ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

দ্য মলে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আজ

প্রকাশিত: ১১:৫৯, ২৯ মে ২০১৯

দ্য মলে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ লন্ডনের কেনিংটন ওভালে বৃহস্পতিবার ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ১২তম আসর। তার আগে আজ বাংলাদেশ সময় রাত দশটায় হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। তবে ব্যতিক্রম, মাঠে নয় ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির (ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল) তত্ত্বাবধানে এবারের অনুষ্ঠানটি হবে সেন্ট্রাল লন্ডনের ওয়েস্ট মিনস্টারের ঐতিহাসিক ‘দ্য মলে’। ইংল্যান্ডে সর্বশেষ বিশ্বকাপ হয়েছিল ১৯৯৯ সালে। দেশটির চিরায়ত বেরসিক বৃষ্টি ক্রিকেট তীর্থ লর্ডসে ২০ বছর আগের সেই উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনেকটাই ম্লান করে দিয়েছিল। এমনকি আতশবাজিও ফোটানো সম্ভব হয়নি। আইসিসি এবার তাই অনেক আগেই ঘণ্টা খানেকের জমকালো উদ্বোধনীর জন্য ‘দ্য মল’কে ভেন্যু হিসেবে বেছে নিয়েছে। বাকিংহাম প্যালেসকে পেছনে রেখে হবে অনুষ্ঠান। যে অনুষ্ঠানকে ‘বিশ্বকাপ ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে জাঁকজমকপূর্ণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান’ করার ঘোষণা দিয়েছে আইসিসি। স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা (বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা থেকে ১১টা) এক ঘণ্টার এ অনুষ্ঠানে থাকবে নানারকম খেলাধুলা, গান-বাজনায় ভরপুর। উপস্থিত থাকবেন বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দশ দেশের ক্রিকেটার-কর্মকর্তাসহ আমন্ত্রিত অতিথিরা। জাঁকান অনুষ্ঠান সরাসরি উপভোগ করবেন চার হাজার ভাগ্যবান দর্শক, যাদের আগেই বেছে নেয়া হয়েছে লটারির মাধ্যমে। এক ঘণ্টাব্যাপী এই অনুষ্ঠান টিভিতে সরাসরি সম্প্রচারিত হবে। বিশ্বকাপের আয়োজক কমিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টিভ এলওয়ার্দি এক বিবৃতিতে বলেন, আমরা পুরো বিশ্বকে দেখাব, কেন তারা পরের ৪৫ দিন ক্রিকেট উপভোগ করবে। বিশ্বকাপ, ক্রিকেট ও খেলাধুলার বৈচিত্র্য উদ?যাপন করব আমরা। কিন্তু ‘দ্য মল’ কেন? এটি ব্রিটিশদের জন্য গর্বের এক জায়গা। লন্ডনের এই জায়গাকেই বড় কোন উদ্?যাপনের জন্য বেছে নিয়ে থাকে। এখানেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিজয় উৎসব করে ইংলিশরা। রানী এলিজাবেথের সিংহাসন আরোহণের সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান হয়েছে এখানেই। বিদেশী রাষ্ট্রপ্রধানদের সংবর্ধনাও দেয়া হয় এখানে। আইসিসিও বেছে নিয়েছে ব্রিটিশদের বিখ্যাত এই জায়গাটি। স্টিভ এলওয়ার্দি আরও বলেন, ‘ব্যাকগ্রাউন্ডে বামিংহাম প্যালসেকে রাখা দ্য মল, যেখানে যুক্তরাজ্যে সবচেয়ে বড় ইভেন্টগুলো হয়ে থাকে এবং বিশ্বের সবাই এই জায়গাটা চেনে। বিশ্বকাপ উদযাপন করার জন্য এটাই সবচেয়ে উপযুক্ত জায়গা।’