সোমবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৫ মে ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর যন্ত্র আবিষ্কার করতে গিয়ে বিজ্ঞানী নিজেই হাসপাতালে

করোনাভাইরাসের  সংক্রমণ ঠেকানোর যন্ত্র আবিষ্কার করতে গিয়ে বিজ্ঞানী নিজেই হাসপাতালে

অনলাইন ডেস্ক ॥ অস্ট্রেলিয়ান এক বিজ্ঞানী এমন একটি যন্ত্র তৈরির চেষ্টা করছিলেন যেটি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মানুষকে সাহায্য করবে। কিন্তু এটি উদ্ভাবন করতে গিয়ে যন্ত্র থেকে ছোট্ট চুম্বক খণ্ড তার নাকের ভেতর আটকে গেল। তখন এই বিপদ থেকে রক্ষা পেতে তাকে দৌড়াতে হলো হাসপাতালে। ড‍. ড্যানিয়েল রিয়ার্ডন যা তৈরি করার চেষ্টা করছিলেন সেটি অনেকটা নেকলেস ব কণ্ঠহার আকৃতির একটি যন্ত্র। কেউ মুখে হাত দেয়ার চেষ্টা করলেই এই যন্ত্রটি শব্দ করে সতর্ক করে দেয়ার চেষ্টা করবে।

কিন্তু যেভাবে পরিকল্পনা করেছিলেন, ড. রিয়ার্ডনের যন্ত্রটি আসলে সেভাবে কাজ করছিল না।

"আমার আবিষ্কারটির বেলায় আসলে উল্টো ব্যাপার ঘটলো- এটি ক্রমাগত শব্দ করে যাচ্ছিল যতক্ষণ না এর কাছে একটি চুম্বক এনে রাখা হচ্ছিল। বিপদে পড়েছি বুঝতে পারছিলাম‌। আমি নিজে নিজেই হাসছিলাম এবং হাল ছেড়ে দিয়েছিলাম। এরপর আমি কোন কিছু না ভেবেই এই চুম্বকের টুকরোগুলো আমার মুখের ওপর রাখতে শুরু করলাম"

"প্রথমে আমার কানের লতিতে, তারপর আমার নাকের ফুটোর কাছে। তবে বিপদ ঘটলো যখন আমি দ্বিতীয় নাকের ফুটোর কাছেও একটা চুম্বক রাখলাম। তখন চুম্বকের টুকরোগুলো একটা আরেকটার সঙ্গে লেগে গেল। একটা চুম্বক আমার নাকের ভেতর আটকে গেল।"

ড. রিয়ার্ডন অন্য চুম্বকের টুকরোগুলো ব্যবহার করে ভেতরের টুকরোগুলো বের করে আনার চেষ্টা করলেন। কিন্তু পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠলো। শেষ দুটি চুম্বকের টুকরোও নাকের ভেতর আটকে গেল। এবার তিনি একটি প্লায়ার্স ব্যবহারের চেষ্টা করলেন। কিন্তু নাকের ভেতরের চুম্বকগুলো তার প্লায়ার্সটিকে আকর্ষণ করছিল। তখন তিনি নাকের ভেতর ব্যথাও অনুভব করছিলেন। ড‍. ড্যানিয়েল রিয়ার্ডন অবশ্য খুব শান্তভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলার চেষ্টা করলেন।

"প্রথমে একটু ব্যথা লাগছিল। তবে আমি খুব বেশি বিচলিত হইনি। কিন্তু যখন আমি বুঝতে পারলাম যে এই চুম্বকের টুকরোগুলো আমার পক্ষে বের করা সম্ভব নয়, তখন আমি বেশ ঘাবড়ে গেলাম।"

এই পর্যায়ে এসে ড‍. ড্যানিয়েল রিয়ার্ডন বুঝতে পারলেন এবার তাকে মেলবোর্নের স্থানীয় হাসপাতালে যেতেই হবে। যে হাসপাতালে তাকে যেতে হলো সেখানে কাজ করেন তার প্রেমিকা।

"ডাক্তাররা সবাই আমার বান্ধবীকে চিনতো। তারা সবাই হাসাহাসি করছিল। ওরা জিজ্ঞেস করছিল তুমি কি নাকের ভেতর চুম্বকের টুকরো রাখছিলে?"

তবে ডাক্তাররা শেষ পর্যন্ত চুম্বকের টুকরোগুলো নাকের ভেতর থেকে বের করে আনতে পারলেন। শেষ পর্যন্ত সুস্থভাবেই তিনি হাসপাতাল থেকে ফিরে আসতে সক্ষম হলেন। ড‍. ড্যানিয়েল রিয়ার্ডন তার যন্ত্র উদ্ভাবনের কাজে আপাতত ক্ষান্ত দিয়েছেন।

সূত্র : বিবিসি বাংলা

শীর্ষ সংবাদ:
ঈদ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা         বঙ্গভবনের দরবার হলে ঈদের জামাতে অংশ নেবেন রাষ্ট্রপতি, হচ্ছে না শুভেচ্ছা বিনিময়         ঘরে বসে ঈদ পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         আজ পবিত্র ঈদুল ফিতর         জীবন-জীবিকার স্বার্থে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী         ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে রেকর্ড ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৩২         ত্রাণ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য হীন মানসিকতার বহি:প্রকাশ : হানিফ         ঈদ জামাতে যেতে ডিএমপির ১৪ নির্দেশনা         ঈদের পর ছুটি বাড়বে কিনা জানা যাবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী         করোনায় আক্রান্ত সম্প্রচার সংবাদকর্মীদের চিকিৎসাসেবা দেবে হলি ফ্যামিলি         অসহায়দের পাশে রয়েছেন প্রায় সব সংসদ সদস্য ॥ তথ্যমন্ত্রী         সংকটের পরে নবউদ্যমে কাঙিক্ষত উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাব         আরও দুই বছর গবর্নর থাকবেন ফজলে কবির         করোনা ভাইরাস ॥ এবার প্রাণ গেল পুলিশ ইন্সপেক্টরের         বায়তুল মোকাররমে হবে ঈদের পাঁচ জামাত         ঘন্টার ব্যবধানে নিজাম হাজারীর মা ও ভাইয়ের মৃত্যু         পাবনায সরকারি চালসহ আওয়ামীলীগের মহিলা নেত্রী আটক         ফটিকছড়িতে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে যুবক নিহত         চট্টগ্রামের অর্ধশত গ্রামে পালিত হচ্ছে আগাম ঈদ         কলকাতায় আটকে পড়া বাংলাদেশিদের ফেরাতে ২ বিশেষ ফ্লাইট         হালদায় আবারও ডলফিন হত্যা        
//--BID Records