শনিবার ১৫ মাঘ ১৪২৮, ২৯ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মিয়ানমারে গণতন্ত্রের যাত্রা

পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে সামরিক শাসনের নিগড়ে আবদ্ধ থাকার পর প্রথমবারের মতো নির্বাচিত বেসামরিক প্রেসিডেন্ট হলেন থিন কিয়াও। অবশ্য থিন কিয়াওর এই বিজয় মোটেও সহজসাধ্য ছিল না; কুসুমাস্তীর্ণ তো নয়ই। ১৯৯০ সালের নির্বাচনে মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী আন্দোলনের নেত্রী শান্তিতে নোবেল বিজয়ী আউং সান সুচির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) বিপুল ভোটে বিজয়ী হলেও জোর করে সেই জনরায় ছিনিয়ে নেয় সেনাবাহিনী। এরপরও অবশ্য এনএলডির আন্দোলন-সংগ্রাম থেমে থাকেনি। হত্যা-নির্যাতন-গুম খুনও কিছু কম হয়নি সামরিক শাসনের ছত্রছায়ায়। পরে গত বছরের ঐতিহাসিক সাধারণ নির্বাচনে সুচির দল আবারও বিপুল ভোটে জয়লাভ করে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে। এ সময় অবশ্য সেনাসমর্থিত প্রেসিডেন্ট থেইন সেইনের সরকার গণতন্ত্রে উত্তরণের পথে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে।

নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়লাভ করায় সুচিরই প্রেসিডেন্ট হওয়ার কথা। তবে এক্ষেত্রে বাদ সাধে প্রভাবশালী সেনাবাহিনীর তৈরি সংবিধান। বর্তমান সংবিধানের একটি ধারা অনুযায়ী কোন নাগরিকের স্বামী/স্ত্রী বা সন্তান বিদেশী নাগরিক হলে ওই নাগরিক প্রেসিডেন্ট হতে পারবেন না। মূলত সুচিকে কেন্দ্র করেই সংবিধানের এই সংশোধনী। কেননা সুচির প্রয়াত স্বামী ও দু’সন্তান ব্রিটিশ নাগরিক। সমস্যা আছে অন্যত্রও। সুচির দল ক্ষমতায় এলেও মিয়ানমারের শক্তিশালী সেনাবাহিনীর ক্ষমতা ও অবস্থান খর্ব হবে না। পার্লামেন্টের এক-চতুর্থাংশ আসন তাদের জন্য বরাদ্দ। ফলে সুচি সামরিক বাহিনীর সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করলেও সংবিধান সংশোধনের ব্যাপারে তারা অনড় অবস্থান নেয়। অতঃপর সুচির সমর্থনে এবং এনএলডির সদস্যদের ভোটে থিন কিয়াওর প্রেসিডেন্ট হওয়ার পথ সুগম হয়। তিনি তার স্কুল জীবনের বন্ধু এবং সুচির ছায়া প্রেসিডেন্ট হিসেবেই বিবেচিত হবেন। নির্বাচনে বিজয়ের পরপরই থিন কিয়াও বলেন, ‘এ বিজয় বোন সুচি’র। ৬৯ বছর বয়সী থিন কিয়াও মিয়ানমারের খ্যাতনামা লেখক ও কবি মিন থু উনের পুত্র এবং সুচির মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত দাতব্য প্রতিষ্ঠান দো খেন চির পরিচালনা করেন। এ থেকে সহজেই প্রতীয়মান হয় যে, সুচির প্রতি তার আনুগত্য প্রশ্নাতীত।

গণতন্ত্রের পথে মিয়ানমারের অভিযাত্রা শুরু হলেও সুচির দল এনএলডি ও প্রেসিডেন্ট থিন কিয়াওর জন্য আগামী দিনের পথচলা খুব সহজ হবে বলে মনে হয় না। বিভিন্ন দলমত ও জাতি-গোষ্ঠীর মধ্যে ঐক্য এবং সমন্বয়ের পথে অগ্রসর হতে হবে তাদের। দীর্ঘদিনের গৃহবিবাদ, দারিদ্র্য, সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী, ভগ্নদশাপ্রাপ্ত পুরনো অবকাঠামো সংস্কার নতুন সরকারের জন্য রীতিমত চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তদুপরি দীর্ঘদিন বহির্বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার কারণেও প্রকৃত প্রস্তাবে মিয়ানমার হয়ে পড়েছে বিচ্ছিন্নপ্রায় ও একঘরে। প্রতিবেশী দেশ ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক ভাল হলেও বাংলাদেশের সঙ্গে দেশটির সম্পর্ক অম্লমধুর। এক সময় মিয়ানমারের পুরনো রাজধানী রেঙ্গুনের সঙ্গে বাঙালীদের নিবিড় সখ্য ছিল ব্যবসা-বাণিজ্যসহ। দু’দেশের স্বার্থেই সেসবের পুনরুজ্জীবন প্রত্যাশিত। আশার কথা, সমুদ্রসীমানার ফলপ্রসূ মীমাংসা হয়েছে আন্তর্জাতিক আদালতে এবং দু’দেশই তা মেনে নিয়েছে। অতঃপর রোহিঙ্গা সমস্যার জরুরী সমাধান কাম্য। মিয়ানমারকে এই বাস্তবতা মেনে নিতে হবে যে, রোহিঙ্গারা জন্মসূত্রে সেদেশেরই নাগরিক। সুতরাং বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নিতে হবে নবগঠিত গণতান্ত্রিক সরকারকে। আমরা মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সরকারের সাফল্য কামনা করি।

শীর্ষ সংবাদ:
সামনে কঠিন ২ সপ্তাহ ॥ নিয়ন্ত্রণের বাইরে করোনা         দুই প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা ॥ জালিয়াতি ও অনলাইন প্রতারণা         গণমানুষের ভোটাধিকার নিশ্চিতে মাইলফলক ॥ কাদের         বাড়িতে ঢুকে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা         হুন্ডুরাসে প্রথম         উৎসবমুখর পরিবেশে শেষ হলো চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন         চিকিৎসা দিতে গিয়ে করোনা আক্রান্ত চিকিৎসক-নার্স         আগামী জুনে উৎপাদনে যাবে দেশী-বিদেশী ৬ প্রতিষ্ঠান         সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে নারায়ণগঞ্জের জাহিন নিটওয়্যার্সের আগুন         করোনা ভাইরাসে আরও ২০ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪৪০         শিল্পী সমিতির নির্বাচন ॥ ভোট দিয়েছেন ৩৬৫ জন, চলছে গণনা         শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদত্যাগের আন্দোলন চলবে, ঘোষণা শিক্ষার্থীদের         মন্ত্রীর অনুরোধ না রেখে ৬ তারিখের আগেই দাম বাড়লো ভোজ্যতেলের         মাত্র ২ সরকারি হাসপাতালে রয়েছে স্ট্রোক ব্যবস্থাপনার সুবিধা!         বিএনপি দেশের বিরুদ্ধে সারা দুনিয়ায় অপপ্রচার চালাচ্ছে ॥ তথ্যমন্ত্রী         চিকিৎসা পাওয়া আমার মৌলিক অধিকার ॥ মাহবুব তালুকদার         ইসিকে শক্তিশালী করতে সব রকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে ॥ সেতুমন্ত্রী         ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধ করার ইচ্ছা রাশিয়ার নেই ॥ লাভরভ         রোহিঙ্গাদের জন্য ২০ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা জাপানের         টাঙ্গাইলে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত, আহত ২