংগ্রহ করা হতো বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকিং ও ব্যাংক এ্যাকাউন্টের মাধ্যমে। এই এজেন্সিগুলো তা কিনে নিতো বিদেশী এ্যাপের এ্যাডমিনদের কাছ থেকে। এরকম স্ট্রিমকারের অনেক এজেন্ট রয়েছে বাংলাদেশে। তারাই ডিজিটাল বা ভার্চুয়াল মুদ্রা কেনাবেচা করে। লক্ষাধিক বাংলাদেশী ব্যবহারকারী অনলাইন ব্যাংকিং, হুন্ডি, নেটেলার, স্ক্রিল ও বিদেশী একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ডিজিটাল মুদ্রা কিনছে। এর মাধ্যমে প্রতি মাসে বিপুল পরিমাণ টাকা পাচার হয়ে যাচ্ছে বলেও জানান সিআইডির এই কর্মকর্তা।

কামরুল আহসান বলেন, স্ট্রিমকার পরিচালনায় জড়িত প্রত্যেকের একাধিক ব্যাংক ও বিকাশ এ্যাকাউন্ট রয়েছে। গ্রেফতার নিধুরাম দাসের ব্যাংক ও বিকাশ এ্যাকাউন্টের মাধ্যমে গত এক বছরে ১০ কোটিরও বেশি টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া যায়। অন্যজন ফরিদ উদ্দিনের ব্যাংক ও বিকাশ এ্যাকাউন্টে প্রায় ৩ কোটি টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া যায়। গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও অনেকের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে এবং তাদের ব্যাংক ও বিকাশ এ্যাকাউন্টে গত এক বছরে প্রায় ৩০ কোটি টাকারও বেশি লেনদেনের তথ্য পাওয়া যায়। গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে লেনদেনে ব্যবহৃত ব্যাংকের চেক বই, ডেবিট কার্ড, বিকাশ এ্যাকাউন্ট নম্বর ও মোবাইল জব্দ করা হয়। জব্দকৃত মোবাইলে এসব বিষয়ে তথ্য পাওয়া যায় বলে জানান সিআইডির এই কর্মকর্তা।

শীর্ষ সংবাদ:
বিদেশী গরু নয় ॥ দেশী গরুতেই এবার কোরবানি         প্রার্থী মনোনয়নে শেখ হাসিনার চমক         বিতর্কের আরেক নাম সাকিব         বঙ্গোপসাগর উত্তাল, ৩ নম্বর সতর্কতা সঙ্কেত         বজ্রপাতে মৃত্যু ঠেকাতে সরকারের নতুন পরিকল্পনা         তিস্তার সেচে ৮০০ কোটি টাকার বোরো ধান উৎপাদন         দেশে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে         ব্রিটিশ রানীর জন্মদিনে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা         পুলিশ এখনও কোন রহস্য ভেদ করতে পারেনি         উপকূলীয় বাঁধ নির্মাণে ১৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দাবি         নারী ও শিশু পাচার রোধে কার্যক্রম জোরদারে গুরুত্ব         গ্রুপিং বাদ দিয়ে আগে নিজেদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে ॥ ফখরুল         চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য অর্জিত হচ্ছে না         কোম্পানীগঞ্জে সড়ক অবরোধ ॥ পুলিশের ওপর হামলা         করোনা : বাংলাদেশিদের হজে যেতে নিষেধাজ্ঞা         স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি টিআইবি’র মনগড়া প্রতিবেদন : স্বাস্থ্যমন্ত্রী         করোনা : দেশে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩৯         ৩ ম্যাচ নিষিদ্ধ সাকিব, জরিমানা ৫ লাখ         ‘নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করবে’         নাফ নদী থেকে অজ্ঞাত তিন লাশ উদ্ধার