বুধবার ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পা হারালেও স্বপ্ন হারিয়ে যায়নি জাবির শিক্ষার্থী রুবিনার

পা হারালেও স্বপ্ন হারিয়ে যায়নি জাবির শিক্ষার্থী রুবিনার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারালেও স্বপ্ন হারিয়ে যায়নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী রুবিনা আক্তারের। হাসাপাতালের বিছানায় শুয়েই বিসিএস কর্মকর্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন তিনি। তবে সেই স্বপ্ন পুরণ হবে কিনা তা জানে না এই মেধাবী ছাত্রী। পিতার মৃত্যুর পর তার রোজগারেই সংসার চলছিল। রুবিনার এমন পরিস্থিতিতে পরিবারটির পথে বসার যোগাড় হয়েছে। অন্ধকার ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে দিশেহারা রুবিনার মা আর তার একমাত্র ভাই।

পরিবারে চলছে শোকের মাতম। রুবিনার চিকিৎসার ব্যয় বহন করছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আরও উন্নত চিকিৎসা দিতেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রস্তুত আছে। তবে রুবিনা পুরোপুরি শঙ্কামুক্ত নন। তাকে আইসিইউতে (ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট) রাখা হয়েছে।

রবিবার দুপুরে গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ থানাধীন শান্তিনগরে যাওয়ার উদ্দেশ্যে কমলাপুরে রেলস্টেশনে গিয়েছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কর্ম বিভাগের অর্নাস শেষ বর্ষের ছাত্রী রুবিনা। দুপুর দেড়টার দিকে রেলস্টেশনের ৬ নম্বর প্লাটফর্ম থেকে হেঁটে ৫ নম্বর প্ল্যাটফর্মে যাচ্ছিলেন। এ সময় ট্রেনের ইঞ্জিন ঘুরনোর কাজ চলছিল। সেই ইঞ্জিনে কাঁটা পড়ে উরু থেকে দুই পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দ্রুত রেলপুলিশ ও রেল কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

হাসপাতালের অর্থোপেডিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রুবিনাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। তিনি শঙ্কামুক্ত নন। ঘটনার সময় মাথা ঘুরে পড়ে গিয়েছিল বলে রুবিনা জানায়। চিকিৎসক রুহুল আমীন জানান, ট্রেনে কেঁটে পড়ার পর যেসব অংশ থেতলে গিয়েছিল দুই পায়ের সেসব অংশ কেঁটে পরিষ্কার করা হয়েছে।

রুবিনার সহপাঠী ইমাম হোসেন জনকণ্ঠকে জানান, রুবিনা খুবই ধর্ম ভীরু মেয়ে। সাধারণত কারও সঙ্গে বেশী মেলামেশা করতো না। নিজের ব্যক্তিগত বিষয় সর্ম্পকেও তেমন কারও সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করতো না। হাতে গোনা দু’একজন বান্ধবীর সঙ্গে ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে আলোচনা করতো। ওই বান্ধবীদের মাধ্যমে জানা গেছে, রুবিনা ঢাকায় ৪টি টিউশনি করতো। তার টিউশনির টাকায় গ্রামে থাকা মা ও রংপুর কারমাইকেল কলেজে একমাত্র ছোট ভাইয়ের পড়াশুনা চলতো। থাকতো বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন সদরঘাট এলাকার একটি ছাত্রীনিবাসে।

ইমাম হোসেন বলছিলেন, রুবিনা বিএসএস কর্মকর্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখতো। তার সেই স্বপ্ন এখনও জিইয়ে রেখেছে। তার সংসারের অভাব ঘুচানোর জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করতো। ভবিষ্যতে সে তার মা ও ভাইকে ঢাকায় তার কাছে রাখার ইচ্ছে পুষণ করতো। এজন্য সে খুবই ভাল চাকুরী করার স্বপ্ন দেখতো। আর চাকুরীর দিক থেকে প্রথম পছন্দ ছিল বিসিএস কর্মকর্তা হওয়া।

তিনি আরও জানান, ঘটনার দিন রবিবার অন্যান্য দিনের মত রুবিনা তাদের সঙ্গে ক্লাস শেষ করে। ক্লাস শেষে ইন্টার্নি ক্লাস করার কথা ছিল তার। ইন্টার্নি না করে সে বাড়ি যাওয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়ে। সে বাসযোগে বাড়িতে যাতায়াত করতো। কিন্তু ওইদিন সে ট্রেনে যাওয়ার জন্য কমলাপুরে যায়। আর সেখানেই ঘটে মর্মান্তিক ঘটনাটি।

