রবিবার ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৯ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

‘বিদেশ যাত্রা’ নামে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম সেবা চালু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অভিবাসন সংক্রান্ত সব ধরনের তথ্য পেতে এবার আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘বিদেশযাত্রা’ নামে সেবা চালু করেছে। এই সেবার আওতায় রয়েছে, অভিবাসন প্রত্যাশী, বিদেশে অবস্থানরত অভিবাসী, বিদেশফেরত অভিবাসী এবং তাদের পরিবারের জন্য নিরাপদ অভিবাসন, টেকসই পুনরেকত্রীকরণ এবং রেমিটেন্স ব্যবস্থাপনাসহ প্রয়োজনীয় সব তথ্য সেবা দেয়া হবে। ‘বিদেশযাত্রা’ অনলাইন প্ল্যাটফর্ম তৈরিতে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন অর্থায়ন করেছে। আইওএম পরিচালিত প্রত্যাশা প্রকল্পের আওতায় এই প্ল্যাটর্ফমটি তৈরি করা হয়। বৃহস্পতিবার অনলাইনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন প্ল্যাটফর্মটি উদ্বোধন করেছেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইওএম বাংলাদেশের মিশন প্রধান গিওরগি গিগাওরিসহ আইওএম ও প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক মন্ত্রণালয় অভিবাসন এবং খাতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলা হয়, অভিবাসীরা বাংলাদেশের জন্য অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিনিয়োগের একটি। শুধু ২০১৯ সালে অভিবাসীরা বাংলাদেশে রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন ১৮ দশমিক ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। গত পাঁচ দশকে বাংলাদেশ এক কোটি ৩০ লাখ অভিবাসী কর্মী বিদেশে পাঠিয়েছে। সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে দেশের অভিবাসন খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করছে। বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর ৫ লাখের বেশি অভিবাসী কর্মী বিদেশে চাকরি নিয়ে যান। নিয়মিত, বিধিসম্মত এবং নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিতের লক্ষ্যে জাতিসংঘের অভিবাসন সংস্থা আইওএম বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করছে। এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে অভিবাসীবান্ধব তথ্য সেবা প্রদানে আইওএম তৈরি করেছে ‘বিদেশযাত্রা’নামক একটি মোবাইল এ্যাপ্লিকেশন ও একটি ওয়েবসাইট (যঃঃঢ়ং://নফবংযলধধঃৎধ.পড়স/) প্ল্যাটফর্ম। প্ল্যাটর্ফর্মটি তৈরিতে কারিগরি সহায়তা করেছে বিডিজবস।

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, অভিবাসন ব্যবস্থাপনা বাংলাদেশ সরকারের একটি অগ্রাধিকার খাত। অভিবাসী কর্মীদের নিরাপত্তা ও শোভন কর্ম অবস্থা নিশ্চিতে আমরা কাজ করে চলেছি। জাতীয় উন্নয়নে অভিবাসী কর্মীদের অবদান আমাদের জন্য মূল্যবান। দেশের প্রত্যেক উপজেলা থেকে প্রতি বছর এক হাজার কর্মীকে বিদেশ পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। অভিবাসন প্রক্রিয়ায় শোষণ, ঋণ সংক্রান্ত জটিলতা, বৈষম্য ও নির্যাতন প্রতিরোধে নিরাপদ অভিবাসন, পুনরেকত্রীকরণ এবং রেমিটেন্স ব্যবস্থাপনা বিষয়ক তথ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তথ্যনির্ভর সিদ্ধান্ত নিতে অভিবাসীদের সহায়তা করতে ‘বিদেশযাত্রা’ একটি সময়োপযোগী উদ্যোগ। বিদেশে চাকরি নিয়ে যারা যাবেন, তাদের দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য বেশ কিছু বড় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ২ লাখ দক্ষ গাড়িচালক তৈরি করার প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। আগামীতে বাংলাদেশ অদক্ষ কোন কর্মী বিদেশে পাঠাবে না। দক্ষ কর্মীই বিদেশে চাকরি নিয়ে যাবেন। যাতে রেমিটেন্স প্রবাহ আরও বেড়ে যায়। দক্ষ কর্মীরা বিদেশ গিয়ে কেউ চাকরি হারা হবে না। তারা ভাল বেতনে কাজ করবেন।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বাংলাদেশে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত র‌্যানচা টিয়ারিঙ্ক তার বার্তায় বলেন, যথার্থ তথ্যনির্ভর সিদ্ধান্তই সঠিক সিদ্ধান্ত। যারা জেনেশুনে বিদেশ যান তারা অনেক বেশি নিরাপদে থাকেন। নিরাপদ অভিবাসন ও টেকসই পুনরেকত্রীকরণ নিশ্চিতে এবং উন্নত অভিবাসন ব্যবস্থাপনা সহায়তায় এই প্ল্যাটফর্মটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে পরিচালিত প্রত্যাশা প্রকল্পের অন্যতম উদ্যোগ। আমি বিশ্বাস করি, এই অনলাইন প্ল্যাটফর্ম তথ্যের ঘাটতি কমিয়ে নিরাপদ, বিধিসম্মত এবং নিয়মিত অভিবাসন নিশ্চিতে সহায়তা করবে।

