শনিবার ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

আজ সালমাদের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ একদল বর্তমান নারী টি২০ ক্রিকেট বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দল। এর আগের ছয়বারের বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিকসহ চারবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। তারা অস্ট্রেলিয়া। টি২০ র‌্যাঙ্কিংয়েও অবস্থান এক নম্বরে। আরেকদল টি২০ বিশ্বকাপে জয়ই পায় না। র‌্যাঙ্কিংয়েও অবস্থান নবম। তারা বাংলাদেশ। এ দুই নারী ক্রিকেট দলের মধ্যেই আজ নারী টি২০ ক্রিকেট বিশ্বকাপে লড়াই হবে। ম্যাচটি ক্যানবেরার মানুকা ওভালে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় শুরু হবে। অস্ট্রেলিয়া অনেক শক্তিশালী দল। খেলা হচ্ছে আবার অস্ট্রেলিয়াতেই। এরপরও অসিরা ভারতের কাছে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই ১৭ রানে হেরেছে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দাপট দেখিয়ে জিততে পারেনি। ৩ বল বাকি থাকতে ৫ উইকেটে জিতেছে। বাংলাদেশ দলও প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হেরেছে। তবে লড়াই করে ১৮ রানে হেরেছে। এরপরও আজকের ম্যাচটিতে অস্ট্রেলিয়া নারী ক্রিকেট দলই ফেবারিট। তারা যে বড় মঞ্চে খেলে অভ্যস্ত। আবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কোনদিনই খেলেনি। তবে যে শক্তিশালী দলগুলোর বিরুদ্ধে খেলে তাতে বাংলাদেশ দল তাদের কাছে সহজ প্রতিপক্ষই হওয়ার কথা। অবশ্য আগে কখনও বাংলাদেশকে পরখ করে দেখা হয়নি বিধায় হোঁচট খাওয়ার সম্ভাবনাও থাকে। সেই কাজটি হয়ে গেলেই তো হলো।

বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের উইকেটরক্ষক কাম ব্যাটসম্যান নিগার সুলতানা জ্যোতি অস্ট্রেলিয়াকে বিপদে ফেলার আশাতেও আছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমরা এমন একটি দেশ থেকে এসেছি যে দেশের মানুষ ক্রিকেটপাগল। আমরা ক্রিকেটপাগল জাতি হিসেবে পরিচিত। হ্যাঁ মানুষ আমাদের কাছ থেকে ভাল কিছু প্রত্যাশা করে। জয় প্রত্যাশা করে। আর আমরা মাঠে জেতার জন্যই নামি প্রকৃতপক্ষে।’ সঙ্গে ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচে দেশের হয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৫ রান করা এ ব্যাটসম্যান যোগ করেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে আমরা কখনও খেলিনি। সুতরাং তাদের বিরুদ্ধে আমরা পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে নামব। পরবর্তী ম্যাচে আমরা আমাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে চাই। যদিও তারা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। অবশ্য আমরা এসব বিষয় নিয়ে ভাবতে চাই না। ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচের সবগুলো ইতিবাচক বিষয় নিয়ে পরবর্তী ম্যাচে মাঠে নামতে চাই এবং সেখানে প্রয়োগ করতে চাই।’

ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচে ১৪২ রানের টার্গেটে খেলতে নামে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। ভারতকে খুব বড় স্কোর গড়তে দেয়া হয়নি। এই স্কোর সামনে থাকতেও খুব ভালই ব্যাটিং হচ্ছিল। কিন্তু মাঝপথে দুই ব্যাটার সানজিদা ইসলাম ও ফারজানা হক দ্রুত আউট হয়ে গেলে দল বিপদে পড়ে। মুরশিদা খাতুনের (৩০) পর নিগার সুলতানা (৩৫) হাল ধরতে পারলেও বাকিরা ব্যর্থ হন। তাতে করে লড়াইয়ে ছাপ রাখা গেলেও ৮ উইকেট হারিয়ে ২০ ওভারে ১২৪ রানের বেশি করা যায়নি। জাহানারা আলম ও নাহিদা আক্তারের বোলিংও খুব ভাল হয়নি। ওভারে ৮ রানের বেশি করে দিয়েছেন তারা।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে জয়ের পরও অধিনায়ক সালমা খাতুন দুর্বল দিকগুলোর কথা উল্লেখ করেছিলেন। বলেছিলেন, ‘আমরা আমাদের ব্যাটিং পারফর্মেন্সে খুশি হলেও বেশ কিছু দুর্বলতা চোখে পড়ছে। শেষ ৫ ওভারে ব্যাটিং ভাল হয়নি। রান তোলার হার খুবই কম ছিল। বোলাররাও ইয়র্কারের ব্যবহার ঠিকমতো করতে পারেনি। এই জায়গাগুলোতে আমাদের কাজ করতে হবে। এ ম্যাচটি ছিল বিশ্বকাপের আগে নিজেদের নিয়ে নতুন করে ভাবার একটা বড় সুযোগ।’ ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচেও এই দুর্বলতাগুলো দেখা গেছে। এখন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই দুর্বল দিকগুলো কাটিয়ে ওঠা গেলেই হলো। নাহলে সামনে যে নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচ রয়েছে, সেই ম্যাচগুলোতে ভাল করা কঠিন হয়ে পড়বে।

শীর্ষ সংবাদ: