মঙ্গলবার ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে উঠছে চরের মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ লৌহজংয়ের চরাঞ্চলবাসী বন্যার ধকল কাটিয়ে পুনরায় চাঙ্গা হচ্ছে। এবারের বন্যায় লৌহজং উপজেলার চরাঞ্চলের ২৫টি গ্রাম কবলিত হয়। আর এতে প্রায় ২০ হাজার মানুষ বন্যার শিকার হয়। ২০ দিন স্থায়ী এ বন্যায় বাড়িঘর প্লাবিত হওয়ায় বন্যার্তরা কষ্টে দিন কাটাতে শুরু করে। তবে বন্যা শুরুর সাত দিনের মাথায়ই ত্রাণসহ সেখানে ডিসি ও এসপিকে সঙ্গে নিয়ে হাজির হন স্থানীয় সংসদ সদস্য। পরে একের পর এক সরকারী-বেসরকারী ত্রান নিয়ে হাজির হয় অনেক মানুষ ও প্রতিষ্ঠান। বাড়িঘরে পানি ঢুকলেও খাবারের কষ্ট করতে হয়নি কাউকে। তবে গবাদিপশু নিয়ে মানুষজনকে পড়তে হয় বিপাকে। আশ্রয়কেন্দ্র থাকা সত্ত্বেও সিংহভাগ বন্যার্ত সেখানে যায়নি বাড়িঘর লুট হওয়ার ভয়ে ও আশ্রয়কেন্দ্রে গতবার ডাকাতি হওয়ায়।

চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের প্রধান পেশা হলো কৃষি ও পশুপালন। গত কয়েক বছর ধরে জেলার লৌহজং ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেশিরভাগ সবজির চাহিদা মিটিয়ে থাকে এ চরাঞ্চলবাসী। এবারের বন্যায় সবজির বীজতলা তলিয়ে গেছে প্রায় শতভাগ। বন্যা চলে যাওয়ার পর কৃষক পুনরায় সবজি বীজ লাগালেও গত সপ্তাহের টানা কয়েকদিনের বৃষ্টিপাতে সেগুলো নষ্ট হয়ে যায়। পাইকারা গ্রামের কৃষক শাজাহান জানান, তিনি তৃতীয়বারের মতো সবজির বীজ রোপণ করেছেন। একই কথা জানালেন ঝাউটিয়া গ্রামের নারী কৃষক শহিদা, সামর্থ্যবান বিবি। শহিদা বলেন, আমরা চরের মানুষ সহজে হারি না, হারব না। মন্দ আবহাওয়ার সঙ্গে ফাইট করেই আমাদের টিকে থাকতে হয়।

বন্যার পর গরুর খাবারের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে গরুর দুধের পরিমাণ গেছে কমে। তাই গরুকে সচরাচর খাবার না দিয়ে কৃষকরা পদ্মার শাখা নদী থেকে কাশবন অর্থাৎ স্থানীয় ভাষায় কাইশ্যা বা লডা এনে খাওয়াচ্ছে।

চরের কোরহাটি, তেউটিয়া, ঝাউটিয়া, পাইকারা, সাইনহাটি, ব্রাহ্মনগাঁও, রাউতগাঁও ও ভোজগাঁও গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে কৃষকের সংগ্রামী প্রচেষ্টা। বন্যা সব ভাসিয়ে নেয়ার পরও আবার নিজেদের সংসার গুছিয়ে নিতে কাজ করছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, বন্যায় লৌহজং চরের ২৫ হেক্টর জমির আমনের ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও বনাভাসি মানুষের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কৃষক ঝাঁপিয়ে পড়েছে মাঠে। কৃষি বিভাগ সাধ্যানুযায়ী পাশে রয়েছে।

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা জানান, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর চরের বাসিন্দারা আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারীভাবে সাধ্যানুযায়ী সহযোগিতা করা হয়েছে। তাদের পুনর্বাসনেও সরকার সহায়ক কর্মসূচী নিচ্ছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি বলেন, বন্যায় ক্ষতবিক্ষত চরের জনপথ সুরক্ষায় এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পুনর্বাসনে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে সঙ্গে কথা হয়েছে। বিভিন্ন এনজিওকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বর্তমান সরকার অনগ্রসর মানুষসহ সবার ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে। আর তাই লৌহজংয়ে চরের মানুষেরও ভাগ্যবদলে কাজ করে যাচ্ছি।

শীর্ষ সংবাদ:
ঢাকা ছেড়ে কোথায় পালালেন ডা. মুরাদ?         বহিষ্কৃত মেয়র জাহাঙ্গীরের মোটরসাইকেলে মুরাদ, ছবি ভাইরাল         ইন্দোনেশিয়ায় আগ্নেয়গিরির উদগীরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২         ‘লম্পটদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর পদক্ষেপ অব্যাহত থাকুক’         আজ নালিতাবাড়ী পাক হানাদার মুক্ত দিবস         বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে ॥ স্পিকার         ভারতের জয়পুরে ৯ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত         ঢাকায় পৌঁছেছেন ভারতের পররাষ্ট্রসচিব শ্রিংলা         বৃষ্টি থেমেছে, মিরপুর টেস্টের চতুর্থ দিনের খেলা শুরুর সম্ভাবনা         গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন ৫ হাজার ২৮০ জন         শীর্ষে যাবে রফতানিতে ॥ গার্মেন্টস শিল্পে ঈর্ষণীয় সাফল্য         ঢাকা-দিল্লী সম্পর্ক আস্থা ও শ্রদ্ধায় বিস্তৃত         ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার ১১ মাসের মাথায় সুচির কারাদণ্ড         বিশ্বজুড়ে শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দিচ্ছেন শেখ হাসিনা         অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের সচিব পদোন্নতি দেয়ার প্রক্রিয়া!         বিজয়ের মাস         জাওয়াদ দুর্বল হয়ে লঘুচাপে রূপ নিয়েছে         ৪৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রিপোর্ট দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ         অরাজকতা সৃষ্টির নীলনক্সা জামায়াতের         আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের সূচনা ৬ ডিসেম্বর