বুধবার ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ফি না দেয়ায় বন্ধ ৭০ হাজার বিও হিসাব

  • ৩০ জুন ছিল নবায়নের শেষ দিন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বেঁধে দেয়া সময়ে নবায়ন ফি জমা না দেয়ায় শেয়ারবাজারে ৭০ হাজার বেনিফিশারি ওনার্স (বিও) এ্যাকাউন্ট (হিসাব) বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ তালিকায় বিভিন্ন কোম্পানির ৬১টি এবং প্রবাসী বাংলাদেশীদের (এনআরবি) ২ হাজার ৮৫১টি হিসাব রয়েছে। বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউস ও মার্চেন্ট ব্যাংকের সুপারিশে এ সিদ্ধান্ত নেয় ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে শেয়ার সংরক্ষণকারী কোম্পানি সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল)।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিও নবায়নের শেষ সময় ছিল ৩০ জুন। তবে ব্রোকারেজ হাউসগুলো বিনিয়োগকারীদের ২৫ জুন পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল। এরপরই হাউসগুলো থেকে বিও হিসাব বন্ধের তালিকা পাঠানো শুরু হয়। আর সর্বশেষ হিসাবে দেশের শেয়ারবাজারে মোট বিও হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩১ লাখ ৪৮ হাজার। সিডিবিএল সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বাজারের স্বচ্ছতায় এ ধরনের সিদ্ধান্ত ইতিবাচক।

সূত্র জানায়, বর্তমানে বিও এ্যাকাউন্ট নবায়ন করতে ৫০০ টাকা লাগে। এর মধ্যে সিডিবিএল ১৫০ টাকা, হিসাব পরিচালনাকারী ব্রোকারেজ হাউস ১০০ টাকা, নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড কমিশন (বিএসইসি) ৫০ টাকা এবং বিএসইসির মাধ্যমে সরকারী কোষাগারে ২০০ টাকা জমা হয়। আর এ খাত থেকে গত বছর সরকারকে ৮১ কোটি টাকা দিয়েছিল বিএসইসি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিডিবিএলের একজন উর্ধতন কর্মকর্তা বলেন, ব্রোকারেজ হাউস থেকে বন্ধের তালিকা পাঠানো হয়। এটি চলমান প্রক্রিয়া। এখানে সিডিবিএলের খুব বেশি কিছু করার নেই। তিনি আরও বলেন, যেসব বিও হিসাবে শেয়ার রয়েছে সেসব হিসাবের ট্রেড সাসপেন্ড করা হয়েছে। বিও নবায়ন ফি জমা দিলেই হিসাবধারী ট্রেড করতে পারবেন। এজন্য তাকে কোন জরিমানা দিতে হবে না। আর যেসব হিসাবে কোন শেয়ার নেই সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

প্রতি বছর ৩০ জুনের মধ্যে এই ফি সিডিবিএলে জমা দিতে হয়। এ বছর ব্রোকারেজ হাউসগুলো বিনিয়োগকারীদের ২৫ জুন পর্যন্ত সময় দিয়েছিল। এরপরই নবায়ন ফি দিতে ব্যর্থ হওয়ায় এ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ করা শুরু হয়। আর ২৫ জুনের আগে শেয়ারবাজারে মোট বিও এ্যাকাউন্টের সংখ্যা ছিল ৩২ লাখ ১৮ হাজার। বর্তমানে তা ৩১ লাখ ৪৮ হাজার ২৩৪টি নেমে এসেছে। এর মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারী ২৯ লাখ ৮১ হাজার ৭১৬টি, প্রবাসী বাংলাদেশীদের ১ লাখ ৫৫ হাজার ৭৫২টি এবং বিভিন্ন কোম্পানি ১০ হাজার ৭৬৬টি। তবে সিডিবিএল সূত্র বলছে, ৩০ জুন পর্যন্ত সময় দেয়া হলেও অলিখিতভাবে আরও কিছুদিন সময় রয়েছে। ফলে এ্যাকাউন্ট বাতিলের সংখ্যা আরও বাড়বে। গত বছর এ প্রক্রিয়ায় তারা ১ লাখ ৭২ হাজার বিও এ্যাকাউন্ট বাতিল করেছিল। তবে যেসব এ্যাকাউন্টে শেয়ার আছে, অথবা টাকা জমা আছে, ওই এ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেয়া হয়। এছাড়া বেশকিছু হাউস এ্যাকাউন্ট খোলার জন্য সিকিউরিটি ডিপোজিট বা জামানত জমা দিয়েছে। ওই সব এ্যাকাউন্ট বন্ধ করা হয়নি। সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) ডিপোজিটরি (ব্যবহারিক) প্রবিধানমালা-২০০৩ এর তফসিল-৪ অনুযায়ী, বিও হিসাব পরিচালনার জন্য ডিপোজিটরি অংশগ্রহণকারী বা বিনিয়োগকারীকে নির্ধারিত হারে বার্ষিক হিসাবরক্ষণ ফি দিয়ে হিসাব নবায়ন করতে হয়। এর আগে পঞ্জিকা বর্ষ হিসেবে প্রতি বছর ডিসেম্বরে এই ফি জমা নেয়া হতো। তবে ২০১০ সালের জুন মাসে বিএসইসি বিও হিসাব নবায়নের সময় পরিবর্তন করে বার্ষিক ফি প্রদানের সময় জুন মাস নির্ধারণ করে। এ সময়ে বিও নবায়ন ফি ৩০০ থেকে বাড়িয়ে ৫০০ টাকা করা হয়। এরপর বিএসইসির জারি করা ২০১১ সালের ১৮ এপ্রিল এক সার্কুলারে ৩০ জুনের মধ্যে বিও হিসাব নবায়নের বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়। না হলে তা বাতিল করা হবে বলে ওই সার্কুলারে বলা হয়েছিল।

সিডিবিএলের তথ্য অনুসারে, সারাদেশে ৩১ লাখ ৪৮ হাজার ২৩৪টি বিও হিসাবের মধ্যে ঢাকায় ২৪ লাখ এবং ঢাকার বাইরে ৭ লাখ। কিন্তু গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৫১৮টি সক্রিয় বিও পাওয়া গেছে। এগুলোতে শেয়ার আছে এবং এগুলো থেকে নিয়মিত লেনদেন হয়। এছাড়া ১১ লাখ ২৫ হাজার ২৩৩টি বিওতে কখনও কখনও শেয়ার থাকলেও গত বছরের জানুয়ারি থেকে তা শূন্য হয়ে যায়। ৪ লাখ ৮৪ হাজার ১০১টি বিও এ্যাকাউন্টে কখনই শেয়ার ছিল না। এসব বিও এ্যাকাউন্ট সাধারণত আইপিওর জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। লটারিতে কোন শেয়ার বরাদ্দ পায়নি বলে এসব এ্যাকাউন্টে কোন শেয়ার নেই। অন্যদিকে ঢাকায় বিও এ্যাকাউন্টের জন্য মেশিন রিডেবল হিসাব ব্যবহারের নিয়ম রয়েছে।

কিন্তু ঢাকায় ২৪ লাখ এ্যাকাউন্টের মধ্যে বেশকিছু এ্যাকাউন্টে মেশিন রিডেবল হিসাব নেই। সূত্র জানায়, পুঁজিবাজারে আইপিও আবেদনের জন্য নামে-বেনামে প্রচুর বিও হিসাব খোলা হয়। একই ব্যক্তি এক থেকে দেড় শ’ পর্যন্ত বিও হিসাব পরিচালনা করে। আর এসব বিওতে শুধু আইপিও আবেদন করা হয়। ২০০৯ সালের জুন পর্যন্ত বিও হিসাবের সংখ্যা ছিল ১৪ লাখ। কিন্তু ২০১০ সাল শেষে তা ৩৩ লাখ ছাড়িয়ে যায়। আর এ প্রবণতা রোধে বিও এ্যাকাউন্ট খুলতে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক করা হয়।

শীর্ষ সংবাদ:
শাবিপ্রবি সংকট : শিক্ষার্থীদের সব দাবি বাস্তবায়ন হবে ॥ শিক্ষামন্ত্রী         বগুড়ায় বাসচাপায় অটোরিকশার ৫ যাত্রী নিহত         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৭, শনাক্ত ১৫৫২৭         ‘শাবির ঘটনায় পুলিশের দায় থাকলে ব্যবস্থা’         ‘দুর্নীতির সূচক নিয়ে টিআই’র প্রতিবেদন একপেশে’         ৪০তম বিসিএসের ভাইভা স্থগিত         টিকা কেনার খরচ জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ‘না’         টাকা পাচাররোধে কাস্টমসের জোরাল ভূমিকা চান কৃষিমন্ত্রী         বেগম পাড়ার মালিকদের তালিকা বার বার চেয়েও পাচ্ছি না : দুদক চেয়ারম্যান         রাজধানীতে হঠাৎ বৃস্টিতে দুর্ভোগ নগরবাসীর         সস্ত্রীক করোনামুক্ত প্রধান বিচারপতি         যুক্তরাষ্ট্রে জামায়াত-বিএনপির ৮ লবিস্ট ফার্ম ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ ঢাকার মালয়েশিয়া হাইকমিশন         গোল্ড ব্যাংকের পরিকল্পনা আইকনিক : বাণিজ্যমন্ত্রী         বছিলায় ড্রেনে নেমে মেয়র আতিক ভাইরাল         আলোচিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিচার শুরু         রাজশাহীর প্রতিদিন বাড়ছে করোনা সংক্রমণ         নীলফামারীতে অটোর সাথে ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪         পুতিনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেনের         ফ্লোরিডা উপকূলে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ ৩৯