বুধবার ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ১৯ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

কলাপাড়ায় ভূমি দস্যুদের লাল চোখের নজর কৃষকের ধানক্ষেতে

কলাপাড়ায় ভূমি দস্যুদের লাল চোখের নজর কৃষকের ধানক্ষেতে

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া ॥ কলাপাড়ায় ভূমিদস্যুদের লাল চোখ এখন কৃষকের ধানক্ষেতে। এ কারণে অসহায় কৃষক পাকার আগেই ক্ষেতের ধান রক্ষায় ঘুরছেন থানাপুলিশ গণমাধ্যম কর্মীসহ প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে। এদের একজন নিখিল বরন কুন্ডু। তিনি লিখিত অভিযোগে জানান, একজন সংখ্যালঘু শ্রেণির লোক। প্রায় ৪৫ বছরের চাষাবাদকৃত চার একর ৯৭ শতক জমির ধান রক্ষার জন্য এবছর তিনি দিশেহারা হয়ে দৌড়াচ্ছেন প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে। ইতোমধ্যে থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন। পুলিশ প্রতিপক্ষ ফোরকান মৃধা গংদের ডেকে কঠোরভাবে হুশিয়ারি করেছেন।

নিখিল কুন্ডু জানান, ছোট বালিয়াতলী মৌজার ৭০৬ খতিয়ানের এই জমি তিনি চাষাবাদ করছেন চারযুগ ধরে। বিএস দিয়ারা জরীপের সকল কাগজপত্র রয়েছে। নির্বিঘ্নে চাষাবাদ করেছেন। এখন ছোট বালিয়াতলীর নাজমুল গাজী ও মেরাউপাড়ার ফোরকান মৃধাগং কলাপাড়ার এক চিহ্নিত প্রভাবশালীর আশ্রয়-প্রশ্রয়ে ওই জমির ধান কাটাসহ দখলের অব্যাহত প্রচেষ্টা করে আসছে। একইভাবে ধান লুটের শঙ্কায় পড়েছেন রাখাইন অংনয়ের পরিবার। পক্ষিয়াপাড়ার এই পরিবার কলাপাড়া থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছেন। অংনয় লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন তার কেনা এবং ওয়ারিশসুত্রে প্রাপ্ত সোনাপাড়া মৌজার জেএল ৩৮ নং এর ২১ নম্বর এসএ খতিয়ানের ৬২ ও ৪৬ নম্বর দাগের এক একর জমির ধান কাটার জন্য একই এলাকার ছালাম হাওলাদার, হাবিব হাওলাদার ও হিরন হাওলাদার পায়তার করে আসছে। এমনকি ২৮ নবেম্বর বিকেলে জমিতে না যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মঙ্গলবার রাতে একটি জিডি করলে ফের বুধবার হুমকি দেয়া হয় বলে অংনয় অভিযোগ করেন। বর্তমানে অংনয় তার পরিবারের নিরাপত্তা এবং ফলানো ধান কাটার জন্য আইনি সহায়তা চেয়েছেন।

এ ব্যাপারে ওই এলাকার ভারপ্রাপ্ত মেম্বার হারুন তালুকদার জানান, ওই জমি চাষাবাদের সময়ও পুলিশের হস্তক্ষেপ ছিল। বর্তমানে হুমকি-ধমকির ঘটনা সম্পর্কে তিনি জানেন না। অভিযুক্ত ছালাম হাওলাদারের ছেলে হাবিব হাওলাদার জানান, হুমকি-ধমকির ঘটনা সম্পুর্ণ মিথ্যা। হাবিবের দাবি অংনয়দের জমি পাওয়ার কথাও মিথ্যা। তাদের জমি যা পাবে তার চেয়ে আরও বেশি বিক্রি করা হয়েছে। আরেক অসহায় ভূমিহীন মেলাপাড়া গ্রামের ছোবাহান মাতুব্বর। বছরের পর বছর ঘুরে মিঠাগঞ্জ মৌজার ৪৬৫৫ নম্বর দাগ থেকে এক একর খাস জমি বন্দোবস্ত পায়। যার বন্দোবস্ত কেস নম্বর ১৪ কে/২০১০-১১। দলিল নম্বর ৪৪২৬/২০১২, তারিখ- ২১-০৬-২০১২। এজমির নামজারি পর্যন্ত করে ছোবাহানের নামে নতুন ৩০৫ নম্বর খতিয়ান খুলে দেয় ভূমি অফিস। ওই জমি মাপজোক করে পিলার পুতে দেয় সার্ভেয়ার আনছার উদ্দিন। এরপরে চাষাবাদ করে ধান ফলায় ছোবাহান। কিন্তু প্রভাবশালী ভূমির মালিক ফজু হাওলাদার গং ছোবাহানের জমির পিলার উপড়ে ফেলেছে। এখন ধান রক্ষায় অসহায়ের মতো ঘুরছেন ছোবাহান। এ ঘটনায় তিনি একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কলাপাড়া থানার ওসি মোঃ আলাউদ্দিন জানান, জিডির প্রেক্ষিতে উভয়পক্ষকে নোটিশ করে কাগজপত্র পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় যথাযথ ব্যবস্থার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা ভঙ্গের কোন সুযোগ নেই।

শীর্ষ সংবাদ:
জীবন-জীবিকার বাজেট ॥ শতভাগ বাস্তবমুখী করার চেষ্টা         দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন         সারাদেশে ঝড়বৃষ্টি বজ্রপাতে ১৬ জনের মৃত্যু         কারাগারে সাংবাদিক রোজিনা, কাল জামিন শুনানি         সাংবাদিক নির্যাতনের কথা অস্বীকার করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী         বিভিন্ন মহলের নিন্দা         কানাডার কাছে ২০ লাখ এ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন চাইলেন মোমেন         অপরাজনীতি করছে বিএনপি ॥ কাদের         বাবুলের ডিগবাজি ও ফিরে দেখা অতীত         চ্যাটগ্রুপ তৈরি করে ফের জঙ্গী সংগ্রহ করা হচ্ছে         ব্যস্ত হয়ে উঠছে রাজধানী, দুদিনে ফিরেছেন ১১ লাখ মোবাইলধারী         ঈদের পর মার্কেট শপিংমল খুলতে শুরু করেছে         খিলক্ষেতে বন্দুকযুদ্ধে দুই ছিনতাইকারী নিহত         করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু         ভারতে করোনায় একদিনে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড         সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন         করোনা : গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩০, নতুন শনাক্ত ১২৭২         করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রকল্প সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে শেষ করতে হবে ॥ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর         গণপূর্ত, রাজউক,পাউবোর খালের দায়িত্ব ২ সিটি করপোরেশনে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী         তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকাডুবি