ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

পুলিশের খাতায় পলাতক ॥ শহরজুড়ে আলোচনা

বগুড়ার কেন্দ্রস্থলে তুফানের ভাই মতিনের ছবি সংযুক্ত বিলবোর্ডে ঈদ শুভেচ্ছা

প্রকাশিত: ০৪:২৩, ২৯ আগস্ট ২০১৭

বগুড়ার কেন্দ্রস্থলে তুফানের ভাই মতিনের ছবি সংযুক্ত বিলবোর্ডে ঈদ শুভেচ্ছা

স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ বগুড়ায় প্রায় ১শ’ ফুট দীর্ঘ একটি বিলবোর্ডের ওপর ব্যানার নিয়ে সর্বত্র চলছে নানা সমালোচনা, আলোচনা। পুলিশের খাতায় পলাতক সন্ত্রাসী ও শহর জুড়ে ত্রাস সৃষ্টিকারী হিসেবে চিহ্নিত মতিন সরকারের এই ছবি সম্বলিত ব্যানার নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। আলোচিত ধর্ষক তুফান বাহিনীর প্রধান মতিন সরকার ছোট ভাই তুফানের ধর্ষণ ও মা মেয়েকে নির্যাতনের ঘটনার পর (তুফান কা-) গা-ঢাকা দিয়েছিল। দেশ জুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করা ঘটনার পর তুফান পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলেও মতিন বাহিনীসহ গা-ঢাকা দেয়। ওই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই হঠাৎ করে শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথা এলাকায় বিশাল ছবি দিয়ে তুফান- মতিন বাহিনীর নতুন করে আত্মপ্রকাশ কিনা তা নিয়ে বগুড়ার শান্তিপূর্ণ ও সচেতন মানুষদের শঙ্কিত করে তুলেছে। বিশাল এই ব্যানারে এক পাশে রয়েছে মতিন বাহিনী প্রধান মতিনের ছবি আর অন্য পাশে মতিনের স্বঘোষিত আশ্রয়দাতা ও হঠাৎ করে কোটিপতি বনে যাওয়া আব্দুল মান্নানের ছবি। ঈদ উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে ওই বিশাল আকৃতির প্যানায় বগুড়াবাসীকে। আর ত্রাস সৃষ্টিকারীদের ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা নিয়ে চারদিকে চলছে এখন আলোচনার ঝড়। একটি অস্ত্র মামলায় মতিন সরকারের ২৭ বছরের সাজা হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলাও রয়েছে। আর ঈদের শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে, ট্রাক মালিক সমিতির ব্যানারে। তুফান কা-ের পর মতিন- তুফান বাহিনীর নানা অপকর্ম, মাদক ব্যবসা, সন্ত্রাস ও ভূমি দখল, হত্যা চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন ঘটনা বেরিয়ে আসতে শুরু করায় মতিনসহ বাহিনীর অন্যান্য সদস্যরা গা-ঢাকা দেয়। তুফান-মতিনের আরও ৩ ভাই বগুড়ায় মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের তালিকায় গডফাদার হিসেবে চিহ্নিত। রয়েছে একাধিক মামলা। অবৈধ উপায়ে অর্জিত কোটি কোটি টাকা মতিন-তুফান বাহিনীর কর্মকা- শহর জুড়ে আলোচিত। তুফান কা-ের পর এই বাহিনী পলাতক থাকলেও তাদের অর্থবিত্তের প্রভাব নানা স্থানে আলোচিত। তাদের এই প্রভাব নির্যাতিতদের আকুতি কি হারিয়ে যাবে সে প্রশ্নও ছিল শহরবাসীর। এমন অবস্থায় আবার মতিন বাহিনী নতুন করে গা-ঝাড়া দিয়ে বেরিয়ে আসছে তাদের আশ্রয়দাতাদের কল্যাণে। পলাতক থাকলেও শহরের কেন্দ্রস্থলে বিশাল ছবি ঝুলিয়ে দিয়ে আবার এই বাহিনী প্রকাশ্যে গা-ঝাড়া দিয়ে আসছে এমন প্রমাণ এখন সর্বত্র। রবিবার হঠাৎ করে শহরের সাতমাথায় কমার্শিয়াল বিলবোর্ডে আব্দুল মান্নান ও মতিনের বিশাল ছবি সম্বলিত বিলবোর্ড দেখে অনেকে হকচকিয়ে যান। পলাতক ও সরকারের জন্য বিব্রতকর এমন ব্যক্তির ছবি কিভাবে শহরের প্রধান বাণিজ্যিক এলাকায় স্থান পেল তা নিয়ে শুরু হয় নানা গুঞ্জন। আর এখানেও অনেকে সমীকরণ মেলাতে থাকেন বিপুল বৈভব বিত্তের প্রভাব ও আশ্রয়দাতাদের আশীর্বাদ। এক পাশে মতিন সরকারের ছবি আর অন্যপাশে রয়েছে আব্দুল মন্নানের ছবি, যিনি বিভিন্ন মিডিয়ায় মতিনকে আন্ডার ওয়ার্ল্ডের নিয়ন্ত্রক এবং তার দায়িত্ব নিতে স্বঘোষিত বক্তব্য দিয়েছিলেন। শহর জুড়ে আলোচনা রয়েছে, এই আব্দুল মান্নান মতিনকে সামনে রেখে কয়েক বছরের মধ্যে ক্ষমতাধর বনে যান। বগুড়ার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জাামানের সঙ্গে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মতিন সরকারের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার ওয়ারেন্ট রয়েছে। সে এখন পলাতক। শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথায় কিভাবে তার বিশাল আকৃতির ছবি এলো সেটি পুলিশের ব্যাপার নয়। তিনি জানান, বিলবোর্ডের ছবি লাগানো পৌরসভার বিষয়।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২