সোমবার ৩ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বেগমজানের ফেরা ও সাবধানতা

  • সিডনির মেলব্যাগ ॥ অজয় দাশগুপ্ত

বেগম জিয়া ফিরেছেন। কেন কীভাবে কোন্ কারণে ফিরলেন তিনিই ভাল জানেন। তবে ফেরার পর থেকে বিএনপির পেশির মহড়া শুরু হয়ে গেছে। তাদের আইনজীবীরাও এখন মনের সুখে মারামারিতে লিপ্ত। গুজবের দেশে তারা বলছে মানুষের ঢলে নাকি ভেসে গিয়েছিল রাজধানী। সামাজিক মিডিয়ায় টঙ্গী এজতেমার ছবি দিয়ে অপপ্রচার আর এদের জোশ দেখে আমার মতো অনেকেই ভয় পাবেন বৈকি! লন্ডনে কোন ষড়যন্ত্র আর নীলনক্সা হয়েছে কে জানে। আরা এরা খুনের রাজনীতিতে পটু। এরা অঘটন ঘটাতে শেখ হাসিনাকেই হয়ত টার্গেট করবে।

এদিকে এখন আওয়ামী লীগাররা মুখে যা বলে কাজে তার সিকিভাগ থাকলেও পঁচাত্তরে অনেক কিছু ঘটতে পারত না। আজ যারা বীর, আজ যারা মুখ খোলেন সে রাতে এবং তারপরে তারা সবাই ছিলেন নীরব দর্শক কিংবা সহযোগী। বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর কুড়ি বছরের বেশী সময় লেগেছে তাঁর ইমেজ ফিরিয়ে আনতে। মানুষের মনে বা ঘরে ঘরে তাঁকে পৌঁছে দিতে। আজ যারা শেখ হাসিনাকে নিয়ে নর্তন-কুর্দন করেন তাদের কাছে বিনীতভাবে জানতে চাই আদালত প্রাঙ্গণে স্লোগান উঠেছে পঁচাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার। এর মানে আপনারা জানেন না? কিন্তু এরা জানে।

বিমানের নাটবল্টু খুলে যাওয়া বা ঢিলে হয়ে পড়ার ঘটনাটা সহজ কিছু না। এর পেছনে যে রহস্য তার উদঘাটন ব্যতিরেকে প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ থাকতে পারেন না। শেখ হাসিনার ওপর যাদের রাগ তাদের আমরা জানি। তবে যারা রেগে ভালবাসার অভিনয় করেন তাদের চিনি না। এরাই এসব ঘটনার হোতা। বহু দেশের সরকার প্রধান বা নেতাদের এভাবে কুপোকাত করা হয়েছে। এটাকে দুর্ঘটনা না বলে বলা দরকার আকাশ ক্যু। পাকিস্তানের জিয়াউল হক, ভারতের সঞ্জয় গান্ধী, ফিলিপিন্সের একুইনো সবাই এর শিকার। ইতিহাস বলে দুবারের বেশী সার্ভাইভ করেন না কেউ। কিন্তু প্রকৃতির অপার আশীর্বাদে আমাদের প্রধানমন্ত্রী বেশ কয়েকবার বেঁচে গেছেন। শেখ হাসিনাকে সর্বতোভাবে ভাললাগার কারণ যতটা তারচেয়ে বেশী দরকার টিকে থাকা। তিনি যদি টিকে না থাকেন তো যাদের লাভ তারাই মোশতাকের বংশধর। এরা সরকারী দলে,বিরোধী দলে সব জায়গায় চড়ে বেড়াচ্ছে।

আজকের বাংলাদেশটা আমাদের দেখা স্বদেশের সঙ্গে ঠিক মেলে না। এর আগেও আমরা অনেক ক্রাইসিস দেখেছি। অনেক কঠিন সময় পাড়ি দিয়েছি। কিন্তু এবার যা দেখছি তার নাম হিপোক্রেসি। এমন দ্বৈত বা ততধিক সত্তা কম জাতিতে দৃশ্যমান। মুখে মুখে এত আওয়ামী লীগার স্বয়ং বঙ্গবন্ধুও দেখে যেতে পারেননি। দেশের রাজনীতিতে সবকিছু একপেশে বলে বোঝা যায় না। তলে তলে কত ধরনের দুশমন। এত আওয়ামী লীগার, এত কর্মী, এত নেতা, এত প্রেমিক অথচ ভোটের বাক্স নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই। শুধু তাই নয়, এরা এত মোসাহেব, এত স্তাবক, আসল মানুষের চেহারাই ভুলিয়ে দিয়েছে তারা। যে কারণে মনে হতে পারে সবাই আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাপ্রেমিক, মূলত আমাদের প্রধানমন্ত্রীর বিমানের নাটবল্টুও খুলে রাখার কাজ চলছে সমানে।