আইওএম বাংলাদেশের মিশন প্রধান গিওরগি গিগাওরি বলেন, করোনা সঙ্কট সারাবিশ্বের জনগোষ্ঠীর ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। এই মহামারী থেকে আমরা শিখেছি যে, অন্য যে কোন সময়ের তুলনায় বর্তমানে হালনাগাদকৃত সঠিক তথ্য অভিবাসীদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বিদেশযাত্রার উদ্দেশ্য হচ্ছে অভিবাসী কর্মীরা যেন তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হন তা নিশ্চিত করা। পাশাপাশি, গন্তব্য দেশে অভিবাসীরা কোথায় সাহায্য ও সেবা পেতে পারেন, নিজ দেশে ফেরত আসার পর কী ধরনের সহযোগিতা তারা পেতে পারেন। উন্নত রেমিটেন্স ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় তথ্য ও সহযোগিতা পাবেন। এ সব বিষয়ে তারা যেন অবহিত থাকেন তা নিশ্চিত করা এই প্ল্যাটফর্মের মূল উদ্দেশ্য।

অভিবাসন বিষয়ে সিদ্ধান্ত পূর্ববর্তী, গমন পূর্ববর্তী, অভিবাসনকালীন ও প্রত্যাবর্তনসহ অভিবাসন প্রক্রিয়ার প্রতিটি ধাপ সংক্রান্ত সকল প্রয়োজনীয় তথ্য বাংলা ভাষায় পাওয়া যাবে ‘বিদেশযাত্রা’ প্ল্যাটফর্মে। একই তথ্য ওয়েবাসাইট ও এ্যাপে পাওয়া যাবে। ৬ দশমিক ১ মেগাবাইটের মোবাইল এ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করা যাবে গুগল প্লে স্টোর থেকে, যা অফলাইনে এবং স্বল্প ডাটা খরচ করে ব্যবহার করা যাবে।

প্ল্যাটফর্মটি তৈরি করা হয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে পরিচালিত প্রত্যাশা প্রকল্পের আওতায়। বাংলাদেশ সরকারের নেতৃত্বে ব্র্যাকের সঙ্গে অংশীদারিত্বে আইওএম বাংলাদেশ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

শরিফুল ইসলাম জানান, (ন্যাশনাল কমিউনিকেশনস্ অফিসার, আইওএম বাংলাদেশ) মোবাইল এই এ্যাপ্লিকেশনে যে কোন অভিবাসন প্রত্যাশী, অভিবাসী অথবা দেশে ফেরত আসা ব্যক্তিরা সহজেই তাদের সব তথ্য জেনে নিতে পারবেন। ফলে তাদের প্রতারণার শিকার হওয়া অনেকাংশে কমে যাবে।

শীর্ষ সংবাদ:
দাম কমানোর টার্গেট ॥ সংসদে বাজেট পেশ ৯ জুন         ৫৭ বছর পর ঢাকা থেকে ‘মিতালি এক্সপ্রেস’ যাবে ভারতে         রাজনীতির মাঠ গরম করতে চায় বিএনপি         মাঙ্কিপক্সে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে তরুণরা         দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হবে ॥ রিফাত         পাহাড়ে বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা দিন দিন বাড়ছে         ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি ঢাকায় আসছে ৮ জুন         আজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস ॥ নানা আয়োজন         উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় কমিউনিটি রেডিও শক্তিশালী মাধ্যম         অবৈধ ক্লিনিক বন্ধে দেশজুড়ে অভিযান         ইয়াবা ও মানব পাচারে কমিশন পায় রোহিঙ্গা নারীরা         চলচ্চিত্র ব্যবসায় আশার আলো মিনি সিনেপ্লেক্স         সিলেটে ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগ বাড়ছে         বিএনপি খোমেনি স্টাইলে বিপ্লব করার দুঃস্বপ্ন দেখছে ॥ কাদের         শান্তিরক্ষীগণ পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন : প্রধানমন্ত্রী         প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সময়োপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির         বাংলাদেশ আজ শান্তি ও সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত : রাষ্ট্রপতি         ভারতের গুয়াহাটিতে তৃতীয় নদী সম্মেলন শুরু         রাজধানীকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বাগেরহাটে ঝড়ে গাছ ভেঙ্গে পড়ল ইউএনওর গাড়ির উপর