বৃহস্পতিবার ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ০৯ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আবাদি জমি পতিত রাখা যাবে না, উদ্যোগ নিচ্ছে মন্ত্রণালয়

আবাদি জমি পতিত রাখা যাবে না, উদ্যোগ নিচ্ছে মন্ত্রণালয়
  • বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হবে

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী খাদ্য নিরাপত্তার স্বার্থে আবাদি জমি পতিত রাখা যাবে না। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে ভূমি মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস বাংলাদেশেও নাজুক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ভবিষ্যতে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে কৃষিখাতকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে সরকার। করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হওয়ার দুই মাস পেরিয়ে গেলেও পরিস্থিতির উন্নতি নেই। প্রতিদিনই অবস্থার অবনতি হচ্ছে। যদিও দীর্ঘদিন লকডাউন থাকার পরও সরকার সম্প্রতি তা অনেকটা শিথিল করে দিয়েছে।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতিতেও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য প্রধানমন্ত্রী এক ইঞ্চি জমিও পতিত না রাখার কথা বলেছেন। এ বিষয়ে কী উদ্যোগ আছে জানতে চাইলে ভূমি সচিব মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, কেউ যদি দীর্ঘদিন কোন জমি চাষাবাদ না করে পতিত রাখেন তবে ১৯৫০ সালের রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইনে এ বিষয়ে ধারা আছে। আইন অনুযায়ী দীর্ঘ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে সেই জমি সরকার খাস হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। জেলা প্রশাসক সেটা করেন। তবে আমরা এখন সেদিকে যাচ্ছি না।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী একটা কথা বলেছেন, এখন এক ইঞ্চি জমিও পরিত্যক্ত থাকবে না। সে জন্য আমরা সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে চাচ্ছি কেউ যাতে তাদের জমি পরিত্যক্ত না রাখেন। কেউ যদি তার নিজের জমি চাষ না করেন তবে তিনি অন্যকে বর্গা দিক বা অন্য কোন উপায় অবলম্বন করুক যাতে জমিতে চাষাবাদ হয়।

ভূমি সচিব বলেন, আমাদের মহামূল্যবান কৃষি জমি এভাবে পড়ে থাকুক, এটা আমরা চাই না। জাতির খাদ্য নিরাপত্তার জন্যই পতিত জমি চাষ করা প্রয়োজন। সেই বিষয়ে আমরা মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে চাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, আমার জমি আছে, আমি তো ঢাকায় চাকরি করি, তাই বলে তো আমার জমি পড়ে নেই, সেখানে চাষাবাদ হচ্ছে।

মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, আমাদের কথা হচ্ছে যে পদ্ধতি তারজন্য বাস্তবসম্মত হয় সেভাবেই সে তার জমি চাষাবাদ করুক। দীর্ঘদিন চাষাবাদ না করলে জমি খাস করে নেয়া একটা দীর্ঘ আইনগত জটিল পদ্ধতি। আমরা ওইভাবে কাউকে বাধ্য করতে চাই না। আমরা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, বড় বড় জমির মালিক তাদের বলব। অনেক জমির মালিক আছেন যারা বিদেশে থাকেন, তারা যাতে জমিগুলো চাষাবাদের ব্যবস্থা করেন।

দীর্ঘদিন জমি পতিত রাখলে তা খাস হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার যে আইন আছে, সেটি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করা হবে কিনা- এ বিষয়ে সচিব বলেন, এ বিষয়টি আমরা এখনও সেভাবে ভাবিনি। আইনে যেহেতু আছে সেটা তো বাস্তবায়ন করতেই পারি। সেটা দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়া, তবে আইনই শেষ কথা না। তিনি বলেন, পতিত জমি চাষাবাদ করলে যার জমি তার লাভ, আলটিমেটলি দেশের লাভ।

শীর্ষ সংবাদ:
লন্ডনে পাপনের অস্ত্রোপচার সম্পন্ন         শিগগিরই এইচএসসিতে ভর্তি শুরু হবে : সংসদে শিক্ষামন্ত্রী         স্বাস্থ্যখাতের অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে ॥ কাদের         শেষ হল সংক্ষিপ্ততম বাজেট অধিবেশন         করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২২শ' ছাড়ালো, নতুন আক্রান্ত ৩৩৬০         করোনায় আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         পাপুল কুয়েতের নাগরিক নন ॥ কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়         রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদের প্রধান সহযোগী গ্রেফতার         শিক্ষার্থীদের অটোপাসের খবর ‘গুজব ॥ শিক্ষা মন্ত্রণালয়         বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নরের চাকরির সময়সীমা বাড়িয়ে বিল পাস         দেড় শতাধিক বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠিয়েছে ইতালি         ক্রেডিট কার্ড ‘জালিয়াত চক্রের’ চারজন গ্রেফতার         মাস্ক দুর্নীতি ॥ মেডিটেকের পরিচালক হুমায়ুনকে জিজ্ঞাসাবাদ         ভারতে আবারও একদিনে ২৪ হাজারের বেশি সংক্রমণ         রিজেন্টের চেয়ারম্যান সাহেদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা         পল্টন থেকে ৩ মানবপাচারকারী আটক         আইভরি কোস্টের প্রধানমন্ত্রীকে ‘সিংহ’ বলে ডাকত সবাই         করোনা ॥ আগাম ১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দ. আফ্রিকা         সিরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা শক্তিশালী করবে ইরান         জেনারেল সোলাইমানি হত্যা ॥ বোল্টনের দাম্ভিক উক্তির জবাব দিল রাশিয়া        
//--BID Records