যারা এসব কাজের পেছনে তাদের কোনদিনও ধরতে পারেনি দেশ। ধরতে পারে তাদের যারা কাজের মিস্ত্রি বা চাকর টাইপের। যেমন যত খুন-খারাবি হয় দেখবেন গুলি, টোটা বা কার্তুজের বিচার হচ্ছে। বন্দুক, রাইফেল, কামানের টিকিটাও ধরতে পারে না কেউ। এবার এ ঘটনার পর বিমানমন্ত্রী মেনন সাহেব বলেছেন তার বা মন্ত্রণালয়ের হাতে নাকি আসলে কিছু নেই। যদি তাই হয় আছে যাদের কাছে তারা তবে কার অধীনে? বিমানের মাঠ পর্যায়ের মানুষরা এ কাজ করতে পারে এটা কোন পাগলও বিশ্বাস করবে না। আমাদের রাজনীতি ও সিস্টেম এমন এক জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে দায়িত্ব অস্বীকার বা এড়িয়ে যাওয়াটাই হলো মূল বিষয়। কারণ, এর জন্য শাস্তি নেই, জবাবদিহিতাও নেই। তা না হলে আমরা এমন বক্তব্য পেতাম যাতে আশার কথা থাকত। নিজের ভূমিকার কথা থাকত। সেটা পাওয়া গেল না। এখন খবরে দেখছি এর সঙ্গে নাশকতার যোগসূত্র আছে কি নেই তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নাশকতার আর বাকিটা কি? এত মানুষের চোখ এড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বহন করা বিমানটি বিপদ মাথায় নিয়ে আকাশে উড়ল আবার মাঝপথে নামতে বাধ্য হলো আবার ফিরে আসার পর নেতা মন্ত্রীরা, সারিবেঁধে তাকে এয়ারপোর্ট থেকে নিয়েও এলো, যেন কিছুই হয়নি কোথাও। আমি বলছি না মাতম করতে হবে; কিন্তু কর্তব্যকর্মে অবহেলার পর যে অনুভব তার ছাপ তো থাকতে হবে কোথাও।

দেশের সামগ্রিক যে চেহারা তাতে বিপদের কমতি হবে বলে মনে হয় না। আকাশে, মাটিতে, ঘরে-বাইরে তারা সচেষ্ট। একটা বিষয় মাথায় ঢোকে না, যেসব মানুষ রাষ্ট্র ও সমাজবিরোধী, উদারতাবিরোধী বলে জেলে ছিলেন, সরকারকে সায়েস্তা করার নামে যারা আগুন নিয়ে খেললেন তারা একে একে বেরিয়ে আসছেন কীভাবে? কীভাবে খালেদা জিয়ার টিকিটাও ছুঁতে পারছে না সরকার? মুখে আইনে মামলায় যত কথাই হোক বাস্তবে ভালই আছেন তিনি। তার ভাল না থাকার কথা বলছি না। কেন তিনি খারাপ থাকবেন? কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, তাহলে কি ধরে নেব মামলা বা শাস্তির বিষয় পাতানো? না এগুলো ভিত্তিহীন? তাকে আড়ালে রাখতে পারলে সাময়িকভাবে তৃপ্তি পাওয়া হয়ত সম্ভব; কিন্তু সমাধান নয়। হয় তাকে মাঠে নামতে দিতে হবে, নয়ত কেন তা হবে না তার একটা আইনী ব্যবস্থা কিংবা বিচার দেখাতে হবে। কারণ, রাজনীতির নিয়মই হচ্ছে সে তার কাজ বা ভূমিকা রাখতে না পারলে আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যায়। যে রাজনীতি ভূতলে যায়, গোপনে কাজ করতে চায় তার কাছে তখন আর নাশকতার বিকল্প থাকে না। যেহেতু সে প্রকাশ্য না, যেহেতু জনগণের কাছে তার কোন জবাবদিহিতা নেই তখন তার আশ্রয় হয়ে ওঠে ধ্বংস। বাংলাদেশের রাজনীতিতে কারা এ পথ নিতে পারে সেটা বুঝিয়ে বলার দরকার পড়ে না। সেদিকে নজর না দিলে এসব সমস্যার সমাধান অসম্ভব।

