বৃহস্পতিবার ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনা প্রতিরোধযুদ্ধের একজন সৈনিক কচি

করোনা প্রতিরোধযুদ্ধের একজন সৈনিক কচি

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নের ক্ষেত্রপালা গ্রামের বাসিন্দা খালেদুর রহমান কচি (৪০)। একজন স্বল্প আয়ের মানুষ। সারাবিশ্ব যখন প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস প্রতিরোধ যুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, ঠিক তখনই কচি স্বল্প পরিসরে সে যুদ্ধের একজন সৈনিক হিসেবে নিজেকে তৈরি করেছেন। নিজের অর্থনৈতিক অস্বচ্ছলতার মধ্যেও দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে মানুষের জন্য কিছু একটা করতে নীরবে নিভৃতে কাজ করে চলেছেন। তার এই কর্মকা-ে খুশি গ্রামের মানুষ।

গত বুধবার (২৫মার্চ) স্থানীয় বাজার থেকে খালেদুর রহমান কচি কিছু ইলাস্টিক, কয়েকটি টিস্যু (শপিং) ব্যাগ আর সুতা কেনেন। বাড়িতে এসে টিস্যুব্যাগগুলো গরম পানি, স্যাভলন ও ডিটারজেন্টে ভিজিয়ে জীবানুমুক্ত করেন। প্রথম দু’একদিন ৩০ থেকে ৪০টি মাস্ক তৈরি গ্রামের বয়োবৃদ্ধদের নিজহাতে সেগুলো পরিয়ে দেন। এরপর তাকে আর বাজারে যাওয়া লাগেনি। গ্রামবাসীরাই টিস্যুব্যাগ কিনে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে যাচ্ছেন।

এলাকাবাসী জানায়, কচি যশোর থেকে বিভিন্ন মুদি ও স্টেশনারী মালামাল কিনে সেগুলো নারিকেলবাড়িয়া ও পাশের মাগুরা জেলার শালিখা বাজারের দোকানে দোকানে সরবরাহ করেন। তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক প্রয়াত আব্দুস সালাম। একাত্তরে যশোহর থেকে প্রকাশিত ‘সাপ্তাহিক মাতৃভূমি’ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক ছিলেন। পত্রিকাটিতে তৎকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষনা ও মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ ছাপা হয়। তবে কচি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পরিচয়ে আজও নিজের ভাগ্য বদলাতে পারেনি।

কচি বলেন, করোনার প্রভাবে এখন তার ব্যবসায়ে মন্দা। বাড়িতেই থাকতে হচ্ছে। এদিকে করোনার ভয়াবহতা প্রতিদিন সংবাদ মাধ্যমে জানতে পারছি। বাড়ি বসে থেকে কী করবো, তাই যতটুকু সামর্থ্য আছে তাতেই নেমে পড়েছি। আমার দিয়ে যদি একজন মানুষেরও উপকার হয়। গ্রামের মানুষের আগ্রহ আমাকে মাস্ক তৈরির কাজে আরও বেশি সহায়তা করছে। বাড়িতে মা, স্ত্রী আর ক্লাস ফাইভে পড়–য়া একমাত্র সন্তান কিরণও এ কাজে আমাকে যথেষ্ট সহযোগিতা করে।

আমিনুর রহমান নামে প্রতিবেশী একজন কৃষক বলেন, কচি আমাকেও একটা মাস্ক দিয়েছে। তবে মাস্কের ব্যবহার আমরা জানতাম না। সেই এখন আমাদের বুঝিয়ে মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছে। ক্ষেত্রপালা গ্রামের বাসিন্দা কলেজ শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, স্থানীয় দরিদ্রদের মাস্ক তৈরি করে পরিয়ে দিচ্ছে কচি। এটি খুবই ভাল একটি কাজ। আসলে যাদের কিছু করার কথা ছিল, তারাই আজ নিশ্চুপ। নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ড সদস্য হাফিজুর রহমান বলেন, এলাকায় কচিকে সবাই চেনে। তার বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং সাংবাদিক ছিলেন। সকলে তাকে পছন্দ করতেন। কচি সাধারণ মানুষের উপকার করছেন। তাকে এ কাজে আমরা মুগ্ধ। জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের আবুল সরদার বলেন, আমার বাড়িও একই গ্রামে। কচি খুব ভাল ছেলে। সে গরিব মানুষের কল্যাণে কাজ করছে। করোনা প্রতিরোধে আমাদের সকলকেই তার মতো এগিয়ে আসা উচিৎ।

শীর্ষ সংবাদ:
জীববৈচিত্র্য রক্ষায় চারটি পদক্ষেপ নিতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         পা হারানো রাসেলকে আরও ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে গ্রিনলাইন         প্রথম আলো সম্পাদকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য         যুক্তরাষ্ট্রে শেষকৃত্যানুষ্ঠানে বন্দুকধারীর হামলা ॥ গুলিবিদ্ধ ৭         মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি ॥ বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত হত্যা মামলা         ট্রাম্প-বাইডেন প্রথম নির্বাচনী বিতর্কে তিক্ততা, বিশৃঙ্খলা         সরকার দেশের স্বার্থে ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিচ্ছে ॥ অর্থমন্ত্রী         শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ছে         কোমল পানীয়ের নামে আমরা কী খাচ্ছি?         আলোচনার শীর্ষে টিলাগড় ॥ দুই আসামি রিমান্ডে         বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বিমান চলাচল চুক্তি সই         জাপানী বড় বিনিয়োগের হাতছানি         ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন         ১৬ কোটি মানুষের একমাত্র আশা ভরসা শেখ হাসিনা         চাকরির প্রলোভনে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক গ্রেফতার         জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ         একাদশ সংসদের ৬১ শতাংশ সদস্যই ব্যবসায়ী         বিকাশের টাকা ডাকাতির ঘটনায় গাড়িসহ ৪ জন গ্রেফতার         বাংলাদেশ কখনো জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়নি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ৪ থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন পালন করবে ডিএনসিসি’