রুবিনার এই সহপাঠী আরও জানান, ইতোমধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্তৃপক্ষ রুবিনার চিকিৎসার জন্য সব ধরণের আর্থিক সহায়তা করছে। সমাজকর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবুল হোসেন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. সেলিম ভূঁইয়া হাসপাতালে এসে রুবিনার খোঁজখবর নেন। তাঁরা রুবিনাকে সব ধরণের চিকিৎসা দেয়ার জন্য প্রস্তুত আছেন বলে জানান। রুবিনা সংবাদ মাধ্যমকে তার ছবি না ছাপানোর অনুরোধ করেছেন।

এ ব্যাপারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, রুবিনার চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করা হচ্ছে। প্রয়োজনে আরও উন্নত চিকিৎসা দিতেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রস্তুত রয়েছে। অর্থোপেডিক বিভাগের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, রুবিনা পুরোপুরি আশঙ্কামুক্ত নন। রুবিনার বিষয়টি মানবিক কারণেই খুবই গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।

হাসপাতালে রুবিনাকে দেখতে এসে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন চাচা রফিকুল ইসলাম। তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, আমরা মূলত দরিদ্র পরিবারের সন্তান। আমি সাভারে ছোট একটি চাকুরী করি। আমরা চার ভাই চার বোন। রুবিনার বাবা রবিউল ইসলাম। ২০১৪ সালে তিনি মারা যান। আর রুবিনার মা রহিমা বেগম। সবাই পৃথক।

বাড়ি ভিটাসহ রুবিনাদের দেড় বিঘার মত জমি আছে। এই জমি চাষ করেই রুবিনাদের কোনমতে সংসার চলতো। ওরা দুই বোন এক ভাই। রুবিনার বড় বোন জুলেখা। ও মানসিক রোগী। রুবিনা এসএসসি ও এইচএসসিতে ভাল রেজাল্ট করেছে। স্কুলের দরিদ্র তহবীলসহ স্কুল কর্তৃপক্ষের সহায়তায় এসএসসি পাশ করে। রেজাল্ট ভাল হওয়ায় স্কুলসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে পাওয়া টাকা দিয়ে এইচএসসি পাশ করে। এখানেও ভাল রেজাল্ট করে। এরপর ভর্তি হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে। রুবিনার বাবা মারা যাওয়ার পর সংসার আর চলছিল না। রুবিনা ঢাকায় টিউশনি করতো। সেই টিউশনির টাকায় গ্রামে থাকা এক বোন আর মায়ের সংসার চলে। আর রুবিনার ছোট ভাই রুবেল রংপুর কারমাইকেল কলেজে পড়ে। তারও পড়াশুনার খরচ চালাতো রুবিনা। রুবিনার এমন অবস্থায় আমরা একেবারে দিশেহারা। আমাদেরও তাদের সহায়তা করার মত আর্থিক সামর্থ্য নেই। ওর মা আর ভাই একেবারে পাগলের মত হয়ে গেছে। পরিবারটি কি হবে আল্লাহ জানেন।

শীর্ষ সংবাদ:
কঠিন পরিণতির মুখে মুরাদ         কাজের মানের বিষয়ে ফের সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী         জাওয়াদের প্রভাবে টানা বৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি         অভিযোগ পেলেই ডিবি জিজ্ঞাসাবাদ করবে মুরাদকে         গোপনে চট্টগ্রামের হোটেলে         ভারত থেকে এলো মিগ-২১ ও ট্যাঙ্ক টি-৫৫         চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল যোগাযোগ এখন আর স্বপ্ন নয়         তলাবিহীন ঝুড়িতে বিলিয়ন ডলার         মালয়েশিয়া প্রবাসীদের পাসপোর্ট পেতে ভোগান্তি         পরিকল্পনাকারী অর্থ ও অস্ত্রের যোগানদাতারা এখনও ধরা পড়েনি         দ্রুত পুঁজিবাজারে আনা হচ্ছে সরকারী কোম্পানির শেয়ার         সব এয়ারলাইন্স দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া নিচ্ছে         খালেদাকে শনিবারের মধ্যে বিদেশ না পাঠালে আন্দোলনে যাবেন আইনজীবীরা         পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব         মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্র প্রধানমন্ত্রীর কাছে         ডা. মুরাদ হাসানকে জেলা কমিটির পদ থেকে বহিষ্কার         একনেক সভায় ১০ প্রকল্পের অনুমোদন         গ্রিন ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড পাবে ৩০ শিল্প প্রতিষ্ঠান         ‘ডা. মুরাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে ডিবি’         করোনা : ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ২৯১