সরকারের জনপ্রিয়তার দিকটা যাই হোক, শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। তার অদম্য আগ্রহ আর শক্তিতে পরাজিত জামায়াতী মানবতাবিরোধী দালালরা সমাজের সব জায়গায় ঘুণ ধরাতে পারলেও কোণঠাসা। তাদের নেতাদের বিচারের শাস্তি তারা সহজে ছেড়ে দেবে না। এ কারণে সাবধানতার পাল্লা আরও ভারি হওয়া প্রয়োজন। এটা মানতে হবে দেশে-বিদেশে এদের নেটওয়ার্ক আছে। শক্তিশালী ক্যাডারভিত্তিক রাজনীতিতে নিজে মরে অন্যকে মারার অপকৌশল আছে দুনিয়ায়। এগুলো গোয়ান্দাদের না জানার কথা নয়। আছে নাশকতার বিবিধ পথ। আকাশে সাবধানতার পাশাপাশি মাটিতেও সাবধান হতে হবে। ইন্দিরাজীর মতো লৌহমানবীকেও আমরা এর শিকার হতে দেখেছি। বাংলাদেশের রাজনীতিতে যারা খুনের নেশায় পাগল তারা যে কি করতে পারে সেটা একুশে আগস্টেই দেখেছিলাম। ইতালি যাবার পথে বিমান আকাশের ওপর থেকে আবার নিচে নামাও নাকি ছিল সামান্য ভুল। চল্লিশ হাজার ফুট থেকে চার হাজারে নেমে আসার কোন কারণ এখনও জানেনি জাতি। এবার তো আগুন ধরেই যেতে পারত। এর পরের বারও কি অজুহাতের কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে?

শেখ হাসিনা কোন্ দলের বা কোন্ সরকারের প্রধান, তারচেয়েও বড় তিনি এখন আলো ও উদারতার দিশারী। সেখানে যাদের আক্রোশ তাদের হাত থেকে তাঁকে বাঁচানোর কাজটাও তাদের যারা এদেশে ভালভাবে, সুন্দরভাবে উদারনৈতিকতায় বাঁচতে চায়। তারা কেন নীরব থাকে? যারা নানাভাবে উপকৃত, যারা তাঁর সাহায্য-সহযোগিতার কাঙ্গাল তাদের নীরবতাও প্রশ্নময়।

আজ তাই আমরা উদ্বিগ্নতার পাশাপাশি সতর্ক হতে চাই। আমাদের দেশের কপালে উন্নয়নের রাজটিকা পরিয়ে দেয়া শেখ হাসিনাকে যাদের টার্গেট তারা এদেশকে মধ্যযুগে নিতে চায়। হানাহানি, মারামারি আফগান স্টাইলে বিপ্লবের নামে সাম্প্রদায়িকতার বিস্তার চায় এরা। এদের শিকার হলে দেশ তো গোল্লায় যাবেই, জনগণের কপালে নেমে আসবে বিশাল দুর্ভোগ। শেখ হাসিনার আশপাশ থেকে জঞ্জাল হটানোর বিকল্প নেই।

ভুললে চলবে না পঁচাত্তের দুশমনরা এখনও সক্রিয়। এখনও দলে মোশতাকদের অবস্থান আছে। সঙ্গে আছে স্বাধীনতাবিরোধীদের চক্রান্ত। তাই কে কখন কি করে বোঝা মুশকিল। সাবধানতার পথ কে দেখাবে সেটাও কুয়াশাচ্ছন্ন আজ।

[email protected]

শীর্ষ সংবাদ:
সোনার বাংলা গড়তে ঐক্য চাই         আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর রংপুরে মঙ্গা নেই         এসেছে শীতের শেষ মাস, সঙ্গে উৎসব         পার্বত্য অঞ্চলের উন্নয়ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী চেষ্টা চালাচ্ছেন         নাশকতার ছক ব্যর্থ, ভয়ঙ্কর রোহিঙ্গা জঙ্গী গ্রেফতার         শাবি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা         নাসিক নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৫০ শতাংশ ॥ ইসি সচিব         দুই সপ্তাহের জন্য স্থগিত একুশে বইমেলা         মাদারীপুরে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া, ভাংচুর ॥ কুমিল্লায় চারজন জেলে         নাসিকে ভোট পড়েছে ৫০ শতাংশ : ইসি         আইভীই নাসিক মেয়র         নতুন শ্রমবাজার অনুসন্ধানের তাগিদ রাষ্ট্রপতির         একদিনে করোনায় মৃত্যু ৮, শনাক্ত ৫ হাজার ছাড়াল         সংসদ অধিবেশনে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী         আমি সারাজীবন প্রতীকের পক্ষেই কাজ করেছি ॥ শামীম ওসমান         নাসিক নির্বাচনে ফলাফল যাই আসুক আ.লীগ তা মেনে নেবে         নির্দিষ্ট দিনে হচ্ছে না বইমেলা, পেছাল ২ সপ্তাহ         ফানুস-আতশবাজি বন্ধে হাইকোর্টে রিট         নৌকারই জয় হবে ॥ আইভী         ভোটাররা এবার পরিবর্তন চান ॥ তৈমূর