রবিবার ২১ আষাঢ় ১৪২৭, ০৫ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সন্ধ্যা নদীর ভাঙ্গনে বিলীন স্কুল কাম সাইক্লোন শেল্টার

সন্ধ্যা নদীর ভাঙ্গনে বিলীন স্কুল কাম সাইক্লোন শেল্টার

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ জেলার উজিরপুর উপজেলার গুঠিয়া ইউনিয়নের ৯০নম্বর আশোয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। মঙ্গলবার দুপুর থেকে সন্ধ্যার মধ্যে সন্ধ্যা নদীর ভাঙনে বিদ্যালয়টি বিলীন হয়ে যায়। নদীর এ ভাঙন দেখে স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

আজ বুধবার সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, নদীর তীরে বসবাসকারী পরিবারগুলো তাদের স্থাপনা, বসতঘর ও মালামাল সরিয়ে নিতে শুরু করেছে। স্থানীয়রা জানায়, উজিরপুরে সন্ধ্যা নদীর ভাঙনে গত কয়েক বছরে গুঠিয়া ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের বসতঘর, আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। এবছর নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে গেলো বিদ্যালয়টি।

আশোয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক জগদিশ চন্দ্র হালদার জানান, ২০০৮ সালে সিডরের পর ভাঙ্গন কবলিত আশোয়ার গ্রামের বাসিন্দাদের আশ্রয়নের জন্য ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে এক কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যায়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার ভবনটি নির্মান করা হয়। তিনি আরও জানান, গত কয়েক বছর ধরে সন্ধ্যা নদীর অব্যাহত করাল গ্রাসে হানুয়া ও আশোয়ার গ্রামের প্রায় দুইশতাধিক পরিবার নদী গর্ভে সর্বস্ত্র খুইয়ে নিঃস্ব হয়েছেন। আর শেষ পর্যন্ত হুমকির মুখে পরে বিদ্যালয়টি। গত তিন মাস পূর্বে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামিম ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ শাহে আলম বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টারটি পরিদর্শন করে ভাঙনরোধে বালুর বস্তা ফেলার নির্দেশ দেন। এর এক মাসের মাথায় ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ভাঙ্গনরোধে অস্থায়ী প্রকল্পের মাধ্যমে ঠিকাদার ৪৩ শত বস্তা বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা নাজিম খলিফা, আবুল হোসেন ফকির, জহির হাওলাদারসহ অনেকেই ক্ষোভের সাথে বলেন, সাইক্লোন শেল্টারটি রক্ষার জন্য সরকারী অর্থায়নে যে জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে তা ভাঙ্গন কবলিত স্থানে না ফেলে কোনমতে দায়সারা ভাবে মাটির ওপরের অংশে ফেলা হয়। এ কারনেই ভাঙনের কবল থেকে সাইক্লোন শেল্টারটি রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোসলেম আলী হাওলাদার জানান, গত কয়েকদিন ধরে এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীরা বিদ্যায়লটি রক্ষার জন্য মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। এরইমধ্যে মঙ্গলবার সকলের চোখের সামনেই বিদ্যালয়টি নদীর গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। স্থানীয় বাসিন্দা গৃহবধূ রাবেয়া বেগম জানান, নদী ভাঙন আমাদের বাড়ি ঘর গ্রাস করে নিলেও আমরা প্রায়ই সাইক্লোন শেল্টারটিতে আশ্রয় নিতে পেরেছি। কিন্তু আমাদের শেষ আশ্রয়স্থলটিও নদী ভাঙনে বিলিন হওয়ায় আমরা এখন নিঃস্ব হয়ে পরেছি।

বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষকরা জানান, দুর্গাপূজার কারনে বিদ্যালয়টি বন্ধ রয়েছে। স্কুল খোলার আগেই শিক্ষার্থীদের জন্য বিকল্প কোন ব্যবস্থা করা না হলে স্কুলটি বন্ধ হয়ে যাবে। উপেজেলা শিক্ষা অফিসার তাসলিমা বেগম জানান, বিদ্যালয়টি স্থানান্তরের জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবগত করা হয়েছে। গুঠিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডাঃ দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি ও স্কুল কমিটির সদস্যরা মিলে শিক্ষার্থীদের জন্য একটি টিনশেড ঘর ঠিক করে দিচ্ছি। যেখানে আপাতত শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো হবে।

শীর্ষ সংবাদ:
নীলফামারীতে পানি কমলেও ভাঙ্গন আতঙ্কে তিস্তা পাড়ের মানুষ         ফের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে ‘না’ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা         ভূমিকম্পে কাঁপল লাদাখ         বিশ্বে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের সর্বোচ্চ সংক্রমণ         জাপানে করোনায় প্রতি লাখে মারা গেছেন এক জনেরও কম মানুষ         করোনা ভাইরাস ॥ মেক্সিকোতে মৃত্যু ৩০ হাজার ছাড়াল         সোমালিয়াকে ইয়েমেনি সুকুত্রা দ্বীপ দখলের প্রস্তাব দিয়েছে আমিরাত         আজ ঝড়বৃষ্টির আভাস দেশের আট অঞ্চলে         জামিন আবেদন নিষ্পত্তি এক লাখ ॥ ভার্চুয়াল কোর্টের ৩৫ কার্যদিবস         লকডাউন হলো ওয়ারী         ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করুন ॥ কাদের         অনেক বিএনপি নেতা আইসোলেশনে থেকে প্রেসব্রিফিং করে সরকারের দোষ ধরেন ॥ তথ্যমন্ত্রী         পুলিশের বদলির তদবির কালচার বিদায় করতে চান বেনজীর         পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী করোনা আক্রান্ত         অধস্তনদের ওপর দায় চাপিয়ে বাঁচার চেষ্টা নির্বাহীদের ॥ বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল         উত্তরে বন্যা পরিস্থিতির ফের অবনতি হাজার হাজার পরিবার পানিবন্দী         তিনদিনের রিমান্ড শেষে রবিন কারাগারে         বাচ্চাদের সাবান দিয়ে হাত ধুতে বলুন         অহর্নিশ যুদ্ধের জীবন, করোনার ভয় যেন বিলাসিতা!         এখন আকাশের সংযোগ মিলবে ৩৪৯৯ টাকায়        
//--BID Records