ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯

বরিশালে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশিত: ০০:১২, ৩০ আগস্ট ২০১৭

বরিশালে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ প্রেমের সম্পর্কে বিয়ের প্রলোভনে নবম শ্রেনীর ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে পরবর্তীতে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি করায় প্রেমিকের সাথে অভিমান করে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে প্রেমিকা সুখী আক্তার। নিহতের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে মঙ্গলবার রাতে পারিবারিক গোরস্তানে দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ঘটনাটি জেলার উজিরপুর উপজেলার গুঠিয়া ইউনিয়নের শংকরপুর গ্রামের। নিহত সুখী খানম ওই গ্রামের নোয়াব আলী হাওলাদারের কন্যা ও মহেষচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী। প্রেমিক এনায়েত হোসেন একই ইউনিয়নের তেরদ্রোন গ্রামের আব্দুল আজিজ হাওলাদারের পুত্র। গুঠিয়া মহেষচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মিন্টু, স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার, নিহত সুখীর পরিবারসহ স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যালয়ের চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য ছাত্র এনায়েত হোসেনের সাথে নবম শ্রেণীর ছাত্রী সুখী খানমের দীর্ঘদিন থেকে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিলো। সে সুবাধে এনায়েত বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সুখীর সাথে শারিরীক সম্পর্ক গড়ে তোলে। এতে সে (সুখী) আড়াই মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পরে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর সুখী তার প্রেমিক এনায়েতকে বিয়ের জন্য পাঁচ প্রয়োগ করলে সে (এনায়েত) বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে অভিমান করে সুখী লোকলজ্জায় গত ২৬ আগস্ট সন্ধ্যায় নিজ গৃহে বসে বিষপান করে। পরিবারের লোকজনে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় সুখীকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৮ আগষ্ট রাত নয়টায় সুখী মৃত্যুবরণ করে। এদিকে সুখীর আত্মহত্যার ঘটনায় বুধবার সকাল থেকে ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে উজিরপুর মডেল থানার ওসি গোলাম সরোয়ার হোসেন জানান, এখনও থানায় কেউ অভিযোগ করেননি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।