রবিবার ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

রফতানি আয়ে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ ৩০ মিশন

  • প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ১০ মিশনে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ থেকে সাধারণত ৫৭টি দেশে পণ্য ও সেবা রফতানি হয়ে থাকে। এসব দেশে রফতানির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলে অর্জিত হয় রফতানির সামগ্রিক লক্ষ্যমাত্রা। তবে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-অক্টোবর) ওই ৫৭ গন্তব্যের ৩০টিতেই অর্জিত হয়নি লক্ষ্যমাত্রা। তবে বাকি ২০টি গন্তব্যে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করেছে। এর মধ্যে ১০টি মিশনে ভাল প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। মিশনগুলো হচ্ছে বেইজিং, দুবাই, জেনেভা, সিউল, হ্যানয়, ভিয়েনা, কোপেনহ্যাগেন, দারুসসালাম, ব্যাংকক ও আঙ্কারা।

বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ তথ্য থেকে জানা গেছে, আলোচ্য সময়ে দেশ থেকে সামগ্রিকভাবে রফতানি হয়েছে ১ হাজার ১৫০ কোটি ডলারের পণ্য। অথচ এই সময়টাতে রফতানির কৌশলগত লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছিল ১ হাজার ১৫৯ কোটি ডলার।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম ৪ মাসের পণ্য রফতানি লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হলেও ২০১৬-১৭ অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় এবারের রফতানি আয় ৭ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জুলাই-অক্টোবর মেয়াদে পণ্য রফতানিতে আয় হয়েছিল ১ কোটি ৭৫ কোটি মার্কিন ডলার। এ কারণেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হলেও বার্লিন, ইয়াঙ্গুন, সিঙ্গাপুর, নয়াদিল্লী, কুয়ালালামপুর, প্যারিস, মস্কো, ম্যানিলা, জাকার্তা, লিসবন, ভিয়েনা, থিম্পু, রাবাত, হ্যানোয়, কাঠমান্ডু, ইসলামাবাদ, রিয়াদ, কলম্বো, বেজিং, দুবাই, জেনেভা এই ২০ গন্তব্যে গতবছরের তুলনায় রফতানি বেড়েছে।

ইপিবির তথ্য অনুসারে, বিশ্বে বাংলাদেশের যে ১৮ মিশনে বাণিজ্যিক কর্মকা- আছে তার মধ্যে মাত্র ৬টি মিশন রফতানি লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে পেরেছে। আর বাকি ৯ মিশনই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। বাণিজ্যিক কার্যক্রম থাকা যে ৬টি মিশন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পেরেছে সেগুলো হলো-বার্লিনম ইয়াঙ্গুন, অটোয়া, তেহরান, লন্ডন, মাদ্রিদ ও ওয়াশিংটন। আলোচ্য সময়ে সবচেয়ে বেশি রফতানি আয় এসেছে বার্লিন থেকে। এই সময়ে ওই গন্তব্য থেকে মোট ২০২ কোটি ৫২ লাখ ডলার রফতানি আয় এসেছে। এরপরেই ওয়াশিংটনে রফতানি করে আয় হয়েছে ১৮৯ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। আর এই সময়ে লন্ডনে রফতানি করে এসেছে ১২৫ কোটি ডলার। অটোয়া মিশন থেকে আয় হয়েছে ২৫ কোটি ডলার, দিল্লীতে রফতানি করে আয় হয়েছে ২২ কোটি ৬৯ লাখ ডলার।

এ বিষয়ে কথা হয় বাংলাদেশ নিট পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতির (বিকেএমইএ) সাবেক সভাপতি ফজলুল হকের সঙ্গে। তিনি বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা না হলেও সারা বিশ্বে এক ধরনের নীরব মন্দা চলছে। এটিই রফতানি আয় কমার আসল কারণ। তবে রানা প্লাজা ধসের পরে বেশকিছু বায়ার ব্র্যান্ড তাদের ব্যবসা এখানে বন্ধ না করলেও সম্প্রসারণ করেনি। এটিও রফতানি আয়ে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

পাশাপাশি স্থানীয় বিনিয়োগ কম হচ্ছে। এর ফলে রফতানি আয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। এ প্রসঙ্গে রফতানিকারকদের সংগঠন ইএবির সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী জনকণ্ঠকে বলেন, গতানুগতিক দেশের মধ্য থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না রফতানি খাত।

নতুন নতুন দেশের দিকে ব্যবসায়িক পরিসর বাড়াতে হবে। মিশনগুলো এ কাজে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করতে পারে। বিশেষ করে কোন দেশে কখন কোন ধরনের পণ্যের উপযোগিতা ও চাহিদা রয়েছে, সেটা তারা খুঁজে বের করে সে মোতাবেক ব্যবসায়ীদের পরামর্শ দিতে পারে। তবেই সফলতা আসবে।

শীর্ষ সংবাদ:
অবিশ্বাস্য অর্জন ॥ বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল         বাসযোগ্য পৃথিবী গড়তে ঐক্য চাই         বঙ্গবন্ধুর শাসনব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করুন         ছাত্রলীগ নেতাসহ ৯ শিক্ষার্থী সাময়িক বহিষ্কার         শক্তি হারিয়ে জাওয়াদ গভীর নিম্নচাপে পরিণত         সড়কে অনিয়মের বিরুদ্ধে লাল কার্ড প্রদর্শন শিক্ষার্থীদের         এলডিসি উত্তরণে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান         উন্নয়নে পাকিস্তান আমাদের ধারে কাছেও নেই         আমদানির জ্বালানি তেল আর লাইটারিং করতে হবে না         পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থা রাজধানীর ৮০ ভাগ ভবনে নেই         চট্টগ্রামে অটোরিক্সা-ডেমু ট্রেন-বাস সংঘর্ষে পুলিশসহ হত ৩         খালেদাকে বিদেশ নিতে কূটনৈতিক পাড়ায় বিএনপির দৌড়ঝাঁপ         আন্দোলনেই খালেদার বিদেশে চিকিৎসা নিশ্চিত করা হবে         বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় ঐক্যের বিকল্প নেই ॥ রাষ্ট্রপতি         করোনা ভাইরাসে আরও ৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৭৬         ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ ॥ সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত         বৈধ সরকারের পতন ঘটানো যাবে না: কৃষিমন্ত্রী         ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ ॥ সেন্টমার্টিন রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ ঘোষণা         কুয়েটের শিক্ষকের মৃত্যু ॥ ৯ শিক্ষার্থী সাময়িক বহিষ্কার         ১৬ জানুয়ারি আমরা প্রধানমন্ত্রীকে নৌকা উপহার দেব ॥ আইভী